• অারও

বৈশাখে শার্ট কিংবা পাঞ্জাবি

  আমান উল্লাহ

১১ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পাঞ্জাবি ছাড়া ছেলেদের বৈশাখ যেন পূর্ণতা পায় না। তাই বলে সারা দিন পাঞ্জাবিতে থাকতেও অনেকে যেন ঠিক স্বস্তি পান না। এ ক্ষেত্রে অনেকের পছন্দ শার্ট। ভাবছেন পাঞ্জাবি না শার্ট কোনটি পরবেন? ভাবনা কিসের! চাইলে বেলা বুঝে পরে নিতে পারেন দুটোই। বৈশাখ বলে কথা! বাজার ঘুরে বৈশাখের পাঞ্জাবি ও শার্টের খোঁজ জানাচ্ছেনÑ

আমান উল্লাহ

পাঞ্জাবি তো বৈশাখেরই। তাই বলে বৈশাখের সারা দিন একই পোশাকে না থেকে সময় বুঝে পাল্টে নিতে পারেন। সকালে এক, তো বিকালে আরেক রঙে রাঙাতে পারেন নতুন বছরের প্রথম দিনটি। ফ্যাশন হাউস ইজির পরিচালক ও ফ্যাশন ডিজাইনার তৌহিদ চৌধুরী মনে করেন, ‘বর্ষবরণের দিন ভোরে সুরের মূর্ছনা ও মঙ্গল শোভাযাত্রায় ছেলেদের পাঞ্জাবিতেই ভালো দেখাবে। এ বেলার জন্য বৈশাখী মোটিফের সুতি পাঞ্জাবি মানানসই। সঙ্গে থাকতে পারে ধুতি বা পাজামা। দুপুরের রোদে কিংবা বিকালে বন্ধুদের আড্ডায় পরা যেতে পারে হাফ হাতার ক্যাজুয়াল শার্ট। রাতের কোনো দাওয়াতে একটু অভিজাত লুকেই ভালো দেখাবে। সেখানে সিল্ক, হাফ সিল্ক বা আরামদায়ক যে কোনো কাপড়ের পাঞ্জাবি পরতে পারেন। পাঞ্জাবির সঙ্গে আজকাল কোটি, প্রিন্স কোট পরার চল বেড়েছে। একরঙা পাঞ্জাবির ওপরে একটা প্রিন্স কোট চাপিয়ে নিলেই রাতের সাজ পরিপূর্ণ।’

‘এ বছর পাঞ্জাবি, শার্টে পাখি, ফুল, পাতা, লেখাসহ বিভিন্ন লোকজ মোটিফের স্ক্রিনপ্রিন্টের সঙ্গে গুরুত্ব পাবে ডিজিটাল প্রিন্টও। ব্যবহার হয়েছে অসাধারণ কিছু জিওমেট্রিক ফর্মও। এমনও আছে পাঞ্জাবির আর শার্টের ওপরের অংশে সামান্য কিছু প্রিন্ট ব্যবহার হচ্ছে, আর নিচের অংশ পুরোটা একরঙ রাখা হচ্ছে’Ñ জানান তৌহিদ চৌধুরী।

পাঞ্জাবি হোক বা শার্ট, বৈশাখের নকশায় বরাবরই গুরুত্ব পায় লোকজ মেটিফ। এ বছর সন্দেশের ছাঁচের নকশা, আল্পনা, কলকি, শীতলপাটি, পটচিত্র, শখের হাঁড়ি, প্রকৃতিসহ বিভিন্ন লোকজ মোটিফ উঠে এসেছে বৈশাখী নকশার অনুপ্রেরণায়। অনেক পাঞ্জাবিতে গামছার ব্যবহারও চোখে পড়ল। ‘লোকজ মোটিফের পাশাপাশি সাঁওতালদের দেয়ালচিত্র, ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর জীবনযাপনের বিভিন্ন চিত্রও উঠে এসেছে পাঞ্জাবি এবং শার্টের মোটিফে’Ñ জানালেন ফ্যাশন হাউস লা-রিভের জ্যেষ্ঠ ডিজাইনার বিপ্লব বিপ্রদাস। তিনি আরও বলেন, ‘অনেকেই বৈশাখের এক বেলা শার্ট পরতে ভালোবাসেন। শার্টের ক্ষেত্রে গরমে হাফ হাতার শার্ট আরামদায়ক হবে। এখন ফ্লাওয়ার মোটিফের চাহিদা খুব বেশি। ফেব্রিকের ক্ষেত্রে গরমে সুতি ও কুল ডাইং শার্ট আরামদায়ক।’

বৈশাখের রঙ মানেই লাল-সাদা। সেই সঙ্গে লাল-সাদা উজ্জ্বলতা আর শান্তির প্রতীকও। তবে লাল-সাদার বৃত্ত থেকে বেরিয়ে বৈশাখের পাঞ্জাবি, শার্ট এখন নীল-কমলা-সবুজ-হলদু নানা রঙে বর্ণিল।

পাঞ্জাবিগুলোর প্যাটার্নেও এবার আছে ভিন্নতা বলে জানান ফ্যাশন বিশেষজ্ঞ এমদাদ হক। তিনি বলেন, ‘ফ্যাশন ট্রেন্ডে এবার ক্যাজুয়াল স্লিম ফিট পাঞ্জাবির জনপ্রিয়তা বেশি। এক ছাঁটের লং পাঞ্জাবি বেশি থাকছে, পাশাপাশি সেমি লং পাঞ্জাবিও থাকছে। ভারী নকশার পাঞ্জাবিতে কলার, বাটন প্লেটে, চেস্ট এরিয়ায় ভিন্ন ডিজাইন ও এমব্র্রয়ডারি করা হয়েছে।’

বরাবরের মতো পাবেন এররঙা কুর্তা টাইপের কিছু পাঞ্জাবি। কুর্তাগুলো সাধারণত সুতি কাপড়ের আর লম্বায় একটু শর্ট হয়ে থাকে। পরতে আরামদায়ক। কুর্তাগুলোর ডিজাইন মূলত কলার, রঙ আর বোতামের ওপর বেশি হেরফের হয়।

‘তপ্ত রোদ আর গরমের বিষয়টি মাথায় রেখে পাঞ্জাবি ও শার্টে আরামদায়ক ফেব্রিক ব্যবহার করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে গুরুত্ব পেয়েছে কটন, সফট কটন, ওয়াশ ডাই, ভিসকস ফেব্রিক। সঙ্গে মসলিন, সিল্ক, হাফ সিল্কের ভারী নকশার

পাঞ্জাবিও রাখা হয়েছে’Ñ বলেন নিপুণের ম্যানেজিং ডিরেক্টর আশরাফুর রহমান ফারুক।

ফ্যাশন হাউস লা-রিভ বৈশাখে দুটি থিম নিয়ে কাজ করেছে। মঙ্গল শোভাযাত্রা ও ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর জীবন দ্বারা প্রভাবিত নকশা। রঙ বাংলাদেশের শার্ট ও পাঞ্জাবির মোটিফে ব্যবহার হয়েছে শীতলপাটি, সাঁওতালদের দেয়ালচিত্র ও মঙ্গল শোভাযাত্রা। পাশাপশি অনুষঙ্গ হিসেবে রাখা হয়েছে ফ্লোরাল মোটিফ। আড়ংয়ের পাঞ্জাবিতে সুতি, ক্যাসমিলন, সিল্ক, মসলিন কাপড়ে উজ্জ্বল রঙে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে ফুল ও জ্যামিতিক মোটিফ। বিবিয়ানার বৈশাখী পোশাকে বাংলাদেশের লোকজ মোটিফের পাশাপাশি তুলে ধরা হয়েছে বিভিন্ন দেশের লোকজ মোটিফ। ফ্যাশন হাউস সাদা-কালোয় বৈশাখী মোটিফ হিসেবে ব্যবহার করেছে শখের হাঁড়ি। কে-ক্রাফট বৈশাখী পোশাকের থিমে ব্যবহার করেছে নকশিকাঁথা, পটচিত্র, মধুবনী, জ্যামিতিক ও ফুলেল মোটিফ। দেশাল তাদের বৈশাখী নকশায় প্রাধান্য দিয়েছে জীবজন্তু ও পাখির চিত্র।

বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে হালকা নকশার পাঞ্জাবি পাওয়া যাবে ৮০০ থেকে ২ হাজার টাকায়, ভারী কাজের পাঞ্জাবি ২ হাজার থেকে ৬ হাজার, শার্ট ৫০০ থেকে ২ হাজার ৫০০, প্রিন্স কোট ৬০০ থেকে ২ হাজার, কোটি ৫০০ থেকে ১ হাজার ৫০০, কুর্তা পাঞ্জাবি ৫০০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা। আজিজ সুপার মার্কেট ছাড়াও বিভিন্ন শপিংমল থেকে পছন্দের পাঞ্জাবি কিংবা শার্ট কিনতে পারেন। এ ছাড়া নকশায় ভিন্নতা চাইলে যেতে পারেন লা-রিভ, ইজি, ক্যাটস আই, লুবনান, প্লাস পয়েন্ট, বিবিয়ানা, অঞ্জন’স, রঙ বাংলাদেশ, বিশ্বরঙ, দেশাল, কে-ক্রাফটসহ বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে