ব র্ষা য় দূ র হো ক খু শ কি

  আঞ্জুমান আরা

১১ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বর্ষাকালে বৃষ্টিস্নাত হয়ে প্রকৃতি হয়ে ওঠে উজ্জ্বল ও সতেজ। আমাদের চুলের ক্ষেত্রে কিন্তু হয় উল্টো। গরমের ঘাম, আর্দ্রতা আর স্যাঁতসেঁতে আবহাওয়া একসঙ্গে হয়ে এ সময় চুলে দেখা দেয় তৈলাক্ত খুশকি, যা থেকে চুলে ছড়িয়ে পড়ে নানারকম সমস্যা। ভাবছেন সমাধান কী? বর্ষায় চুলে খুশকির সমস্যা ও সমাধান নিয়ে পরামর্শ দিয়েছেন জারা’স বিউটি লাউঞ্জের স্বত্বাধিকারী ও বিউটি এক্সপার্ট ফারহানা রুমি।

বর্ষায় হুটহাট বৃষ্টি নামে আবার ভ্যাপসা গরমও পড়ে। মাথার ত্বক কখনো ঘামে ভিজে থাকে, তো কখনো বৃষ্টির পানিতে। এর সঙ্গে ধুলোময়লা আটকে স্কাল্পে ফাঙ্গাস সংক্রমিত হয়। যা থেকে চুলে খুশকির সমস্যা দেখা দেয় বলে জানান রূপ বিশেষজ্ঞ ফারহানা রুমি। তিনি বলেন, খুশকি মূলত একটা ফাঙ্গাল ইনফেকশন। বর্ষায় খুশকি থেকে চুল ঝরা, চুল নির্জীব হয়ে পড়াসহ বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয়। চুল তেল বা ঘামে ভেজা অবস্থায় থাকলে সমস্যাটি আরও বাড়ে। খুশকি হলে দ্রুত তার প্রতিকার করা দরকার। না হলে খুশকি বৃদ্ধিসহ চুলের বিভিন্ন ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকবে। এ ছাড়া ফাঙ্গাল ইনফেকশন চুল থেকে শরীরের ত্বকেও ছড়িয়ে পড়তে পারে। তাই এ ব্যাপারে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।

খুশকি দূর করতে করণীয়

বর্ষায় স্যাঁতসেঁতে আবহাওয়ার কারণে মাথায় তৈলাক্ত খুশকি দেখা দেয়। এ সময় চুল খুশকিমুক্ত রাখতে প্রতিদিন শ্যাম্পু না করে একদিন পরপর শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। খুশকি দূর করতে অ্যান্টিড্যান্ড্রাফ শ্যাম্পু এবং উচ্চ প্রোটিনসমৃদ্ধ কন্ডিশনার ব্যবহার করুন।

খুশকি দূর করতে নারকেল তেলের সঙ্গে ক্যাস্টর অয়েল, ভিটামিন ‘ই’ ক্যাপসুল এবং লেবুর রস মিশিয়ে নিন। এবার মিশ্রণটি তুলার বলের সাহায্যে স্কাল্পে লাগিয়ে নিন। তারপর চিরুনি দিয়ে হালকা করে কিছুক্ষণ ঘষে ১০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে ফেলুন।

মাসে অন্তত দুবার তেল লাগাতে হবে। নারকেল তেলের সঙ্গে গোটা মেথি চুলায় জ্বাল দিয়ে ফুটিয়ে ছেঁকে একটি বোতলে ভরে রাখতে পারেন। চুলে এ তেল লাগানোর আগে হালকা গরম করে এক টেবিল চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিলে চুল খুশকিমুক্ত থাকবে।

বর্ষায় খুশকি দূর করতে এবং চুল পড়া রোধ করতে সপ্তাহে দুই দিন কলার প্যাক ব্যবহার করুন। এ জন্য দুটি পাকা কলা, পরিমাণ মতো টকদই ও কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল মিশিয়ে চুলে লাগিয়ে রাখুন। ১৫ মিনিট পর শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। এ ছাড়া সপ্তাহে একদিন আমলা, মেথি, শিকাকাই, মেহেদি ও একটি ডিম মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে পুরো চুলে লাগিয়ে রাখুন। ২০ মিনিট শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন।

বর্ষায় চুল সবসময় শুকনা রাখতে হবে। ভেজা চুল বেঁধে রাখলে চুলে ফাঙ্গাল ইনফেকশন হতে পারে এবং চুলের গোড়া নরম হয়ে চুল পড়া শুরু হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। শ্যাম্পু করার পর চুল তাড়াতাড়ি শুকিয়ে ফেলুন।

বৃষ্টির পানি মাথায় লাগলে অবশ্যই চুল ধুয়ে শুকিয়ে ফেলতে হবে। কারণ বৃষ্টির পানি বেশি সময় মাথায় থাকলে মাথার তালু ও চুলের গোড়ায় ফাঙ্গাল ইনফেকশন হতে পারে।

বৃষ্টি ভেজা চুলের জন্য গরম তেল মালিশ খুবই ভালো। এ ক্ষেত্রে মাথার তালুতে আঙুল দিয়ে ঘষে ম্যাসাজ করুন। তারপর গরম পানিতে তোয়ালে ভিজিয়ে মাথায় ভাপ নিন।

এই ঋতুতে খুশকির পাশাপাশি চুল শুষ্ক ও নির্জীব হয়ে ওঠে। চুলের শুষ্কতা দূর করতে ও উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে হেয়ার সিরাম ব্যবহার করুন।

প্রচুর পরিমাণে প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার, তাজা ফলমূল, শাকসবজি ও প্রচুর পরিমাণে পানি খেতে চেষ্টা করুন। বর্ষায় চুলের ধরন বুঝে নিয়মিত পার্লারে গিয়ে পরিচর্যা করুন, আর ঘরে নিয়মিত যতœ নিন।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে