• অারও

মাটির তৈজসপত্রের খোঁজে

  তাপসী রহমান

০৪ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ০৪ এপ্রিল ২০১৮, ১৫:২০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বৈশাখ মানেই উৎসব আর আনন্দ। সর্বজনীন বাঙালির প্রাণের উৎসবের আয়োজনের প্রস্তুতিটাও নিতে হয় একটু আগেভাগে। ১৪ এপ্রিল পহেলা বৈশাখ হলেও এপ্রিলের শুরুতেই উৎসবের আবেশ সবখানে। বৈশাখের প্রথম দিনটিতে বাইরে ঘোরাঘুরি হলেও খাওয়া-দাওয়া ও দিনের একটা বিশেষ অংশজুড়ে ঘরোয়া আডডা তো হয়ই। বাংলা সালের শেষ দিন অর্থাৎ চৈএসংক্রান্তিতে পাতে থাকে বিশেষ পদের খাবার। আর সে খাবার পরিবেশনেও থাকে বাঙালিয়ানার ছোঁয়া। বৈশাখের দিনেও ঘরের সাজ পরিবেশনায় থাকে একই রেশ। ডাইনিং টেবিল কিংবা মেঝেতে মাদুর বিছিয়ে আহার, সেই সঙ্গে মাটির সামগ্রীতে আপ্যায়ন। বৈশাখ মানেই ঘরে ঘরে এমন দৃশ্য। বৈশাখী গরমে ঘরে এলেন অতিথি আর মাটির গ্লাসে করে লেবুর শরবত কিংবা ঘোল সঙ্গে মাটির প্লেটে খৈ দিলেন তাকে, পরিবেশনার এই ভিন্নতায় অতিথির খাবার আনন্দ যেমন বেড়ে যাবে তেমনি আপনার শৈল্পিক রুচি প্রকাশ ঘটবে। বৈশাখে আপনার ঘরের পরিবেশকে একটু ভিন্নভাবে উপস্থাপন করতে চাইলে সংগ্রহ করতে পারেন নানারকম দেশীয় উপকরণ। ঘরের প্রবেশদ্বারে ঝুলিয়ে দিতে পারেন শোলার ফুল বা কোনো শিল্পকর্ম। এক কোণে রাখতে পারেন মাটির পটারি। আজকাল বাজারে টেরাকোটার নানরকম ওয়াল হ্যাংগিং পাওয়া যায়। এসব ঘরের সৌন্দর্য যেমন বাড়ায় তেমনি শৈল্পিক ভালো লাগায় মনটা ভরিয়ে দেয়। চাকরিজীবী শায়লা শারমিন প্রতিদিন অফিসে পানি পানের জন্য ব্যবহার করেন মাটির গ্লাস। তিনি বলেন, মাটির গ্লাসে পানি অনেক ঠা-া থাকে আর খেতেও অনেক ভালো লাগে। আমি বাসায় মাটির কলসে পানি রাখি। এতে পানি বিশুদ্ধ ও ঠা-া থাকে। অতিথি এলে মাঝে মাঝে মাটির তৈজসপত্রে খাবার পরিবেশন করি। পরিবেশনার এই ভিন্নতায় অনেকেই চমকে যান। তবে সবাই এটাকে ভালোভাবে নেন এবং বেশ প্রশংসা করেন। শুধু বৈশাখ নয়, শায়লা শারমিনের মতো সারা বছর মাটির তৈজসপত্র ব্যবহার করা যায়। আজকাল প্রায় সব জায়গায় গড়ে উঠছে মাটির তৈরি সামগ্রী বিক্রির দোকান। এসব সামগ্রী একটু ভারী হয়। যেহেতু সারাবছর ব্যবহার হয় না তাই ভালো মানেরটা কেনাই উচিত।

দামটা কেমন

মাটির তৈজসপত্র মানভেদে বিভিন্ন দামের হয়ে থাকে। প্লেট পাবেন ৯০ থেকে ১৩০ টাকায়। গ্লাস ৩০ থেকে ৫০ টাকা, কাপ ২০ থেকে ৪০ টাকা, পিরিচ ২৫ থেকে ৩০ টাকা। হাফপ্লেট পাবেন ৬০ টাকায়, বিভিন্ন সাইজের বাটি মিলবে ৫৫ থেকে ১৫০ টাকায়। তরকারি পরিবেশনের জন্য হাঁড়ি স্টাইলের ঢাকনা দেওয়া নানারকম ছোট পাতিল পাবেন ১৪০ থেকে ২২০ টাকায়। ছোট-বড় বিভিন্ন সাইজের মাটির বোল পাবেন ১৫০ থেকে ১৮০ টাকায়।

কোথায় পাবেন

আড়ংয়ে রয়েছে মাটির সামগ্রীর কর্নার। এখানে তৈজসপত্রের পাশাপাশি মাটির তৈরি অনেক হোম ডেকর আইটেম পাবেন। কে-ক্রাফটে মিলবে এসব আইটেম। এ ছাড়া বিভিন্ন ফ্যাশন হাউস গিফট আইটেমের দোকান, আইডিয়া ক্রাফট, ভার্টিক্যাল, কলাবাগানের ফুটপাত, শিশু একাডেমির মার্কেট, মিরপুর দুইয়ের ফুটপাত, মিরপুর একের পালপাড়া ঘাটসহ ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় মিলবে মাটির তৈরি সামগ্রী।

লক্ষ্য করুন

মাটির সামগ্রী কেনার আগে দেখে নিতে হবে তা ভালোভাবে পুড়িয়ে নেওয়া হয়েছে কিনা। ভালোভাবে পোড়া তৈজসপত্র একটু গাঢ় রঙের হয়।

মাটির বাসনকোসন স্ক্রাবার দিয়ে ঘষে ধোয়া উচিত নয়। এতে বাসন নষ্ট হবে।

ধোয়ার পর ভালোভাবে রোদে শুকিয়ে তার পর উঠিয়ে রাখতে হবে। রোদ না থাকলে খোলা হাওয়ায় আধা ঘণ্টা রাখুন।

বেশি সুগন্ধিযুক্ত পাউডার দিয়ে না ধোয়াই ভালো।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে