খোঁজখবর

  অনলাইন ডেস্ক

০৪ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ডিমান্ডে মেয়েদের কুর্তি

তারুণ্যের প্রথম পছন্দের ফ্যাশন হাউস ডিমান্ড এবারে নতুন মাত্রা যোগ করেছে। ডিমান্ডের প্রতিটি শোরুমে শোভা পাচ্ছে মেয়েদের ফ্যাশনেবল কুর্তি ও কামিজ। আবহাওয়ার কথা মাথায় রেখেই আরামদায়ক এ কুর্তিগুলো পাওয়া যাচ্ছে। যোগাযোগ : এলিফ্যান্ট রোড (মাল্টিপ্ল্যান সংলগ্ন মনসুর ভবন ও জহির এসি মার্কেট), মিরপুর-২, ঢাকা।

সিসিমপুর এবং লাইট অব হোপের শিশুদের পরিবেশ উৎসব

বাংলাদেশে শিশুদের সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রোগ্রাম সিসিমপুর এবং লাইট অব হোপের যৌথ আয়োজনে গত ২৯ জুন, ২০১৮ শুক্রবার বাংলাদেশ শিশু একাডেমিতে হয়ে গেল ‘শিশুদের জন্য পরিবেশ উৎসব-২০১৮’। এখানে শিশুরা হাতে-কলমে পরিবেশবান্ধব বিভিন্ন কাজ শেখা থেকে শুরু করে স্কুল ব্যাংকিং সম্পর্কেও ধারণা পেয়েছে। সিসিমপুর থেকে তাদের জন্য এসেছিল টুকটুকি, হালুম, শিকু আর ইকরিরা। শিশুরা সরাসরি তাদের সঙ্গে অনেক মজার সময় কাটিয়েছে। আর সবশেষে ছিল কুইজ প্রতিযোগিতা এবং পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সিসেমি ওয়ার্কশপের গ্লোবাল প্রডাকশন ডিরেক্টর ভেরোনিকা উলফ। উপস্থিত ছিলেন সিসেমি ওয়ার্কশপ বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ শাহ আলম এবং লাইট অব হোপের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ওয়ালিউল্লাহ ভূঁইয়া। আরও উপস্থিত ছিলেন মার্কেন্টাইল ব্যাংকের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর মো. জাকির হোসেন, পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের (পবা) চেয়ারম্যান আবু নাসের খান এবং পবার সম্পাদক এমএ ওয়াহেদ। লাইট অব হোপের ‘কিডস টাইম’ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে শিশুদের প্লাস্টিকের বোতল থেকে টাকা জমানোর ব্যাংক এবং ফুলের টব বানানো শিখিয়েছে। আরও ছিল বাংলাদেশ ব্যাংক এবং মার্কেন্টাইল ব্যাংক থেকে প্রতিনিধিরা। তারা শিশুদের স্কুল ব্যাংকিং সম্পর্কে ধারণা দিয়েছেন। টুকটুকি, হালুম, শিকু আর ইকরির সঙ্গে শিশুরা সরাসরি তাদের অনেক ভালো সময় কাটিয়েছে। কুইজ প্রতিযোগিতা এবং পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান দিয়ে শেষ হয় সারাদিনের অনুষ্ঠান।

গ্রামীণ ইউনিক্লোর বর্ষপূর্তিতে অফার

২০১০ সালের সেপ্টেম্বরে গ্রামীণ হেলথ কেয়ার ট্রাস্টের সঙ্গে যৌথভাবে গ্রামীণ ইউনিক্লো প্রতিষ্ঠা হয়। ইউনিক্লোর স্বত্বাধিকারী প্রতিষ্ঠান ফাস্ট রিটেইলিংয়ের উন্নত পোশাক উৎপাদন ব্যবস্থাপনা ব্যবহার করে উন্নত পোশাকের মাধ্যমে বাংলাদেশের দারিদ্র্র্য, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যব্যবস্থা উন্নয়নের জন্য কাজ করাই মূল উদ্দেশ্য। প্রতিষ্ঠার পর থেকে গ্রামীণ লেডিদের মাধ্যমে প্রত্যন্ত অঞ্চলে এক ডলারে উন্নত মানের পোশাক সরবরাহ করা হতো। গ্রামাঞ্চলের পাশাপাশি সামাজিক ব্যবসায় প্রসারের লক্ষ্যে ২০১২ সালের সালের জুন থেকে ২০১৩ সালের এপ্রিল পর্যন্ত ঢাকা শহরে ট্রেডিশনাল ব্যবসায় চ্যানেলে বিভিন্ন ভ্রাম্যমাণ পরিবহনের মাধ্যমে পোশাক বিক্রি শুরু হয়। ২০১৩ সালের জুলাইলে গ্রামীণ ইউনিক্লোর সামাজিক ব্যবসায় এর প্রয়াস আরও ছড়িয়ে দিতে ঢাকায় প্রথম দুটি আউটলেট উদ্বোধন করা হয়। সেই থেকে গ্রামীণ ইউনিক্লো স্টোরের যাত্রা শুরু। বর্তমানে গ্রামীণ ইউনিক্লোর ১৫টি আউটলেট রয়েছে। এ ছাড়া বাংলাদেশের যে কোনো প্রান্তে, যে কোনো সময়ে গ্রামীণ ইউনিক্লোর পোশাক ক্রেতাদের দ¦ারপ্রান্তে পৌঁছে দিতে ২০১৮ সালের মার্চ থেকে চালু হয়েছে অনলাইন বিক্রয় কার্যক্রম।

সৌন্দর্যচর্চায় বায়োজিন

সময় বদলেছে। জীবনযাত্রার আধুনিকায়নের ধারায় পাল্টেছে সৌন্দর্যচর্চার ধরনও। বাংলাদেশে বায়োজিন কসমেসিউটিক্যালস সৌন্দর্যচর্চায় সেই আধুনিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে অন্যতম। ভেজাল ও ক্ষতিকর সব কসমেটিকের ভিড়ে সঠিক ত্বক ও সৌন্দর্যচর্চায় কাজ করছে বায়োজিন। তাদের বিভিন্ন ধরনের প্রসাধনী, ডিভাইস ও সেবার সঙ্গে সঙ্গে রয়েছে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ। অভিজ্ঞ ডাক্তারের মাধ্যমে তিনটি ক্লিনিকে এ ত্বকের ধরন ও প্রয়োজন অনুযায়ী সেবা প্রদান করা হয়। অত্যাধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে বায়োজিন ত্বকের যতেœ আধুনিক চিকিৎসার মাইফলক তৈরি করেছে। বায়োজিনের সেবাগুলোর মধ্যে রয়েছে ব্রন ও ব্রনের দাগ, পিগমেনটেসন, সানবার্ন, হোয়াইটেনিং, ব্রাইটেনিং, অ্যন্টি এজিং, ফেস টাইটেনিং, ফেস সেপিং, ফেস সিøমিং, বডি সিøমিং, বডি শেপিং, আন ওয়ান্টেড হেয়ার রিমুভাল চুল পড়া ও নতুন চুল গজানোর সমাধান, তিল রিমুভাল ইত্যাদি। এ ছাড়াও রয়েছে হোম কেয়ার ডিভাইস, যার মাধ্যমে ঘরে বসেই ত্বক ও চুলের যতœ নিতে পারবেন। যোগাযোগ : উত্তরা, সোনারগাঁও জনপথ, সেক্টর-৯, ঢাকা; ধানম-ি-২৭ (নতুন-১৬), ঢাকা; মিরপুর-১১, ঢাকা।

ধানম-িতে আমের মেলা

মিরপুর ৬০ ফিট রোডের পাশাপাশি ধানম-ির ক্যাপিটাল মার্কেটের পাশেও চলছে কামাল এগ্রো ফ্রুটসের আমের মেলা। মেলার পাশাপাশি ফোনে অর্ডার দিলে ঘরে আম পৌঁছে দেবে কামাল এগ্রো ফ্রুটস। মেলায় পর্যায়ক্রমে পাওয়া যাবে সাতক্ষীরা, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, কুষ্টিয়া, রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রংপুর, নওগাঁসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের নানা প্রজাতির আম। জাত অনুযায়ী পর্যায়ক্রমে মেলায় আসবে গোবিন্দভোগ, শরিকাশ, গোপালভোগ, কলমি, হিমসাগর, রনীপছন্দ, ল্যাংড়া, আম্রপালি, বার্মিজ, নাগফজলি, মিশ্রিভোগ, মল্লিকা, লক্ষণভোগ/লকনা, কালিভোগ, সূর্যপুরী, কহিতুর, ভোগলা, হাঁড়িভাঙা, সুরমা ফজলি ও ফজলি আম। অর্ডার করা যাবে ০১৯৭৩০২৬৫২৫ ও ০১৯৭০৯৯৪২৪০ নম্বরে। ভধপবনড়ড়শ.পড়স/কধসধষগধহমড়

আর্টিজ্যানে নতুন কালেকশন

ফ্যাশন ব্র্যান্ড আর্টিজ্যান এনেছে এ সময়ের আবহাওয়া উপযোগী নতুন নকশার শার্ট, পাঞ্জাবি, পোলো শার্ট ও টি-শার্ট। আরামদায়ক কাপড়ে তৈরি এসব পোশাকের রঙে ও নকশায় রয়েছে বৈচিত্র্যের আমেজ। খুচরার পাশাপাশি পাইকারি কেনা যাবে। যোগাযোগ : আজিজ সুপার মার্কেট শাহবাগ; শম্পা মার্কেট, রিং রোড, আদাবর; নিউ মার্কেট, শেরপুর; এমএম টাওয়ার, সওদাগর পট্টি, ফেনী।

হজসামগ্রীতে মূল্যছাড়

বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে অবস্থিত আল-ইসলাম ব্রাদার্স এনেছে প্রয়োজনীয় হজসামগ্রী। এসব সামগ্রী ২০ শতাংশ ছাড়ে কেনা যাবে। এ ছাড়া এক সেট হজসামগ্রী কিনলে পাওয়া যাবে বিশেষ গিফট বক্স। এখানে ইন্দোনেশিয়া ও দেশীয় এহরাম বাঁধার টাওয়াল সেট, এহরাম বাঁধার কাপড় সেট, এহরাম বাঁধার বেল্ট, মিনাব্যাগ, পাসপোর্ট ব্যাগ, জুতা রাখার ব্যাগ, পাথর রাখার ব্যাগ, কাঁধের ব্যাগ, মহিলা এহরাম সেট, পাঞ্জাবি, লুঙ্গি, গামছা, টাওয়াল, জুতা, টুপি, তসবি, আতর, বোরকা, জায়নামাজসহ হজের প্রয়োজনীয় সামগ্রী পাইকারি ও খুচরা কেনা যাবে। ঠিকানা : দোকান নম্বর-১ (নিচতলা), ১ নম্বর উত্তর গেট, বায়তুল মোকাররম মার্কেট, ঢাকা।

বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরে ‘ঐতিহ্যবাহী জামদানি নকশা’ শীর্ষক গ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠানের আয়োজন

বাংলাদেশের সমৃদ্ধ ঐতিহ্যের উপাদান জামদানি বয়নশিল্প। অথচ কালের বিবর্তনে আদি জামদানি নকশাগুলো বিলুপ্তির পথে। এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য মার্কিন দূতাবাসের সহায়তায় বাংলাদেশ জাতীয় কারুশিল্প পরিষদের দীর্ঘ গবেষণায় সম্ভব হয়েছে আদি নকশা সংগ্রহ। এই নকশার একটি সংকলন গ্রন্থ বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর ও জাতীয় কারুশিল্প পরিষদের যৌথ উদ্যোগে সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে। ‘ঐতিহ্যবাহী জামদানি নকশা’ শীর্ষক এই অনন্য নকশা গ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠান ১ জুলাই রবিবার বিকাল ৪টায় কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে হয়েছে। প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শিয়া স্টিফেন ব্লুম বার্নিকাট। গ্রন্থ পর্যালোচনা করেন বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক ফয়জুল লতিফ চৌধুরী। অনুষ্ঠানে আলোচক ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় কারুশিল্প পরিষদের সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম, গ্রন্থের প্রধান গবেষক চন্দ্র শেখর সাহা এবং বাংলাদেশ জাতীয় কারুশিল্প পরিষদের প্রকল্প সমন্বয়ক শাহিদ হোসেন শামীম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক মো. আবদুল মান্নান ইলিয়াস।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে