তারার স্টাইল

‘দেশের বাইরে গেলে সেই দেশের ঐতিহ্যবাহী শাড়ি সংগ্রহ করি’

তানিয়া হোসাইন, অভিনেত্রী ও উপস্থাপক

  কেয়া আমান

১৮ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

 

জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও উপস্থাপক তানিয়া হোসাইন। ট্রেডিশনাল শাড়ি পরতে ভালোবাসেন। ভালোবাসেন ঘর সাজাতেও। প্রিয় খাবারের তালিকায় রয়েছে সি ফুড। ফিট থাকতে মিষ্টি জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলেন। আজকের তারার স্টাইলে জানালেন তার পছন্দ-অপছন্দের নানা কথা। সাক্ষাৎকার নিয়েছেনÑ কেয়া আমান

প্রিয় পোশাক শাড়ি

তানিয়া হোসাইনের প্রিয় পোশাক শাড়ি। উৎসব হোক কিংবা স্টেজ প্রোগ্রাম, শাড়িতে তিনি সব সময়ই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। জানালেন ট্রেডিশনাল শাড়ির প্রতি তিনি ভীষণভাবে দুর্বল। তানিয়া বলেন, ‘ট্রেডিশনাল শাড়ি আমার পছন্দ, এটা বললে হয়তো কম বলা হবে। আমি আসলে ট্রেডিশনার শাড়ির প্রতি ভীষণভাবে দুর্বল। তাই শুধু পরার জন্য নয়, সংগ্রহে রাখার জন্যও আমি অনেক পুরনো ঐতিহ্যবাহী শাড়ি খুঁজে বের করি। জামদানি, কাতান, বেনারসিÑ সব ধরনের ট্রেডিশনাল শাড়ি ভালো লাগে। শুধু আমার দেশের নয়, আমি দেশের বাইরে গেলেও সেই দেশের ঐতিহ্যবাহী শাড়ি সংগ্রহ করি। প্রিয় এ পোশাকটি পরার ক্ষেত্রে সব সময় দিন ও রাতের পরিবেশের যে পার্থক্য তা মেনে চলি। দিনে হালকা রঙ আর রাতে লাল, কালো, মেরুন ধরনের ডার্ক রঙের শাড়ি পরি।’ তানিয়া হোসাইনের প্রিয় রঙের তালিকায় রয়েছে সাদা ও কালো।

এক মালাতেই সাজ

সাজতে ভালোবাসেন তানিয়া। তবে কাজল ছাড়া সাজের কথা ভাবতেই পারেন না। তিনি বলেন, ‘আমার সাজে কাজল থাকতেই হবে। দিনে হালকা বেইজ মেকআপ করি, রাতে গাঢ় বেইজ মেকআপের সঙ্গে আইশ্যাডো আর ডার্ক লিপস্টিক দিতে পছন্দ করি। গহনার মধ্যে মালা ভীষণ প্রিয়। কানের দুল খুব একটা পরা হয় না। তবে মালাটা থাকতেই হয়।’ ব্র্যান্ডের কসমেটিকসের প্রতি খুব বেশি দুর্বলতা না থাকলেও সানগ্লাস ও ঘড়ি সব সময় ব্র্যান্ডের পরতে চেষ্টা করেন বলে জানান তানিয়া। তিনি বলেন, ‘মানসম্মত হলে যে কোনো ব্র্যান্ডের কসমেটিকসই ব্যবহার করি। তবে সানগ্লাস সব সময় ব্র্যান্ডের পরি। কারণ নন-ব্র্যান্ডের সানগ্লাসে আল্ট্রাভায়োলেট প্রোটেকশনটা ঠিক থাকে না। আর চোখের ব্যাপারে আমি কোনো ঝুঁকি নিতে চাই না। বর্তমানে গুচি ও শ্যানেলের সানগ্লাস ব্যবহার করছি।’

সি ফুডের স্বাদ অতুলনীয়

‘আমি সব ধরনের খাবার খেতেই পছন্দ করি। তবে আমার কাছে সি ফুডের চেয়ে সুস্বাদু আর কোনো খাবারই নেই। দেশ-বিদেশে যেখানেই যাই, সেখানকার সি ফুড খেতে চেষ্টা করি। ফিট থাকতে আমি আলাদাভাবে তেমন কোনো কষ্ট করি না। আমি যেটা করি তা হচ্ছে, মিষ্টি জাতীয় খাবার যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলি। থিয়েটারে আমাদের প্রচুর দৌড়ঝাঁপ করে কাজ করতে হয়। আমার কাছে মনে হয় ওজন ঠিক রাখতে এটা ভালো কাজে দেয়। খেতে পছন্দ করলেও আমি একেবারেই রাঁধতে পারি না। সংসার তো শুরু করে দিয়েছে কিন্তু আমাদের সংসারে রান্নাটা এখনো শুরু হয়নি’Ñ বলেন তানিয়া।

ঘরটাও সেজে থাক

ঘর গোছাতে পছন্দ করেন তানিয়া। তার অবসরের অনেকটা সময় কেটে যায় ঘর গোছাতেই। তানিয়া বলেন, ‘আমি ঘর সাজাতে খুব পছন্দ করি। আমি চাই আমার ঘরটা সব সময় সেজে থাক। এ ছাড়া অবসরে বই পড়ি, গান শুনি। রবীন্দ্রসংগীত শুনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা পার করে দিতে পারি। আর ভালোবাসি ঘুরে বেড়াতে।’ দেশের বাইরে গেলে বিভিন্ন আইল্যান্ডে ঘুরতে পছন্দ করেন তানিয়া।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে