‘ঈদের আনন্দটা ভাগাভাগি করে নিতে চাই’

মিম মানতাশা, লাক্স সুপারস্টার-২০১৮

  রওনক বিথী

১৩ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

লাক্স সুপারস্টার ২০১৮ বিজয়ী মিম মানতাশা। প্রিয় পোশাক শাড়ি। যদিও ঈদে সালোয়ার-কামিজই বেশি কেনা হয়। ঈদের দিন মায়ের হাতের খিচুড়ি, মাংস তার প্রিয় খাবার। ভালোবাসেন ঘুরে বেড়াতে। আজকের তারার স্টাইলে মিম জানিয়েছেন তার পছন্দ, অপছন্দ এবং ঈদ আয়োজনের নানা কথা। সাক্ষাৎকার নিয়েছেনÑ রওনক বিথী

বন্ধুদের সঙ্গে ঈদ আনন্দ

দেশি, পশ্চিমা সব ধরনের পোশাকই পরেন তিনি। প্রিয় পোশাকের তালিকায় রয়েছে শাড়ি। মিম বলেন, ‘জমকালো অনুষ্ঠানে শাড়ি পরতে ভালো লাগে। ভার্সিটিতে যাতায়াত কিংবা ঘোরাফেরার জন্য প্যান্ট, ফতুয়ার মতো ক্যাজুয়াল পোশাকে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। এর বাইরে সালোয়ার-কামিজটাই বেশি পরা হয়।’ লাক্সতারকা হওয়া আর ঈদ দুটো আনন্দ খুব কাছাকাছি সময়ে হওয়ায় এ বছর মিমের ঈদটা একটু বেশিই আনন্দের। কীভাবে উদযাপন করবেন এবার ঈদ? উত্তরে মিম বলেন, ‘প্রতিবারের মতো এবারও ঢাকাতেই ঈদ করব। ঈদের দিন নয়, পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আমার ঈদের ঘোরাঘুরি শুরু হয় ঈদের পরদিন থেকে। এবারের ঈদটা অনেক বেশি আনন্দের আমার জন্য। আমার বন্ধুদের ইচ্ছা, এ বছর ঈদে আমি যেন তাদের সঙ্গে ঘুরতে বের হই। তাই ঈদের দিন নয়তো পরদিন বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে যাওয়ার ইচ্ছা আছে। বোন এবং বন্ধুদের অনুপ্রেরণাতেই আমি লাক্স প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছি। পরিবারের সদস্যদের মতো বন্ধুদেরও সব সময় পাশে পেয়েছি। তাই এবার ঈদের আনন্দটা বন্ধুদের সঙ্গে ভাগাভাগি করে নিতে চাই।’

কিনতে বাকি ওয়েস্টার্ন

প্রতি ঈদে বড় দুই বোন, বাবা-মা ছাড়াও আত্মীয়স্বজনের কাছ থেকে অনেক উপহার পান মিম। ঈদের কেনাকাটা প্রসঙ্গে মিম বলেন, ‘ঈদের কেনাকাটা করছি, এখনো শেষ হয়নি। আমি ঈদে অনেক উপহার পাই। এবারও পেয়েছি। নিজে তিনটি সালোয়ার-কামিজ কিনেছি। আর কয়েকটি ওয়েস্টার্ন পোশাক কেনার ইচ্ছা আছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি একই ব্র্যান্ড বা শপিংমল থেকে সব সময় কেনাকাটা করি না। আমার কাছে মনে হয় এতে প্রডাক্টে একঘেয়েমি চলে আসে। তাই আমি ঘুরে ঘুরে বিভিন্ন জায়গা থেকে কেনাকাটা করি।’

গর্জিয়াস সাজে ঈদের সন্ধ্যা

ঈদের দিন সকালে হালকা রঙের সালোয়ার-কামিজ পরার ইচ্ছা রয়েছে মিমের। রাতে পরবেন উজ্জ্বল রঙের ভারী নকশার সালোয়ার-কামিজ। পোশাক মিলিয়ে ঈদের সাজ প্রসঙ্গে মিম বলেন, ‘ঈদের দিন সকালে হালকা সাজে থাকব। তবে সন্ধ্যায় জমকালো সালোয়ার-কামিজের সঙ্গে মিলিয়ে একটু গর্জিয়াস সাজব।’ মিমের প্রিয় অনুষঙ্গের তালিকায় রয়েছে পায়েল ও ব্রেসলেট।

পরিবেশনের দায়িত্বে থাকবেন

‘আমি রান্না তেমন পারি না। ঈদের দিন বড় আপি, মেজ আপি, আম্মু অনেকরকম রান্না করেন। আমার দায়িত্ব হচ্ছে সেগুলো অতিথিদের পরিবেশন করা। ঈদে প্রতি বছর আম্মু খিচুড়ি, মাংস রান্না করেন। ঈদের দিন এটি আমার খুব প্রিয় একটি খাবার। আম্মুর হাতের খিচুড়ি, মাংসই আমাকে ঈদের আনন্দের অনুভূতি দেয়’Ñ বলেন মিম।

প্রিয় প্রাঙ্গণ ভার্সিটি

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলার ছাত্রী মিমের প্রিয় ঘোরার জায়গা তার ভার্সিটি। জানান, ‘আমি দেশ-বিদেশে সব জায়গাতেই ঘুরতে পছন্দ করি। তবে আমার প্রিয় ঘোরার জায়গা হচ্ছে আমার ভার্সিটির ক্যাম্পাস। যেখানে একদিন না গেলে মনে হয় অনেক দিন যাইনি। ফ্রান্সে ঘোরার খুব ইচ্ছা আছে। এখনো যাওয়ার সুযোগ হয়নি। হয়তো ভবিষ্যতে যাব। অবসর পেলে প্রচুর গান শুনি আর মুভি দেখি।’

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে