ঐতিহ্য আর সংস্কৃতির ছোঁয়ায় বৈশাখী পোশাক

  তাপসী রহমান

১১ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দুয়ারে কড়া নাড়ছে বৈশাখ। উৎসবকে বরণ করে নিতে তৈরি পুরো দেশ। উৎসবমুখর পরিবেশে নিজেকে রাঙাতে প্রস্তুত সবাই। রঙ, নকশা আর স্টাইলিংয়ে যেন একটু ভিন্নতা থাকে। উজ্জ্বল রঙ আর নকশায় ঐতিহ্যের ছোঁয়া সর্বোপরি বাঙালিয়ানার মিশেল। এমনটাই তো চাই বৈশাখী পোশাকে। ক্রেতার অবারিত চাহিদার পরিতৃপ্তির জন্য যে মানুষগুলোর শ্রম, মেধা আর সৃষ্টিশীলতায় তৈরি হচ্ছে বৈশাখী পোশাকের সম্ভার, চলুন তবে তাদের বয়ানে জেনে নিই বৈশাখী আয়োজনের আদ্যোপান্ত। লিখেছেনÑ তাপসী রহমান

এবারের থিম হিসেবে আমরা বেছে নিয়েছি লক্ষ্মীসরার নকশা

আজহারুল আজাদ

উদ্যোক্তা সাদা কালো

সাদা কালো সারা বছর দুটি রঙ নিয়ে কাজ করে। বৈশাখেও তাই। এ দুটি রঙের মাঝে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে বৈশাখী উৎসব আমেজ। এবারের থিম হিসেবে আমরা বেছে নিয়েছি লক্ষ্মী সরার নকশা। স্ক্রিনপ্রিন্ট, ব্লক, এমব্রয়ডারি, কারচুপির কাজ করে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে নকশাগুলো। বিভিন্ন রকম সুতি কাপড়ে পোশাকগুলো তৈরি করা হয়েছে। এ ছাড়া কিছু হাফ সিল্ক শাড়ি আমরা তৈরি করেছি। পরিবারের ছোট-বড় সব সদস্যের পোশাক মিলবে সাদা কালোয়। যেহেতু একদিনের একটি উৎসব, তাই বাজেটটা একটু কম থাকে বলে সাদা কালোর পোশাকের মূল্যতালিকাও সাধারণের হাতের নাগালে।

এবার প্যাটার্ন নিয়ে বেশি কাজ করা হয়েছে

বিপ্লব সাহা, ডিজাইনার বিশ^রঙ

বিশ^রঙের পোশাকগুলোর নকশায় ফুটে উঠেছে ঐতিহাসিক পানাম নগরের স্থাপত্যশিল্প। সেই সময়কার বিল্ডিংয়ের নকশা, গ্রিল, পিলার, ভিমের নকশা হুবহু একই রকম রেখে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে শাড়ির অঁাঁচল পাড় কিংবা পাঞ্জাবির নকশায়। আমরা চেয়েছি যাতে আমাদের ঐতিহ্য না হারায়। রঙের ক্ষেত্রে কালারফুল ও হালকা দুটো ধারা নিয়েই কাজ করেছি। তবে এবার প্যাটার্ন নিয়ে বেশি কাজ করা হয়েছে। ফ্যামেলি পোশাক করা হয়েছে। মা-মেয়ে, বাবা-ছেলে বা পুরো পরিবারের পোশাকও মিলবে বিশ^ রঙে। বয়স্ক মানেই রঙ হারিয়ে যাওয়া নয়। তাই এই বৈশাখে পরিবারের বয়স্ক সদস্যদের জন্য তৈরি করেছি উজ্জ্বল রঙের পোশাক। সুতি, সুইস ভয়েল, এন্ডি কটনে তৈরি হয়েছে বৈশাখী পোশাক। বৈশাখ সংগ্রহে শাড়ি পাঞ্জাবি মিলবে ১ হাজার ৫০০, কুর্তি ১ হাজার ২০০ টাকায়। আমরা চেয়েছি আমাদের ঐতিহ্য, সংস্কৃতি নতুন প্রজন্মের কাছে পোশাকের ক্যানভাসের মাধ্যমে তুলে ধরতে।

সাদা-লালের জমিনে এবার আমরা ফুটিয়ে তুলেছি শীতলপাটির নানা রকম মোটিফ

শাহীন আহমেদ, ডিজাইনার অঞ্জন’স

বৈশাখী উৎসবে আমাদের সংস্কৃতির প্রতিফলন ঘটে। তাই পোশাকের নকশায় তার প্রভাব পড়ে। সাদা-লালের জমিনে এবার আমরা ফুটিয়ে তুলেছি শীতলপাটির নানা রকম মোটিফ, মোঙ্গলশোভা ও টিপের বিভিন্ন রকম নকশা। এসবের সঙ্গে আরও করেছি ফ্লোরাল ও জিওমেট্রিক নানা ফর্ম। ভ্যাুল অ্যাড করেছি স্ক্রিনপ্রিন্ট, ব্লক, হ্যান্ড ও মেশিন এমব্রয়ডারির কাজ। সুতি, লিলেন, ভিসকচ, এন্ডি কটন ও তাঁত কাপড়ে পোশাকগুলো তৈরি করা হয়েছে। অঞ্জন’স প্রতিটি উৎসবে ফ্যামেলি পোশাক তৈরি করে। এবারও তাই করা হয়েছে। কাপলদের জন্য শাড়ির সঙ্গে মিলিয়ে করেছি পাঞ্জাবি। ছোট শিশুদের পোশাকেও মিল রেখেছি। বাবা-ছেলে, মা-মেয়ে এমনকি পরিবারের বিভিন্ন বয়সের সদস্যের জন্যও একই রকম পোশাক পাওয়া যাবে। কয়েকটি ডিজাইনে মিলবে এই ফ্যামিলি পোশাক।

বিবিআনা এবার কাজ করেছে আন্তর্জাতিক লোকজ নানা মোটিফ নিয়ে

লিপি খন্দকার, ডিজাইনার বিবিআনা

বৈশাখের কাজগুলো মূলত বিভিন্ন থিম নিয়ে হয়। বিবিআনা এবার কাজ করেছে আন্তর্জাতিক লোকজ নানা মোটিফ নিয়ে। অর্থাৎ বিভিন্ন দেশের লোকজ মোটিফের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ফুল, লতাপাতা, পাখি দিয়ে ডিজাইন করেছি। এসব নকশা ফুটিয়ে তুলতে ব্যবহার করা হয়েছে স্ক্রিনপ্রিন্ট, ব্লক। সঙ্গে টারসেলের ব্যবহারও করা হয়েছে। বৈশাখ মানেই গাঢ় রঙ। তাই পোশাকে প্রাধান্য পেয়েছে লাল, নীল, কমলা, সবুজ, অফ হোয়াইট রঙ। বৈশাখ যেহেতু গরমের মাঝে হয় আর সারা দিন বাইরে ঘোরার একটা ব্যাপার থাকে, তাই পোশাকটা যেন হয় একটু স্বস্তিদায়ক। সে কারণে বিবিআনার এবারের পোশাক তৈরি করা হয়েছে পুরোটাই সুতিতে। মানুষের বৈশাখী পোশাকের বাজেটটা খুব বেশি থাকে না, তাই সাধারণের ক্রয়ক্ষমতার মাঝেই রাখা হয়েছে বিবিআনার পোশাকের মূল্যতালিকা।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে