শুভ জন্মদিন সেলিনা হোসেন

  পিয়াস মজিদ

১৪ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রকৃত শিল্পীমাত্রই স্থাণুতার বিপরীত স্রোতে তার সৃষ্টির নাও ভাসান। সন্ধান করে চলেন নবজাত মেঘ ও রৌদ্রের। বিগত চার দশকেরও বেশি সময়ের [প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ উৎস থেকে নিরন্তর এর প্রকাশকাল ১৯৬৯-কে হিসাবে রেখে বলছি] শিল্প অভিযাত্রায় কথাশিল্পী সেলিনা হোসেন যেন পরমব্রতের মতো এই নবীনতার সাধনা করে যাচ্ছেন। আমাদের কাছে তার প্রধান গুরুত্বের জায়গাও তাই। বিষয় থেকে বিষয়ান্তরের কক্ষপথে অবিরাম ঘূর্ণন অশৈল্পিক স্থিতির বদলে তাকে নিক্ষেপ করেছে শিল্পচঞ্চল আত্মপ্রতিদ্বন্দ্বিতায়। নিজের রচিত শিল্পবৃত্ত অতিক্রমণের চেষ্টায় তিনি উš§ুখর। কারণ সহজ তুষ্টি নয়, তার গন্তব্য তো অধরা মাধুরী। এই অধরা মাধুরীর সন্ধানেই যেন গল্প-উপন্যাস-মুক্তগদ্য-শিশুসাহিত্য ইত্যাদি বিচিত্র ক্ষেত্রে তার সবল সক্রিয়তা। আপন শিল্পস্বরকে তিনি প্রতিস্থাপন করেন নানা মাধ্যমে তবে অভিমুখ তার একটাইÑ মানবায়ন। জলোচ্ছ্বাসে ভেসে যাওয়া মানুষ, ভাষা আর স্বাধীনতা সংগ্রামের লড়াকু মানুষ, বিপ্লবের দাউ দাউ অগ্নিতে ঝাঁপ দেওয়া মানুষ, ছিটমহলের অধিকারহারা মানুষ, দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত মানুষ, সিপাহি যুদ্ধের অভিঘাতে ক্ষতবিক্ষত মানুষÑ এরা সবাই জড়ো হয় সেলিনা হোসেনের সুবিশাল ক্যানভাসে। শুরুটা তার ছোটগল্প দিয়ে। মাত্র ২২ বছর বয়সে প্রকাশিত প্রথম ছোটগল্পের বই উৎস থেকে নিরন্তর (১৯৬৯)। বদ্ধ সমাজে সত্য উচ্চারণ আর সাহসের জন্য এ বইয়ের লেখক সেলিনা হোসেনকে স্বাগত জানিয়েছিলেন হুমায়ুন আজাদ। শুধু উৎস থেকে নিরন্তরেই নয়, পরবর্তী গল্পগুচ্ছেও তিনি আমাদের অজস্র নিগূঢ় সত্যের সম্মুখীন করেছেন।

সেলিনা হোসেন মুখ্যত ঔপন্যাসিক। শুধু সংখ্যাগত বিচারেই নয়, তার আখ্যানবিশে^র বিস্তার ও অন্তর্গত প্রবণতাতেও এর সমর্থন মেলে। তার ত্রিশেরও বেশি উপন্যাসের ভূগোলে ভ্রমণ আমাদের এই সাক্ষ্য দেয় যে, উপন্যাসকে তিনি নবতর শিল্পকলায় উন্নীত করেছেন। বিষয়ের বিভিন্নতা, ভিন্নতর আঙ্গিকতা আর সরলÑ দ্বীপান্বিত ভাষা ঔপন্যাসিক হিসেবে তাকে বিশিষ্টতায় ভূষিত করেছে।

ব্যক্তি মানুষ ও সমষ্টি মানুষ নিয়ে তার উপন্যাসÑ জগৎ বিস্তারিত। যদিও সমষ্টি মানুষই তার কলমে যথার্থরূপে বাঙময় হয়ে ওঠে তথাপি ব্যক্তির অন্তর্লোকেও তার সাহসী পদপাত লক্ষ্যযোগ্য। বাংলা উপন্যাসের জমিন এমনতর নতুন নতুন শস্যে শ্যামল করে চলেছেন তিনি। গল্প-উপন্যাসের সমান্তরালে চলে তার প্রবন্ধ-গদ্যচর্চা। শিশু-কিশোর সাহিত্য সেলিনা হোসেনের কাছে নেহাত শৌখিন চর্চার বিষয় নয়। আমরা দেখছি তিনি অনলস লিখে চলেছেন শিশু-কিশোরতোষ গল্প-উপন্যাস।

সেলিনা হোসেন তার সৃষ্টির কেন্দ্রভাগে রাখেন পিছিয়ে পড়া মানুষকে, নারীকে, আদিবাসী জনজীবনকে। কিন্তু দৃষ্টি তার সমগ্রতাবাদী। প্রকৃত শিল্পী বলেই তিনি পাঠকের হাতে কোনো সহজ সমাধানের সূত্র ধরিয়ে দেন না। তবে আমাদের বিদ্যমান মর্গ-বাস্তবতার অদূরে জীবনের ডালে বসা সবুজ পাখির ডাক শোনাতে তিনি একটুও ভোলেন না। এখানেই লেখক হিসেবে সেলিনা হোসেনের নতুনতা। ১৯৪৭ সালের আজকের দিনে তার জন্ম। আপনার সৃষ্টি ও কর্ম চিরায়ু হোক।

পিয়াস মজিদ : কবি

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে