শীতে সুস্থ ও সুন্দর থাকতে

  অনলাইন ডেস্ক

০৬ ডিসেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রকৃতিতে শীতের হাতছানি। অসুখ-বিসুখ, চেহারার মলিনতার কথা ভেবে শীত নিয়ে অনেকে বেশ আতঙ্কিত থাকেন। কেউ কেউ আবার এই আলসেমিভরা হিম হাওয়াতেই হয়ে ওঠেন উজ্জ্বল, উদ্যমী আর প্রাণবন্ত। এমন দলে যোগ দিতে কিন্তু শীতের ভয়ে হাত-পা গুটিয়ে বসে থাকলে চলবে না। শীতে সুস্থ ও সুন্দর থাকতে এখনই নিতে হবে বাড়তি প্রস্তুতি। বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলে জানাচ্ছেনÑ কেয়া আমান

হাড় কাঁপানো শীত না এলেও প্রকৃতিজুড়ে বইছে হিমেল হাওয়া। এ সময় ত্বক ও চুলের রুক্ষতা, শুষ্কতাসহ নানারকম অসুখ-বিসুখ লেগেই থাকে। তাই শীতে নিজেকে সুস্থ ও সুন্দর রাখতে প্রয়োজন বাড়তি যতœ।

শীতে সুন্দর ত্বক

শীতে ত্বকের খসখসে ভাব দূর করতে ত্বক ময়েশ্চারাইজার করা খুব জরুরি বলে জানান রূপ বিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভীন। তিনি বলেন, শীতে ত্বকে নিয়মিত ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। এ জন্য ত্বকের উপযোগী ময়েশ্চারাইজার কিনুন। তবে ত্বকের যতেœ প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার সবচেয়ে ভালো। অ্যালোভেরা, দুধের ওপরের তেল, মধু ইত্যাদি প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার ত্বক দীর্ঘ সময় মসৃণ ও কোমল রাখে। দিনে দু-তিনবার লোশন ব্যবহার করুন। সব ধরনের ত্বকের অধিকারীরাই শীতে বারবার মুখ ধোবেন। স্ক্র্যাবিং করলে ত্বকের ময়লা দূর হয়। তবে শুষ্ক ত্বকের অধিকারীদের শীতে খুব বেশি স্ক্র্যাবিং করা উচিত নয়।

তৈলাক্ত ত্বকের অধিকারীরা খেজুর বাটা, মটর ডালগুঁড়া ও ডিমের সাদা অংশ পেস্ট করে মুখে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। শুষ্ক ত্বকের অধিকারীরা কাঠবাদাম পেস্ট ব্যবহার করুন। স্বাভাবিক ত্বকের অধিকারীরা দুই টেবিল চামচ শসাকুঁচি, দুই টেবিল চামচ গ্লিসারিন, দুই চা-চামচ মধু, এক চা-চামচ ময়দা, তিন টেবিল চামচ গোলাপজল ভালো করে মিশিয়ে মুখে ও হাতে লাগান। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন।

চুলের যতœ নিন

শীতে শুষ্ক আবহাওয়ায় চুল রুক্ষ হয়ে পড়ে। ঠা-ার কারণে শীতে অনেকেই নিয়মিত শ্যাম্পু করতে চান না। ফলে অপরিচ্ছন্নতা আর অযতেœ এ সময় চুল আরও শুষ্ক হয়ে পড়ে। চুলের বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয়। শীতে তাই নিয়মিত চুলের যতœ নিন। এ ঋতুতে চুল ভালো রাখার সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে চুলে নিয়মিত তেল দেওয়া। রাতে ঘুমানোর আগে তেল হালকা গরম করে স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করুন। সকালে শ্যাম্পু করে ফেলুন। চুল মসৃণ ও কোমল থাকবে। চুলে ধুলা জমতে দেবেন না। নয়তো খুশকি সমস্যা দেখা দেবে। ব্লো-ডাই, হেয়ার ড্রায়ার যতটা সম্ভব কম ব্যবহার করুন। এগুলো চুল রুক্ষ করে তোলে। চুলের ধরন বুঝে সপ্তাহে একদিন ঘরোয়া হেয়ার প্যাক ব্যবহার করুন।

তৈলাক্ত চুলের অধিকারীরা একটি লেবুর খোসা, দুটি পেঁয়াজ, দুই টেবিল চামচ মেথিগুঁড়া ব্লেন্ড করে চুলে লাগিয়ে রাখুন। ১ ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করুন। শুষ্ক চুলের অধিকারীরা একটি পাকা কলার সঙ্গে একটি পেঁয়াজ, দুই টেবিল চামচ মধু পেস্ট করে চুলে লাগিয়ে রেখে ১ ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করুন। চুল মসৃণ ও ঝলমলে হয়ে উঠবে। স্বাভাবিক চুলের অধিকারীরা সপ্তাহে দুদিন হট টাওয়েল ট্রিটমেন্ট করুন।

ইয়োগা করুন

শীতে শরীর ও মন সুস্থ রাখতে যোগব্যায়াম জাদুর মতো কাজ করে। যোগব্যায়াম শরীরের রক্ত সঞ্চালন ঠিক রাখে, কর্মচাঞ্চল্য ধরে রাখে, সর্দি, কাশি, হাঁপানিসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্যসমস্যা এড়িয়ে যেতে সাহায্য করে। সঙ্গে শীতটাকেও করে তোলে উপভোগ্য। বাংলাদেশ ইয়োগা অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক নাজনিন সুলতানা এ সময় অর্ধচন্দ্রাসন, পদহস্তাসন, পার্শ্বঅর্ধচন্দ্রাসনসহ বিভিন্ন ধরনের যোগব্যায়াম করার পরামর্শ দিয়েছেন। জেনে নিন অর্ধচন্দ্রাসন পদ্ধতিÑ

প্রথমে দুপা জোড়া করে দাঁড়ান।

এবার নিঃশ্বাস নিতে নিতে দুহাত শরীরের দুপাশ দিয়ে মাথার ওপর তুলে রাখুন।

এবার নিঃশ্বাস নিতে নিতে কোমর থেকে ওপরের অংশ যতটুকু সম্ভব পেছন দিকে বাঁকা করে ফেলুন। এ অবস্থায় শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক রেখে কমপক্ষে ১০ সেকেন্ড স্থির থাকুন।

এরপর নিঃশ্বাস ছাড়তে ছাড়তে আগের অবস্থার মতো সোজা হয়ে যান। নিঃশ্বাস ছাড়তে ছাড়তে দুহাত শরীরের দুপাশে আনুন।

এবার শবাসনে বিশ্রাম নিন। এটি হলো একবার। এভাবে পরপর তিনবার করুন।

হাঁটতে হবে নিয়মিত

শীতে সবচেয়ে উপকারী ব্যায়াম হচ্ছে হাঁটা। সপ্তাহে ছয় দিন ৪৫ মিনিট হাঁটুন। ফিট থাকতে হাঁটার পাশাপাশি অ্যারোবিকস, স্পিকিং, সাঁতার, সাইক্লিংও করতে পারেন।

পোশাক পরুন বুঝেশুনে

শীতে অনেকের অ্যালার্জির সমস্যা হয়। তাই কোন পোশাকটি পরছেন তা বুঝে নিন। অনেকেরই উলের পোশাকের অ্যালার্জি থাকে, তারা সোয়েটারের নিচে সুতির পাতলা পোশাক পরে নিন।

খাদ্যতালিকায় রাখুন শীতকালীন সবজি

খাদ্যতালিকায় যোগ করুন শীতকালীন শাকসবজি ও ফলমূল। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের পুষ্টি বিশেষজ্ঞ ডা. মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, শীতকালে বিভিন্ন ধরনের সবজি পাওয়া যায়। শীতের সবজিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম, বিটাক্যারোটিন, আয়রন ও ভিটামিন, যা শরীর সুস্থ রাখে। রোগ প্রতিরোধ করে। শুধু শরীরের অভ্যন্তরীণ নয়, ত্বক উজ্জ্বল ও সতেজ রাখতেও সাহায্য করে শীতের সবজি। সঙ্গে ওজন কমাতেও সাহায্য করে। তাই এখন প্রতিদিন খাদ্যতালিকায় রাখুন শীতকালীন শাকসবজি ও ফলমূল।

পানি খান বেশি বেশি

শীতে পিপাসা কম লাগে তাই আমরা অনেকেই পানি এড়িয়ে চলি। অথচ শীতের শুষ্ক আবহাওয়া শরীর থেকে পানি শুষে নেয়। তাই ভেতর থেকে শরীরকে আর্দ্র রাখতে এ সময় পানি খুব জরুরি। শীতে প্রচুর পরিমাণে পানি ও তরল খাবার খান।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে