‘রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ স্বীকৃতি পেয়ে খুশি’

  অনলাইন ডেস্ক

২০ মে ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ২০ মে ২০১৭, ১০:৩০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রশিল্পে গৌরবোজ্জ্বল ও অসাধারণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ২৫টি েেত্র চলচ্চিত্রশিল্পী এবং কলাকুশলীদের ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৫’ ঘোষণা করা হয়েছে। তথ্য মন্ত্রণালয়ের চলচ্চিত্র অধিশাখা থেকে এ বিষয়ে চূড়ান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। ইতোমধ্যে ঘোষণা অনুযায়ী, কার কার হাতে উঠতে যাচ্ছে জাতীয় পুরস্কার এ খবর সবাই জেনে গেছেন। পুরস্কার পেতে যাওয়া কয়েকজনের অনুভূতিই প্রকাশ করা হলো এ লেখায়। লিখেছেনÑ তারেক আনন্দ

ফেরদৌসী রহমান

প্রথমে আল্লাহর কাছে শুকরিয়া ওনারা আমাকে পুরস্কার দিয়েছেন। পুরস্কার প্রাপ্তিতে তো সব সময় ভালো লাগে। এটা একটু স্পেশাল এজন্য বলব, সারাজীবন যা করেছি তার ওপর পুরস্কার। আজীবন সম্মাননা। ১৯৭৭ সালে শ্রেষ্ঠ সংগীত পরিচালকের পুরস্কার পেয়েছিলাম। সেটা ছিল অনেক আনন্দের। পুরস্কার পেলেও আল্লাহর কাছে শুকরিয়া, না পেলেও শুকরিয়া।

 

সুবীর নন্দী

এর আগে আমি চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছি। ১৯৮৪ সালে মহানায়ক, ১৯৮৬ সালে শুভদা, ১৯৯৯ সালে শ্রাবণ মেঘের দিন, ২০০৪ সালে ‘মেঘের পরে মেঘ’ চলচ্চিত্রের জন্য। ‘মহুয়া সুন্দরী’ চলচ্চিত্রের ‘তোমারে ছাড়িতে বন্ধু’ গানের জন্য আমি পঞ্চমবারের মতো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেতে যাচ্ছি। যে কোনো পুরস্কার পেতে ভালো লাগে। রাষ্ট্রীয় পুরস্কার অনেক বড় স্বীকৃতি। এর অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার নয়।

এসআই টুটুল

জাতীয় স্বীকৃতি। এই স্বীকৃতির সঙ্গে অন্যকিছুরই তুলনা চলে না। আমি প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের স্বাদ পাই ২০০৭ সালে দারুচিনি দ্বীপ চলচ্চিত্রের সংগীত পরিচালনা করে। এর পর সেরা গায়কের পুরস্কার হাতে উঠে ২০১০ সালে। এবার ‘বাপজানের বায়োস্কোপ’ চলচ্চিত্রের ‘উথাল পাতাল জোয়ার’ গানটির জন্য শ্রেষ্ঠ গায়ক ও শ্রেষ্ঠ সুরকারের সম্মাননা পেতে যাচ্ছি। খবরটি শোনার পর থেকেই ভালো লাগা কাজ করছে।

মাহফুজ আহমেদ

একজন অভিনেতা কখনই পুরস্কার পাওয়ার আশায় অভিনয় করে না। আমি সব সময় নিজেকে উজাড় করে অভিনয় করার চেষ্টা করি। ‘জিরো ডিগ্রি’ ছবিতেও সেটিই করার চেষ্টা করেছি। তারই ফল পেলাম। সরকারের সর্বোচ্চ স্বীকৃতি পেয়ে আমি খুবই আনন্দিত।

শাকিব খান

এ আনন্দ মুখে বলে প্রকাশ করা যায় না। আমার অর্জন পুরোটাই দর্শকের জন্য উৎসর্গ করলাম। যে ছবিটির জন্য পুরস্কার পেয়েছি, সেই ছবির কলাকুশলীদের ধন্যবাদ জানাই। তারা অনেক কষ্ট করে ছবিটি নির্মাণ করেছেন। তাদের জন্যই এ পুরস্কার পেতে যাচ্ছি। এখন হাতে নেওয়ার অপেক্ষায় আছি।

জয়া আহসান

রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ স্বীকৃতি পেতে কার না ভালো লাগে। এবারের তালিকায় আমার নাম দেখে খুবই খুশি হয়েছি। ‘জিরো ডিগ্রি’ ছবির জন্য আমার এ অর্জন। ছবিটি যারা দেখেছেন তারা বুঝতে পারবেন, কেন আমি পুরস্কার পেলাম।

প্রিয়াংকা গোপ

আমি খুব বেশি চলচ্চিত্রে গান করিনি। এর আগে কণ্ঠ দিয়েছি আকরাম খানের ‘ঘাসফুল’ ও মাসুদ পথিকের ‘নেকাব্বরের মহাপ্রয়াণ’ চলচ্চিত্রে। এবার কণ্ঠে তুলেছি ‘অনিল বাগচীর একদিন’ চলচ্চিত্রের ‘আমার সুখ সে তো’ গানটি। এ ছবির গানের জন্যই জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেতে যাচ্ছি। সত্যিই আমি অভিভূত। অভিভূত একজন সংগীতশিল্পী হিসেবে রাষ্ট্রীয় পুরস্কারপ্রাপ্তিতে। এ খবর শুনে আমি অনেক খুশি হয়েছি। প্রিয়াংকা গোপ এর আগে ‘সিম্ফোনি-চ্যানেল আই মিউজিক অ্যাওয়ার্ড-২০১৬’ আসরের ‘বেস্ট ক্যাসিক্যাল সিঙ্গার’ সম্মাননা পেয়েছেন।

সানী জুবায়ের

খবর পেয়ে আমি অনেক খুশি। যে কোনো স্বীকৃতিই মানুষকে আনন্দ দেয়। কারণ এটি তার কষ্ট ও পরিশ্রমের স্বীকৃতি। তবে পুরস্কার পাব কী পাব না এমন ধারণা নিয়ে আমি কখনো কাজ করিনি। আমি কাজ করেছি মনের আনন্দে। ধন্যবাদ দিতে চাই চলচ্চিত্র পরিচালক মোরশেদুল ইসলামকে তার চলচ্চিত্রে আমাকে সংগীত পরিচালক হিসেবে বেছে নেওয়ার জন্য এবং আমার বন্ধু-বান্ধবদের যারা আমাকে নিরলস উৎসাহ দিয়েছেন সব সময়ই।

শাবানা কি আসবেন পুরস্কার গ্রহণ করতে?

জননন্দিত অভিনেত্রী শাবানা। চলচ্চিত্রে অনবদ্য অভিনয়ের জন্য এর আগে ১১বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন তিনি। এবার পেতে যাচ্ছেন আজীবন সম্মাননা। শাবানা স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন আমেরিকায়। কয়েক বছর পর পর দেখা যায় দেশে ফিরতে। চলচ্চিত্রাঙ্গনে গুঞ্জন উঠেছেÑ জীবনের সবচেয়ে বড় পুরস্কারটি গ্রহণ করতে তিনি কি দেশে আসবেন?

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে