যতœ নিন ত্বকের

  কেয়া আমান

১৬ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সুস্থ আর সুন্দর ত্বক কে না চায়। আর সুন্দর ত্বকের জন্য দরকার হয় আলাদা যতেœর। প্রত্যেক মানুষের ত্বকের ধরন আলাদা আর ত্বকের ভিন্নতার কারণে যতœও নিতে হয় একটু ভিন্ন উপায়ে। বাইরে থেকে ফিরে প্রথমেই ত্বকে এক টুকরো বরফ ঘষুন। সব ধরনের ত্বকের যতেœই ভেষজ উপাদান উপকারী।

গীতি’স বিউটি পার্লারের স্বত্বাধিকারী ও রূপবিশেষজ্ঞ গীতিবিল্লাহ বলেন, ‘ত্বকের যতেœ বহু প্রাচীনকাল থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে নানারকম ভেষজ উপাদান। ভেষজ উপাদানে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। ভেষজ উপাদান ব্যবহারে ত্বক সহজেই সুরক্ষিত, সতেজ ও সুন্দর রাখা যায়। যাদের ত্বক সংবেদনশীল, তাদের ত্বকের জন্য রাসায়নকি দ্রব্যাদি দিয়ে তৈরি প্রসাধন দিয়ে রূপচর্চা করাটা ক্ষতিকর। এ ধরনের ত্বকের জন্য ভেষজ উপায়ে রূপচর্চা করা অনেক বেশি উপকারী।’ ত্বকের ধরন অনুযায়ী কিছু ভেষজ উপাদান ব্যবহারের নিয়মও জানালেন তিনি।

ঘৃতকুমারী বা অ্যালোভেরা

অ্যালোভেরা সব ধরনের ত্বকের জন্য দারুণ উপকারী একটি ভেষজ উপাদান। এটি ত্বকের রোদের পোড়া ভাব দূর করা, ত্বক মসৃণ রাখা, দাগ দূর করা, ত্বকের ব্রণের সমস্যা দূর করাসহ ত্বকের যতেœ নানাভাবে উপকারে আসে। অ্যালোভেরা জেলের সঙ্গে মধু মিশিয়ে ত্বকে ব্যবহার করলে ত্বকের কালো দাগ দূর হয় এবং ত্বক উজ্জ্বল হয়। অনেক সময় ত্বকে ক্ষত দেখা দেয়। এ ধরনের ক্ষতে নির্ভয়ে ব্যবহার করতে পারে অ্যালোভেরা। যাদের ত্বক অত্যন্ত সংবেদনশীল তারা কেমিক্যাল ব্যবহার না করে ‘নাইট ক্রিম’ হিসেবে ব্যবহার করতে পারে অ্যালোভেরা জেল। তবে অ্যালোভেরার রস ত্বকে লাগিয়ে রোদে যাওয়া উচিত নয়। এতে ত্বকের ক্ষতি হতে পারে।

আমলকী

আমলকী ত্বকের রঙ উজ্জ্বল করতে দারুণ কাজে দেয়। এ ক্ষেত্রে প্রতিদিন সকালে আমলকীর রসের সঙ্গে মধু মিশিয়ে পান করতে হবে। এ ছাড়া আমলকীর রস মুখে সরাসরি ব্যবহার করলেও ত্বক উজ্জ্বল হয় এবং ত্বকের স্বাস্থ্য ভালো থাকে। আমলকীর রসের সঙ্গে পুঁদিনাপাতার রস মিশিয়ে রাতে ব্রণের ওপর এবং পুরো মুখে লাগিয়ে রাখলে ব্রণ, ব্রণের কালচে দাগ এবং মুখের কালো ছোপ ছোপ দাগ দূর হয়। তৈলাক্ত ত্বকের বাড়তি যতেœও ব্যবহার করতে পারেন আমলকী।

থানকুনি পাতা

থানকুনি পাতার ভর্তা অনেকেই পছন্দ করেন। ত্বকের যতেœও এই ভেষজ উপাদানটি নানা গুণসম্পন্ন। থানকুনি পাতায় উপস্থিত অ্যামাইনো অ্যাসিড, বিটা ক্যারোটিন এবং ফাইটোকেমিক্যাল ত্বকের অন্দরে পুষ্টির ঘাটতি দূর করার পাশাপাশি বলিরেখা কমাতে বিশেষ ভূমিকা রাখে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়।

তিল

নানা গুণ রয়েছে তিলের ছোট্ট দানায়। বিশেষজ্ঞদের মতে, এর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপাদান বয়সের বিভিন্ন ক্ষতিকর প্রভাব দূরে রাখে। ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে এবং ক্ষয়পূরণ করতে কার্যকর তিল। সাহায্য করে ত্বক আর্দ্র এবং উষ্ণ রাখতেও। এর প্রদাহরোধী উপাদান ‘প্যাথোজেন’ ও অন্যান্য প্রদাহ সৃষ্টিকারী উপাদান অপসারণের মাধ্যমে ত্বকের লালচেভাব ও অন্যান্য সমস্যা সারাতে সাহায্য করে। এ ক্ষেত্রে ১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েলের সঙ্গে ২ টেবিল চামচ তিলের গুঁড়া মিশিয়ে নিন। মুখ ধুয়েমুছে আধা ভেজা অবস্থায় মিশ্রণটি ত্বকে লাগিয়ে রাখুন। কিছুক্ষণ পর মুখ ধুয়ে ফেলুন।

কাঠবাদাম

সপ্তাহে এক থেকে দুইদিন কাঠবাদামের সঙ্গে দুধ ও মধু মিশিয়ে ত্বকে লাগালে ত্বক উজ্জ্বল এবং কোমল হয়। কাঠবাদামের পাতা বেটে ত্বকের অ্যালার্জি আক্রান্ত অংশে লাগালে অ্যালার্জি দূর হয়।

দারুচিনি

ব্ল্যাক হেডস দূর করতে দারুচিনির জুড়ি নেই। এ জন্য সপ্তাহে দু‘দিন সমপরিমাণ দারুচিনি গুঁড়া এবং লেবুর রস মিশিয়ে পেস্ট করে সারারাত মুখে লাগিয়ে রেখে সকালে ধুয়ে ফেলুন।

চন্দন

১ টেবিল চামচ চালের গুঁড়া, ১ টেবিল চামচ গুঁড়োদুধ, ১ টেবিল চামচ বেসনের সঙ্গে প্রয়োজনমতো গোলাপজল মিশিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করে ত্বকে ব্যবহার করলে ত্বক পরিষ্কার হয় এবং ত্বকের মরা কোষ দূর হয়।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে