সাজে একাল সেকাল

  রওনক বিথী

১১ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আসছে পহেলা বৈশাখ। সাজ ছাড়া কি আর বৈশাখী উৎসব জমে! বৈশাখের সাজ মানেই বাঙালিয়ানা সাজ। তাই বলে বৈশাখের সাজ কিন্তু নির্দিষ্ট গ-িতে আটকে নেই। প্রতিবছর বৈশাখী সাজ নিয়ে চলে নিরীক্ষা। কখনো যোগ হয় নতুনত্ব, তো কখনো পুরনো স্টাইল ফিরে আসে নতুন করে। রূপ বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে বৈশাখী সাজের একাল-সেকাল নিয়ে কথা বলে বিস্তারিত লিখেছেনÑ রওনক বিথী

বৈশাখ মানেই লাল-সাদা শাড়ি। তার সঙ্গে মিলিয়ে লাল-সাদার সাজ। সেই ’৮০-র দশকে যখন টাঙ্গাইল শাড়ি কুটির প্রথম পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে ঢাকাতে লাল পাড়ের সাদা সুতি শাড়ি আনে, তখন থেকে বৈশাখী সাজেও জায়গা করে নেয় লাল-সাদা। তবে তখন বৈশাখের সাজ বলতে ছিল কেবল লাল টিপ, লাল লিপস্টিক আর মোটা কাজল দেওয়া বলে জানান রূপ বিশেষজ্ঞ রাহিমা সুলতানা রীতা। তিনি বলেন, ‘সে সময় বৈশাখের নতুন শাড়ির সঙ্গে ’৭০-র দশকের জনপ্রিয় হেয়ারস্টাইল সামনে ফোলানো চুলে চূড় খোঁপা কিংবা লম্বা বেণি করতেও দেখা যেত। ’৯০-র দশক থেকেই পহেলা বৈশাখ উদযাপনের চল বাড়তে শুরু করে। এ সময়টায় লাল টিপ আর টানা কাজলের সঙ্গে চোখের সাজে যোগ হয় গাঢ় রঙ। মেকআপের বেইজে ব্যবহার হতো ভারী বেইজ। চূড় খোঁপা থেকে হাতখোঁপা আর আঁটসাঁট বেণি কিছুটা আলগা বাঁধনে রূপ নেয় এ দশকে। আর তাতে গুঁজে দিতে দেখা যেত ফুল। চুলে ফুলের ব্যবহার এখনকার মতো সে সময়ও বেশ জনপ্রিয় ছিল।’

একালের সাজ নিয়ে রীতা বলেন, ‘লাল-সাদার বৃত্তি থেকে বেরিয়ে বৈশাখের পোশাকের মতো সাজেও এখন অনেক রঙের সমাহার। বৈশাখের সাজে এখনো টিপ, টেনে কাজল দেওয়া কিংবা ফুলের আবেদন একই আছে। তবে মেকআপের বেইজটা এখন ন্যাচারাল চলছে।’ লাল টিপের পাশাপাশি এখন ব্যবহার হচ্ছে বিভিন্ন রঙের টিপ। টকটকে লাল লিপস্টিকের সঙ্গে যোগ হয়েছে কমলা, কোরাল, পিচ, কফির মতো বিভিন্ন ন্যুড এবং ডার্ক রঙ। চোখে কাজলের সঙ্গে ব্যবহার হচ্ছে আইলাইনার, ন্যুড মাশকারা, গ্লাসি শ্যাডো প্রভৃতি।

বৈশাখী সাজ বাঙালির পরিচয় বহন করে বলে মনে করেন রূপবিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভীন। তিনি বলেন, ‘মূলত একবিংশ শতাব্দীর শুরু থেকে পহেলা বৈশাখটা ব্যাপকভাবে পালন করতে দেখা যায়। বৈশাখী পোশাকের সঙ্গে সঙ্গে পরিবর্তন আসে সাজেও। ট্র্যাডিশনাল সাজের মধ্যে থেকেও যোগ হতে শুরু করে নতুনত্ব। হাতভর্তি রেশমি চুড়ি, বর্ষবরণে মুখে-হাতে আল্পনা আঁকার রেওয়াজটাও শুরু হয় এই সময়টাতে।’

আসছে বৈশাখে সাজের ট্রেন্ড নিয়ে আফরোজা পারভীন বলেন, বৈশাখী সাজ মানেই ট্র্যাডিশনাল সাজ। তবে এখন ট্র্যাডিশনাল সাজের সঙ্গে মর্ডান লুকটাও আনা হচ্ছে। টানা কাজল, আইলাইনার না দিয়ে বৈশাখী সাজে আনতে পারেন মর্ডান টাচ। আবার টানা কাজল, আইলাইনার দিয়েও ট্র্যাডিশনাল ও মর্ডান লুক মিলিয়ে সাজতে পারেন বৈশাখে। বৈশাখের গরমে সারাদিনের জন্য স্নিগ্ধ একটি সাজ বেছে নিন। তার আগে অবশ্যই সানব্লক লাগাতে হবে। দিনের সাজে ময়েশ্চারাইজার আর ফেসপাউডারই যথেষ্ট। কিংবা প্রাইমার লাগিয়ে তার ওপর ফেসপাউডার দিয়েও বেইজ করতে পারেন। এতে মেকআপও ভারী হবে না। আবার সাজে ন্যাচারাল লুক আসবে। চোখে বাদামি, কপার, মভ বা ব্রোঞ্জ শেডের আইশ্যাডো লাগিয়ে মোটা করে কাজল লাগিয়ে নিন। রোদের তাপে আইলাইনার, মাশকারা গলে যেতে পারে, তাই এগুলো এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। সবশেষে লিপস্টিক লাগিয়ে নিন। পিচ, পিংক ধরনের রঙগুলো দিনের বেলায় ভালো লাগবে।

রাতের সাজে গর্জিয়াস লুক ভালো লাগবে। এ ক্ষেত্রে প্রথমে প্রাইমার দিন। এর পর কনসিলার দিয়ে মুখের দাগ ঢেকে লিকুইড ফাউন্ডেশন ও ফেসপাউডার দিন। এবার কনট্যুরিং করুন। গরমে মেকআপ সামগ্রী ম্যাট ব্যবহার করতে চেষ্টা করুন। এতে মেকআপ দীর্ঘস্থায়ী হবে। এখন সাজে শাইনি, সিমারি হাইলাইটারের আবেদন রয়েছে। টি-জোন, কপাল, চিবুক শিমার দিয়ে হাইলাইট করতে পারেন। চিকবোনে ব্লাশন দিন। ক্রিম বেইজ ব্লাশন এ সময়ের জন্য আদর্শ। চোখে লাইনারের বদলে গ্লসিশ্যাডোর সঙ্গে কয়েক কোট মাশকারা ট্রেন্ডি লুক আনবে। এর পর লাগিয়ে নিন যে কোনো ডার্ক আইশ্যাডো। সবশেষে লাল কিংবা গাঢ় যে কোনো রঙের লিপস্টিক লাগিয়ে নিন।

বিউটি এক্সপার্ট ফারনাজ আলম বলেন, আগে সামনে একটু ফুলিয়ে পেছনে লম্বা একটা বেণি, পরিপাটি খোঁপার চল থাকলেও এখন লুজ বান জনপ্রিয়। তা খোঁপা হোক কিংবা বেণি। শুধু এলোমেলো করে পেঁচিয়েও এখন চুল বাঁধা হচ্ছে। ফ্রন্টসেটিংয়ে এখন টুইস্ট এবং চিকন বেণি বেশ জনপ্রিয়। এই বৈশাখে সাইড লুজ খোঁপা, এলো খোঁপা, এলো বেণি, খেজুর বেণি, রোলার, ব্লোডাই বিভিন্নভাবে হেয়ার সেটিং করে তাতে গুঁজে দিতে পারেন ফুল। ক্যারি করতে পারলে খোলা চুল হাওয়া উড়িয়েও উদযাপন করতে পারেন বৈশাখে। এক সময় বৈশাখী সাজে গোলাপ, বেলি, রজনীগন্ধার মালা পরার চল থাকলেও এখন তার সঙ্গে যোগ হয়েছে জারবারা, জিনিয়া, অর্কিড, গ্ল্যাডিওলাসসহ দেশি-বিদেশি বিভিন্ন ফুল। চাইলে নিতে পারেন ফুলের ব্যান্ড কিংবা ফুলের গহনাও। বৈশাখী সাজের ট্রেন্ডে এখন জনপ্রিয় লোকজ এবং আদিবাসী উপকরণের গহনাও।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে