যুক্তরাজ্যে পার্লামেন্ট নির্বাচনে ইশতেহার

অভিবাসন নিয়ন্ত্রণ কঠোর করবে কনজারভেটিভ দল

  হেফাজুল করিম রকিব, লন্ডন

২০ মে ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ২০ মে ২০১৭, ০০:১৫ | প্রিন্ট সংস্করণ

ব্রিটিশ পার্লামেন্ট নির্বাচনের প্রচারণায় ভোটারদের মন জয় করতে গিয়ে নানা ইস্যুতে বিতর্কে জড়িয়ে পড়ছে রাজনৈতিক দলগুলো। এবার বিতর্কের ফোকাস হচ্ছে দলগুলোর নির্বাচনী ইশতেহার। লেবার পার্টি ও লিবডেমের ইশতেহার নিয়ে যথেষ্ট বিতর্ক ছড়ায়। কনজারভেটিভ দলের নির্বাচনী ইশতেহার সে বিতর্ক আর উসকে দিয়েছে। ক্ষমতাসীনদের ইশতেহারে ব্রেক্সিট কার্যকর বা ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাজ্যের সদস্যপদ পুরোপুরি প্রত্যাহার করে নেওয়ার বিষয়টিকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। কনজারভেটিভ পার্টির নেতা তেরেসা মে গত বৃহস্পতিবার ওয়েস্ট ইয়র্কশায়ারের হ্যালিফেক্সে ইশতেহার ঘোষণা করেন। তাতে অভিবাসন নিয়ন্ত্রণে আরও কঠোর হওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়।

তিনি বলেন, ব্রেক্সিট বাস্তবায়নকে ঘিরে যুক্তরাজ্যের সামনে কঠিন সময় অপেক্ষা করছে, যা মোকাবিলার জন্য অতীতের যে কোনো সময়ের তুলনায় স্থিতিশীল ও শক্তিশালী নেতৃত্ব বেশি জরুরি। ইইউর সদস্যপদ ত্যাগ করে স্বাধীনভাবে বৈশ্বিক পরিসরে বাণিজ্য ও নেতৃত্ব দেওয়ার অপার সুযোগের কথা বলা হয়। তিনি বলেন, কনজারভেটিভ পার্টিই ব্রেক্সিটের ফাঁক গলে ভবিষ্যৎ দেখার দৃষ্টি নিয়ে পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে।

এদিকে কনজারভেটিভ পার্টির নির্বাচনী ইশতেহারের সমালোচনা করে লেবার লিডার জেরেমি করবিন বলেন, কনজারভেটিভ কখনো কোনো পরিবারের জন্য কাজ করেনি। তারা যে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে কীভাবে করবে তার কোনো দিকনির্দেশনা নেই। অন্যদিকে লিবারেল ডেমোক্র্যাট পার্টির নেতা টিম ফ্যারন বলেন, ‘আসল কথা হলো, কনজারভেটিভ পার্টি লাগামহীন এবং তারা যে কোনোভাবে ক্ষমতায় যেতে চায়।’

তেরেসা মে ইশতেহারে আরও বলেন, বর্তমানে জোটবহির্ভূত দেশ থেকে আসা অভিবাসী নিয়ন্ত্রণে কাজ করবে কনজারভেটিভ পার্টি। ব্রেক্সিট গণভোটের সময় ইইউ নাগরিকদের অবাধ প্রবেশাধিকার রোধের যে অঙ্গীকার করা হয়, ভবিষ্যতে তা বাস্তবায়নে কাজ করে যাবে কনজারভেটিভ পার্টি। তিনি বলেন, আগামী দিনগুলোয় প্রবাসী শ্রমিক নিয়োগ করলে কোম্পানিগুলোকে বেশি অর্থ দিতে হবে। গত মাস থেকেই দক্ষ প্রবাসী শ্রমিকের ওপর ‘স্কিল চার্জ’ আরোপ করছে ব্রিটিশ সরকার। সরকারের আরোপিত নিয়ম অনুসারে, বিশেষায়িত কাজের ক্ষেত্রে ইইউবহির্ভূত দেশ থেকে দক্ষ কর্মী নিয়োগ করলে ব্রিটিশ কোম্পানিগুলোকে ‘স্কিল চার্জ’ প্রদান করতে হবে।

বর্তমানে ইউরোপীয় অর্থনৈতিক এলাকার বাইরে থেকে কোনো দক্ষ প্রবাসী শ্রমিক নিয়োগ করলে ক্ষুদ্র ও দাতব্য সংগঠনগুলোকে বছরে ৩৬৪ পাউন্ড ও বৃহদায়তন প্রতিষ্ঠানগুলোকে বছরে ১ হাজার পাউন্ড স্কিল চার্জ দিতে হয়। ইশতেহারে কনজারভেটিভ পার্টি জানায়, ৮ জুনের সাধারণ নির্বাচনে দল জয়লাভ করলে স্কিল চার্জ বাড়িয়ে ২ হাজার পাউন্ড করা হবে। স্কিল চার্জ দ্বিগুণ করলে স্বভাবতই সরকারের আয়ও বাড়বে। বাড়তি আয় ব্রিটিশ কর্মীদের দক্ষতা বাড়াতে ব্যয় করা হবে বলে জানায় কনজারভেটিভ পার্টি।

স্কিল চার্জ বাড়ানোর পাশাপাশি অভিবাসীদের চিকিৎসা ব্যয়ও বাড়াবে কনজারভেটিভ পার্টি। বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস) পেতে হলে আগামীতে অভিবাসীদের অধিক অর্থ দিতে হবে। তবে ৭ বছর ধরে অভিবাসী নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ রাজনৈতিক দলটি ভবিষ্যতে নিজেদের লক্ষ্য পূরণে কতটা সফল হবে, তা এখনও নিশ্চিত নয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে