যুদ্ধাবস্থায় যুক্তরাষ্ট্র-উত্তর কোরিয়া

মুখে লাগাম দিন : ট্রাম্পকে শি

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৩ আগস্ট ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ১৩ আগস্ট ২০১৭, ০০:২০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং সেই সঙ্গে উত্তর কোরিয়াকেও অনুরোধ করেছেন, এমন কথা বা কাজ না করতে, যা বিরাজমান অস্থিতিকে আরও উসকে দেয়। গতকাল শনিবার টেলিফোন আলাপে ট্রাম্পকে শান্ত থাকার আহ্বান জানান শি। বিবিসি।

চীনের সরকারি টেলিভিশন সূত্রের খবর, শি টেলিফোনে ট্রাম্পকে বোঝানÑ কোরীয় উপদ্বীপকে পরমাণু হামলার হাত থেকে বাঁচানোটা কেন চীন ও আমেরিকা, দুই দেশের কাছেই খুব জরুরি। ট্রাম্পকে শি বলেন, দুই দেশেরই অর্থনৈতিক স্বার্থে কোরীয় উপদ্বীপে শান্তি ও সুস্থিতি বজায় রাখা প্রয়োজন। মন্তব্য পাল্টামন্তব্য, চাপ বা পাল্টাচাপ তৈরির কৌশল বা যুদ্ধের প্রস্তুতি কোনোটাই যে সে ক্ষেত্রে কাম্য নয়; মার্কিন প্রেসিডেন্টকে তা বুঝিয়ে বলেন চীনের প্রেসিডেন্ট। তিনি এও বলেন, পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে হবে রাজনৈতিকভাবে। আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে। টেলিভিশনে দেখা গেছে, শির সব কথা শুনে সদর্থকভাবে মাথা নাড়ছেন ট্রাম্প।

চলতি সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার দুই নেতার মধ্যে হুমকি পাল্টাহুমকি, মন্তব্য পাল্টামন্তব্য চলছে। গুয়ামে মার্কিন ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করার ছক প্রায় প্রস্তুত, পিয়ংইয়ং এমন হুমকি দেওয়ার পর যুদ্ধাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। ট্রাম্প জবাবে বলেছেন, গোলাবারুদ ও সৈন্যসামন্ত নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত। উত্তর কোরিয়া কোনো ভুলচুক করলেই বিস্ফোরণ ঘটানো হবে। কিন্তু উত্তর কোরিয়ার একমাত্র বড় মিত্র চীন দুপক্ষকেই শান্ত থাকতে বলছে। এর আগের দিন চীন অবশ্য ইঙ্গিত দিয়েছিল, যদি পিয়ংইয়ং আগে হামলা করে তা হলে বেইজিং চুপ থাকবে।

উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম কেসিএনএ শনিবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, মার্কিন সাম্রাজ্যের পতন ঠেকাতে চাইলে ট্রাম্প প্রশাসনের উচিত মুখ সামলে কথা বলা এবং হিসাব করে কাজ করা।

উত্তর কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে দীর্ঘদিনের শত্রুতা। কিন্তু জুলাইয়ে দুটো আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করার পর পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে থাকে। এরই মধ্যে জাতিসংঘ গত সপ্তাহে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে নতুন করে অর্থনৈতিক অবরোধ জারি করেছে। তার পরই গুয়ামের মার্কিন ঘাঁটি উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় উত্তর কোরিয়া।

এদিকে মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগন জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া আগামী দশ দিনের মধ্যে যৌথ সামরিক মহড়ায় অংশ নেবে। ফলে এ অঞ্চলে উত্তেজনা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে