• অারও

তারার স্টাইল

‘ঘড়ি আমার ভীষণ প্রিয়’

-ঐশী ফাতিমা-তুয যোহরা

  কেয়া আমান

১০ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নতুন প্রজন্মের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী ঐশী। পুরো নাম ঐশী ফাতিমা-তুয যোহরা। ভালোবাসেন ঘুরে বেড়াতে। নিজেই বাইক চালিয়ে ছুটে যান দূরে আরও দূরে। পছন্দ করেন নতুন নতুন বাদ্যযন্ত্র বাজাতে, সংগ্রহ করতে। বাউল গানের মতো ভালোবাসেন বাঙালিয়ানা খাবারও। প্রিয় খাবারের তালিকায় রয়েছে ভাত-ভর্তা। আজকের তারার স্টাইলে ঐশী জানিয়েছেন তার পছন্দ-অপছন্দের নানা কথা। সাক্ষাৎকার নিয়েছেনÑ কেয়া আমান

পোশাকে নিজস্ব ধারা

গানের মতো ফ্যাশন সচেতনতায় ইতোমধ্যে সুনাম কুড়িয়েছেন ঐশী। ঐশীর প্রিয় পোশাকের তালিকায় রয়েছে ওয়েস্টার্ন পোশাক। তাই বলে গতানুগতিক ওয়েস্টার্ন পোশাক তার পছন্দ নয়। ঐশী জানান, ‘ওয়েস্টার্ন পোশাকই আমার পছন্দ। তবে আমি সাধারণত গতানুগতিক পোশাক পরি না। ফ্যাশন হাউস থেকে কেনা পোশাকটি আমি ভিন্ন কোনো পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে পরার চেষ্টা করি। অর্থাৎ নিজস্ব স্টাইলে পোশাকটিকে আরও মোডিফাই কিংবা একটু ভিন্ন আঙ্গিকে উপস্থাপন করার চেষ্টা করি। এতে কেনা পোশাকেও ভিন্নতা আসে। আবার সৃষ্টির আনন্দও উপভোগ করা যায়। আমার পোশাক নির্বাচনে আমার মায়ের ভূমিকাও রয়েছে।’ ঐশীর প্রিয় রঙের তালিকায় রয়েছে গোলাপি এবং কালো বলে জানান ঐশী।

প্রিয় অনুষঙ্গ প্রিয় সংগ্রহ

ঐশীর প্রিয় অনুষঙ্গের তালিকাটা বেশ দীর্ঘ। কী রয়েছে সেই তালিকায় জানতে চাইলে ঐশী বলেন, ঘড়ি আমার ভীষণ প্রিয়। ভালো লাগে হাতে রিস্টব্যান্ড পরতেও। কিছু কিছু ওয়েস্টার্ন পোশাকের সঙ্গে ভারী জাঙ্ক জুয়েলারি বেশ মানিয়ে যায়। ভিন্ন লুক আনে। ওয়েস্টার্ন পোশাকের সঙ্গে এ ধরনের জাঙ্ক জুয়েলারি আমার পরা হয়। নিয়মিত পারভিউম ব্যবহারের অভ্যাস রয়েছে। শুধু অনুষঙ্গ ব্যবহার নয়, বিভিন্ন ধরনের অনুষঙ্গ সংগ্রহের নেশাও রয়েছে আমার। যেমন বিভিন্ন ধরনের বাদ্যযন্ত্র। নতুন নতুন বাদ্যযন্ত্র বাজাতে এবং সংগ্রহ করতেও ভীষণ পছন্দ করি। ভালো লাগে বাইক চালাতেও। মাঝে মধ্যেই বাইক চালিয়ে বিভিন্ন জায়গায় চলে যাই।

ফুড লাভার

আমি খেতে খুব ভালোবাসি। বলতে পারেন ফুড লাভার। এটা ভবিষ্যতে মুটিয়ে যাওয়ার লক্ষণ। তবে এ ব্যাপারে আমি সচেতন থাকার চেষ্টা করি। ভালো লাগলেও ফিট থাকতে বেছে বেছে খাবার খাই। প্রিয় খাবারের তালিকায় রয়েছে ভাত, ডাল, খিচুড়ি, আলু ভর্তাসহ বিভিন্ন রকম দেশি খাবার। বিশেষ করে ভাত। ভাত ছাড়া আমার একদিনও চলে না। এ ছাড়া ফ্রাইড চিকেন আর নুডলসও খুব প্রিয়। আর সবার মতো আমিও মায়ের হাতের খাবারের ভক্ত। আম্মুর হাতের সব রান্নাই আমার প্রিয়।

অবসরে ঐশী

ঘুরে বেড়াতে ভালোবাসেন ঐশী। যদিও পড়াশোনা, গান সবকিছু মিলিয়ে ঘুরে বেড়ানোর সময় সেভাবে হয়ে ওঠে না। তাই ঐশী যখন দূরে কোথাও পারফর্ম করতে যান সেখানেই পরিবারের সবাইকে সঙ্গে নিয়ে যান। গানের ফাঁকে পরিবারের সঙ্গে ঘোরার আনন্দে মেতে থাকেন। এভাবেই ঘুরে বেড়ানোর সুযোগটা তৈরি করে নেন ঐশী। পাহাড় কিংবা সাগর নয়, ঐশীর পছন্দ খোলা মাঠ আর সবুজ গ্রাম। যে কোনো গ্রামে ঘুরতে যেতে বেশি পছন্দ করেন ঐশী। পরিবারের সঙ্গে মাঝে মধ্যেই গ্রামে বেড়াতে যান। আঁকতে এবং আবৃত্তি করতেও ভীষণ ভালোবাসেন বলে জানান ঐশী। তিনি বলেন, ‘আমি আঁকতে এবং আবৃত্তি করতেও ভালোবাসি। যদিও সময় খুব কম পাই। তবে সময়-সুযোগ মিললেই রঙ, তুলি হাতে নিয়ে ছবি আঁকতে বসে যাই আর কবিতা আবৃত্তি করি।’

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে