অদ্ভুত, অসাধারণ

দেখা থেকে লেখা

  জাহিদ ভূঁইয়া

২২ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০১৮, ০৯:৩২ | প্রিন্ট সংস্করণ

‘অদ্ভুত! অসাধারণ!’

‘দেবী’ দর্শনের পর আশপাশ থেকে আসা এমন অনেক প্রশংসাসূচক শব্দই কানে বাজতে ছিল। সিনেমা হল থেকে বের হওয়ার পর আহমেদ সজীব নামের এক দর্শক তো বলেই বসলেন, ‘মিসির আলী, নীলু, আনিস, সাবেত কাকে বাদ দিয়ে কার প্রশংসা করব? আর রানু, কী অভিনয়টাই না করলেন! তার প্রশংসা করার মতো শব্দ এখন খুঁজে পাচ্ছি না!’ শুক্রবার থেকে এখন পর্যন্ত প্রতিটি প্রদর্শনী শেষে ‘দেবী’ নিয়ে এমন মন্তব্য প্রায় সবারই।

অনেকে বলেন, ‘এ ধরনের ছবি আরও বেশি নির্মাণ করা উচিত, তা হলে সবাই আবার হলমুখী হবে।’ সিনেমা হলের বাইরে হতাশার চিত্রও দেখা গেছে! টিকিট না পেয়ে দর্শক হতাশ, যা ‘দেবী’সংশ্লিষ্ট সবার মন ভালো করে দেয়! মুক্তির প্রথম দিনে বসুন্ধরা সিটির স্টার সিনেপ্লেক্সের চারটি স্ক্রিনে ১২টি শোয়ের আয়োজন করা হলেও ‘দেবী’র টিকিটের জন্য দর্শকের মধ্যে হাহাকার তৈরি হয়।

সিনেপ্লেক্সের জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘প্রথম দিনে ১২টি শোয়ের আয়োজন করা হয়। সিনেপ্লেক্সের জন্য এটি রেকর্ড। কিন্তু তার পরও দর্শকের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব হয়নি। অনেকেই টিকিট না পেয়ে মন খারাপ করে চলে গেছেন। আমার মনে হচ্ছে, ছবিটি বছরজুড়ে দর্শকরা দেখবেন।’

এবার ছবি প্রসঙ্গে আসা যাক। ১৯ অক্টোবর (শুক্রবার) বিকাল ৪টায় স্টার সিনেপ্লেক্সে আমন্ত্রিত অতিথিদের জন্য ‘দেবী’র স্পেশাল স্ক্রিনিংয়ের আয়োজন করা হয়। আগেই ট্রেলার দেখা ছিল বিধায় এটি মাথায় রাখতে হয়েছে, হরর মুভির ফিল পাওয়া যাবে। হলোও তাই। টাকা খরচ করে যারা বিদেশি হরর মুভি দেখেন, তারা নির্দ্বিধায় ‘দেবী’ দেখতে পারেন। টাকা উসুল হবে এটা নিশ্চিত। আর রোমান্টিক মুহূর্ত যাদের পছন্দ, তাদের জন্যও আছে সুখবর। কলকাতার জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী অনুপম রায়ের অনবদ্য গায়কীর সঙ্গে জয়া আহসান ও অনিমেষ আইচের মিষ্টি রসায়ন আপনার মধ্যে রোমান্টিকতা ছড়িয়ে দেবে।

আর অভিনয়? আমার মনে হয়েছে, এটাই ছবির মূল শক্তি। দুই বাংলায় জয়া আহসানকে নিয়ে কেন এত মাতামাতি ‘দেবী’র রানু চরিত্রে অভিনয় করে সেটাই আরেকবার বোঝালেন তিনি। কতটা সাবলীলভাবেই না নিজেকে উপস্থাপন করলেন! আর এক্সপ্রেশন, এক কথায় অসাধারণ। মিসির আলী চরিত্রে চঞ্চল চৌধুরী ছাড়া আর কাউকে এতটা ভালো লাগত বলে মনে হয়নি। চরিত্র নির্বাচনে ভুল করেননি নির্মাতা।

আর নির্মাতার আস্থার শতভাগ দিয়েছেন চঞ্চল। গেটআপ, সংলাপ আর অভিনয়Ñ সব কিছুতেই তিনি ছিলেন অনবদ্য। ছবির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র নীলু। এতে অভিনয় করেছেন টিভি নাটকের পরিচিত মুখ শবনম ফারিয়া। এটি তার প্রথম ছবি। কিন্তু ছবির কোনো অংশেই মনে হবে না সেটা। সূক্ষ্ম ও স্বাভাবিকভাবে অভিনয় করেছেন পুরো ছবিতেই।

রানুর স্বামী আনিসের চরিত্রে দেখা গেছে জনপ্রিয় নির্মাতা অনিমেষ আইচকে। এ ছবি দেখার পর অনেক নির্মাতা যদি তাকে নিয়ে আগ্রহ দেখান অবাক হওয়ার কিছুই থাকবে না। তবে আনিসের ভয়েস কিছু কিছু জায়গায় পাওয়ারহীন মনে হয়েছে। সে জায়গাগুলোয় একটু উঁচু ভয়েস হলে আরও বেশি ভালো লাগত। এ পর্যন্ত যে কয়েকটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন ইরেশ যাকের, তার প্রত্যেকটিতে তাকে দেখা গেছে নেগেটিভ চরিত্রে। ‘দেবী’তেও তিনি এমন চরিত্রে হাজির হয়েছেন। সাবেত চরিত্রে নিজেকে ফুটিয়ে তুলেছেন সুন্দরভাবে।

লাইট-শ্যাডো, শব্দ গ্রহণ, আবহ সংগীত ও স্টোরি টেলিং এগুলো এক কথায় অনন্য। বাংলাদেশে এমন লাইট-শ্যাডোর কাজ আগে কখনই হয়নি। গুরুত্বপূর্ণ আরেকটি দিক হলো ফিনিশিং। বেশিরভাগ নির্মাতাই এ জায়গাটিতে এসে গুলিয়ে ফেলেন। সে দিক থেকে অনম বিশ্বাস প্রথম ছবিতেই মুনশিয়ানার পরিচয় দিয়েছেন। কোনো দৃশ্য অগোছালো লাগেনি। হুট করে হাজির হয়নি বা শেষ হয়নি। দেবী থেকে ‘পাওয়ার ট্রান্সমিশনের’ বিষয়টি সিনেমাটিক। শেষে কয়েকটি স্বল্প দৃশ্যে খুব দ্রুত কয়েকটি ইঙ্গিত দিয়েছেন নির্মাতা। যার একটা মেসেজও আছে!

মুক্তির আগেও আলোচনায় ছিল ‘দেবী’। কারণ এর প্রচারে ভিন্নমাত্রা যোগ হয়েছিল। অনেক ‘প্রথম’ নিয়ে এগিয়ে ছিলেন পুরো টিম।

১. কিংবদন্তি কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের সৃষ্টি মিসির আলী প্রথমবার বড়পর্দায়, যে চরিত্রে অভিনয় করেছেন জনপ্রিয় অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী।

২. জয়া আহসানের প্রথম প্রযোজিত চলচ্চিত্র ‘দেবী’। এতে রানু চরিত্রে অভিনয়ও করেছেন তিনি।

৩. জয়ার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ‘সি-তে সিনেমা’ থেকে নির্মিত এ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে প্রথমবারের মতো নির্মাতা হিসেবে নাম লেখালেন অনম বিশ্বাস। যিনি ‘আয়নাবাজি’র চিত্রনাট্যকার হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন

 ৪. সরকারি অনুদান পাওয়া ‘দেবী’র নীলু হয়ে প্রথমবার বড়পর্দায় হাজির হয়েছেন ছোটপর্দার প্রিয় মুখ শবনম ফারিয়া। এসব ‘প্রথম’ তাদের নিজের জায়গা থেকে পুরোটা ঢেলে দিয়েছেন। যার প্রমাণ এখন পর্যন্ত যারা ছবিটি দেখেছেন, তারা পেয়েছেন। যারা দেখেননি তাদের জন্য একটা বার্তা শুরু থেকেই দিয়ে আসছেন জয়া আহসান। তিনি বলেন, ‘আমরা যে দেবী নিয়ে এসেছি, সেখানে হুমায়ূন আহমেদ আছেন, তার ছাপও আছে; কিন্তু এটা পুরোপুরি হুমায়ূন আহমেদের দেবী নয়।’

কেন দেখবেন ‘দেবী’

• অতুলনীয় জয়া

• চঞ্চল-ফারিয়ার দুর্দান্ত অভিনয়

• হরর মুভির ফিল পাবেন

• অনুপম রায়ের গান প্রশান্তি দেবে

• নির্মাতা অনম বিশ্বাসের অসাধারণ উপস্থাপন.

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে