স্বর্ণ ব্যবসায়ী খুন

আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নয়নে ব্যবস্থা নিন

প্রকাশ | ১২ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৮, ০২:০৭

অনলাইন ডেস্ক

বন্ধুর ভাড়া বাড়ির সেপটিক ট্যাংক থেকে স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীরচন্দ্র ঘোষের পাঁচ টুকরো লাশ উদ্ধার করা হয়। গত ১৮ জুন রাত সাড়ে ৯টায় নগরীর বালুর মাঠের বাসা থেকে কালিরবাজার এসে নিখোঁজ হন স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীরচন্দ্র ঘোষ। ওই রাতেই পিন্টুর ফ্ল্যাটে হত্যা করা হয় তাকে। পুলিশ বলেছে, গ্রেপ্তার হওয়া পিন্টু দেবনাথ ও তার কর্মচারী বাপেন ভৌমিক বাবু সরাসরি প্রবীরচন্দ্র ঘোষ হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িত। মূলত দেনা-পাওনার দ্বন্দ্বে নারায়ণগঞ্জে খুন হন স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর। আবার রাজধানীর ভাসানটেক থেকে এক স্থপতি তিন দিন ধরে নিখোঁজ আছেন।

ইদানীং অপহরণ ও নিখোঁজের ঘটনা বেড়ে চলেছে। কোথাও পাওয়া যাচ্ছে তাদের মৃতদেহ, আবার কারো কারো খোঁজও মিলছে না। মোটামুটি সারাদেশেই অপরাধ কর্মকা- জেঁকে বসেছে। প্রশ্ন হচ্ছে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কি সঠিকভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করছে? একের পর এক হত্যার ঘটনা কেন ঘটছে। ধরে নেওয়া যেতে পারে, ব্যক্তিগত শত্রুতা, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা থেকে শুরু করে ঢিলে হয়ে যাওয়া পারিবারিক কিংবা সামাজিক বন্ধন অপরাধমূলক কর্মকা-ের জন্য দায়ী। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্ব অপরাধ দমনের পাশাপাশি সামাজিক শৃঙ্খলা রক্ষা করা। সেই কাজ কি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যথাযথভাবে করছে বা করতে পারছে?

জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের আর মাত্র কয়েক মাস বাকি। এই সময়ে নানা অপশক্তি দেশকে অস্থিতিশীল রাখতে চাইবে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি কঠোর হাতে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। এখানে কালক্ষেপণের কোনো সুযোগ নেই। আমরা আশা করব, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়নে যথাযথ ব্যবস্থা নেবে। অন্যায় করা যেমন অপরাধ, তেমনি সেটা সহ্য করাও অপরাধÑ কারণ সেটা অন্যায়কে আরও বাড়িয়ে দেয়। আমরা আশা করি, অবিলম্বে অপরাধীদের শনাক্ত করে তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। সর্বাগ্রে মানুষের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা জরুরি।