ফ্যাশন বিশ্ব

  অনলাইন ডেস্ক

১৫ নভেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রানির পরনে অনিতা ডুংরির পোশাক

বেলজিয়ামের রানি মাথিলডা সাম্প্রতিক ভারত সফরে ভারতীয় পোশাক পরে আলোড়ন তোলেন। ভারত সফরেরর সময় রানি মাথিলডার পরনে ছিল একটি লং ডিনার গাউন। পোশাকটির ডিজাইন করেন খ্যাতিমান ফ্যাশন ডিজাইনার অনিতা ডুংরি। ফ্রক কাটিং এ পোশাকটি রানি পরেছেন ভারতীয় ঐতিহ্যকে সম্মান জানানোর উদ্দেশ্যে। রাজকীয় পোশাক ডিজাইনের এই সম্মান অবশ্য অনিতার জন্য প্রথম নয়। এর আগেও যুক্তরাজ্যের রাজবধূ ডাচেস অব ক্যামব্র্রিজ কেট মিডলটন অনিতা ডুংরির ডিজাইন করা পোশাক পরেছেন। বেলজিয়ামের রানি অনিতার পোশাক পরায় ভারতীয় এই ফ্যাশন ডিজাইনার অত্যন্ত সম্মানিত বোধ করেছেন। তিনি মনে করেন, এর মাধ্যমে ইউরোপীয় ফ্যাশন জগতে ভারতের পোশাকের মর্যাদা আরও বৃদ্ধি পাবে।

রিতু কুমার ও পুনিত বালানার পোশাকে রাভিনা

মূলধারার চলচ্চিত্র থেকে কিছুটা আড়ালে চলে গেলেও ফ্যাশনচেতনায় এখনো আপটুডেট বলিউড তারকা রাভিনা ট্যান্ডন। সম্প্রতি দুটি ভিন্ন রকম চটকদার পোশাকে আলোকচিত্রীর লেন্সে ধরা পড়েন তিনি। একটি অনুষ্ঠানে রিতু কুমারের ডিজাইন করা শোল্ডার কাট আউট লাল ম্যাক্সি পরেন তিনি। তার সঙ্গে কালো বেল্ট তার আউটলুকে ভিন্ন মাত্রা যোগ করে। কানে ছিল বড় ঝোলানো দুল। চুলের স্টাইল ছিল কার্লি। আরেকটি অনুষ্ঠানে তিনি পরেন ফ্যাশন হাউস জারার ডেনিম প্যান্ট। সঙ্গে ছিল পুনিত বালানার ডিজাইন করা উজ্জ্বল গোলাপি রঙের কেপ। সাদা টি-শার্ট পরেন তিনি। সেই সঙ্গে রিতিকা সাচদেভের নকশা করা একটি জমকালো নেকলেস টি-শার্টের সাদাসিধে ভাবটিকে আড়াল করে পুরো আউট লুককে গর্জিয়াস করে তোলে। আঙুলেও দেখা যায় একটি গর্জিয়াস আংটি। দুটি পোশাকের সঙ্গেই জমকালো আই-মেকআপ এবং হালকা লিপস্টিক ব্যবহার করেছেন রাভিনা।

আগামী বসন্তে

পাহাড়ি ঝরনা, কাঠের সেতু, পাহাড়ের বুকে বুনোফুলÑ সব মিলিয়ে মনে হয় প্যারিসের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত প্রেক্ষাগৃহের র্যাম্প নয়, মডেলরা হেঁটে যাচ্ছেন দক্ষিণ ফ্রান্সের কোনো পাহাড়ি পথ বেয়ে। ২০১৮ সালের স্প্রিং ও সামার ফ্যাশনে সম্প্রতি ব্র্যান্ড হাউস শ্যানেল এভাবেই তাদের কালেকশন তুলে ধরে। পোশাকগুলোও ছিল বসন্ত ও গ্রীষ্মের ফুরফুরে মেজাজের। ইভনিং গাউনে ছিল বৃষ্টির ফোঁটার মোটিফ। মিনি স্কার্ট দেখে মনে হচ্ছিল তা যেন ঘাস ও লতাপাতার তৈরি। ব্রিটিশ ভোগ জানাচ্ছে, পোশাকগুলো দেখে দর্শকরা মুগ্ধ হয়েছেন। তবে তারচেয়েও বেশি মুগ্ধ হয়েছেন অনুষ্ঠানে মঞ্চসজ্জা দেখে। কাঠের সেতুর আকারে গড়া হয়েছে র্যাম্প। এখানে সেখানে ছিল ঝরনার ধারা। শীতের এই শুরুতে যেন বসন্ত নেমে এসেছিল হলরুমের ভেতর। আর শ্যানেল তো বরাবরই এ ধরনের চমক উপহার দিতে ভালোবাসে।

বছরটি ছিল স্পিডের

২০১৭ সাল শেষ হয়ে আসছে। প্রতিবছরের মতো এবারও ফ্যাশনজগতে শুরু হয়েছে সালতামামির হিসাব-নিকাশ। কোন পোশাক বেশি বিক্রি হলো, কোনটি ছাড়াতে পারেনি প্রত্যাশাকেÑ সেসব হিসাবের চুলচেরা বিশ্লেষণ আগামী বছরের দিকনির্দেশক হিসেবে কাজ করছে। ব্র্যান্ড হাউস ব্যালানসিয়েগার অবশ্য এসবের বালাই নেই। তারা বেশ জোরেশোরেই ঘোষণা দিচ্ছে যে, বছরটি ছিল তাদের জুতা ‘ট্রেইনারস’-এর। বিশেষ ধরনের এই জুতাগুলো ছিল যেমন আরামের, তেমনি দ্রুতগতির। জীবনে স্পিড আনতে তাই এগুলোর জুড়ি নেই। কারদাশিয়ানসহ অনেক তারকার পায়েই এ বছর দেখা গেছে ব্যালানসিয়াগার স্পিডি জুতা ‘ট্রেইনারস’। যদিও জুতাগুলো বাজারে ছাড়া হয়েছিল ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডের কথা মাথায় রেখে। কিন্তু দেখা যায়, ইভনিং পার্টিতে গর্জিয়াস পোশাকের সঙ্গেও পায়ে দেখা যাচ্ছে ‘ট্রেইনারস’। আরাম ও স্পিডের সমন্বয়ের প্রতীক এই জুতাগুলো তাই বছরজুড়ে বিক্রিও হয়েছে দেদার। আর ব্যালানসিয়েগা আগামী বছরও এই জুতাগুলো বাজারে ধরে রাখতে বদ্ধপরিকর।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে