চুলের আগা ফাটা

  অনলাইন ডেস্ক

১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দিঘল কালো লম্বা চুল কার না পছন্দ। তবে এমন চুল পেতে অনেক ক্ষেত্রেই বাধা হয়ে দাঁড়ায় চুলের আগা ফাটা সমস্যা। চুলের আগা ফাটা সমস্যা সমাধানে পরামর্শ দিয়েছেন হার্বস আয়ুর্বেদিক স্কিন কেয়ার ক্লিনিকের রূপ বিশেষজ্ঞ শাহীনা আফরিন মৌসুমী। লিখেছেন রওনক বিথী

রূপ বিশেষজ্ঞ মৌসুমী মনে করেন, চুলের আগা একবার ফেটে গেলে, তা স্বাভাবিক রূপে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয় না। তাই চুলের যে অংশটুকু ফেটে গেছে, ওই অংশটুকু কেটে ফেলতে হয়। তারপর নিতে হয় প্রতিরোধের ব্যবস্থা। চুলের আগা ফাটার সবচেয়ে কার্যকর সমাধান হলো তেল। মাথার ত্বকে খুব ভালোমতো তেল মালিশ করতে হবে। প্রতিদিন শ্যাম্পু করা বাদ দিতে হবে। শ্যাম্পুর রাসায়নিক উপাদানও চুলের ক্ষতির কারণ। তাই সপ্তাহে দুই থেকে তিনবারের বেশি শ্যাম্পু করবেন না।

হট টাওয়েল ট্রিটমেন্ট

চুলের আগা ফাটা রোধ করার পাশাপাশি চুলের কোমলতা ধরে রাখতেও সাহায্য করে হট টাওয়েল ট্রিটমেন্ট। এটি করতে প্রথমে চুলে ভালো করে তেল লাগান। এরপর গরম পানিতে তোয়ালে ভিজিয়ে পুরো মাথায় জড়িয়ে রাখুন ১০ মিনিট। এভাবে ৩-৪ বার করুন। এরপর চুল শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন।

তেল ব্যবহার

চুলের আগা ফাটা সমস্যায় তেল খুব উপকারী। তেল চুলে পুষ্টির জোগান দেয়। এ ক্ষেত্রে আমরা সবাই সাধারণত নারিকেল তেল ব্যবহার করি। তবে জলপাই, বাদাম, তিলের তেলও উপকারী।

আগা ছাঁটা

চুল ছোট হয়ে যাবে বলে অনেকেই চুল ছাঁটতে চান না। কিন্তু জানেন কী, নিয়মিত চুল ছাঁটলে চুল দ্রুত বাড়ে। চুলের আগা ফাটা রোধ করারও অন্যতম পদ্ধতি হলো নিয়মিত আগা ছাঁটা। চুলের আগা ছাঁটার নির্দিষ্ট নিয়ম আছে। তা দক্ষ হাতেই করতে হবে। এ ধরনের হেয়ার কাটকে ‘স্পিøটেন্ট কাট’ বলে। এ হেয়ার কাটে চুল ছোট হবে না, বরং চুলের পুরনো উজ্জ্বলতা ফিরে আসবে।

চায়ের লিকার

চুলের আগা ফাটা প্রতিরোধ করতে ঠা-া চায়ের লিকারের জুড়ি নেই। একটি পাত্রে চায়ের লিকার নিয়ে চুলের আগা ডুবিয়ে রাখুন দশ মিনিটি। এরপর চুল ধুয়ে ফেলুন।

লেবুর রস

সৌন্দর্য চর্চায় লেবুর রসের ব্যবহার নানাভাবে হয়। চুলে যতেœও তা-ই। চুলের আগা ফাটা রোধ করতে ব্যবহার করুন লেবুর রস। লেবুর রসের সঙ্গে সমপরিমাণ পানি মেশান। এবার শুধু চুলের আগায় ভালো করে লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

খাবারদাবার

প্রচুর প্রোটিনযুক্ত খাবার খান। খাদ্যে ভিটামিন-বি কমপ্লেক্স, ভিটামিন ‘সি’ ও ‘ই’ যেন অবশ্যই থাকে।

ঘরোয়া প্যাক

একটি ডিমের কুসুম, তিন টেবিল চামচ অলিভ অয়েল ও এক টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে চুলে লাগিয়ে নিন।

সমপরিমাণ ক্যাস্টর অয়েল, অলিভ অয়েল ও সরিষার তেল ভালো করে মিশিয়ে নিন। খেয়াল রাখুন তিনটি তেল যেন একসঙ্গে মিশে যায়। মিশ্রণটি চুলের গোড়ায় লাগিয়ে ৫ মিনিট মাসাজ করুন। এভাবে সপ্তাহে ২-৩ বার ব্যবহারে চুলের আগা ফাটা সমস্যা সমাধান হবে।

যা করা উচিত নয়

অনেকেই প্রতিদিন হেয়ার ড্রায়ার দিয়ে চুল শুকান। এতে চুল ধীরে ধীরে আর্দ্রতা হারায় এবং লাল হয়ে আগা ফেটে যায়। তাই হিট প্রটেক্টর ছাড়া হেয়ার ড্রায়ার ও ফ্ল্যাট আয়রন ব্যবহার করা উচিত নয়।

গোসলের পর অনেকের চুল ঝাড়ার অভ্যাস আছে। এতেও চুলের আগা ফাটে।

গরম পানি চুলে দেওয়া উচিত নয়। এতে চুলের তন্তুগুলো আস্তে আস্তে আর্দ্রতা হারিয়ে চুল ফাটা শুরু হয়।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে