ত্রিপুরা সুন্দরী মন্দির

  চৌধুরী ভাস্কর হোম

১৮ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ছোট সীমান্তরাজ্য ভারতের ত্রিপুরা। উদয়পুর দক্ষিণ ত্রিপুরার অন্যতম প্রধান শহর। ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলা থেকে এর দূরত্ব ৫৫ কিলোমিটার। আর উদয়পুর শহর থেকে তিন কিলোমিটার দূরে ত্রিপুরা সুন্দরী মন্দিরটি অবস্থিত। মহারাজা ধন্যমাণিক্য ১৫০১ সালে এ মন্দিরটি প্রতিষ্ঠা করেন। মাতা ত্রিপুরেশ্বরীকে (মা কালী) এ মন্দিরে পূজা দেওয়া হয়। কথিত আছে, এখানে সতীর ডান পা পড়েছিল। কষ্টিপাথরের তৈরি এখানকার দেবীমূর্তি খুবই জাগ্রত। হিন্দুদের পবিত্র ৫১টি পীঠের একটি মনে করা হয় এ মন্দিরটিকে। মন্দিরের পাশে বিশাল কল্যাণ সাগর নামে একটি পুকুর রয়েছে। তবে প্রাচীন এ মন্দিরটিকে ত্রিপুরা সুন্দরী কিংবা ত্রিপুরেশ্বরী হিসেবেই বলে থাকেন অনেকে। আর এই মন্দিরে বাংলাদেশের পুণ্যার্থীদের পদচারণা থাকে প্রতি মুহূর্তে।

কথিত আছে, সতীদেহ কাঁধে নিয়ে মহাদেব যখন ত্রিলোকে তা-ব নৃত্য শুরু করেন, তখন দেবাবিদেবকে শান্ত করার জন্য সব দেবতার স্তবকের মাধ্যমে সতীদেহ ছেদ করা হয়। ওই অংশগুলো যে স্থানে পড়ে, সেসব স্থানকে কেন্দ্র করে এক একটি মহাতীর্থ গড়ে ওঠে। আর সতীর মনোবাঞ্ছা পূরণের জন্য শিবও বিভিন্ন নামে প্রতিটি তীর্থে বিভিন্ন রূপে আবির্ভাব হয়েছেন। ত্রিপুরায় তিনি (শিব) ভৈরত ত্রিপুরেশ নামে অবতীর্ণ আছেন। ত্রিপুরায় অন্যতম এ মন্দির দিন-রাত দেশ-বিদেশের পুণ্যার্থীদের পদচারণায় মুখর থাকে।

বিশাল কল্যাণ সাগর পুকুর : প্রাচীন এ পুকুরঘাটে মাছ ও বিশালাকৃতির কচ্ছপের দারুণ প্রেম। তাদের দেখতে ভক্তদের ভিড়। যতœ করে খাবার দিচ্ছে অনেকেই। কেউবা ভক্তি ভরে একটুখানি ছুঁয়ে কচ্ছপের পিঠে করছেন প্রণাম। নরম খোলের এই কচ্ছপ প্রজাতিটির নাম বোষ্টমী। মাতাবাড়ির এই পুকুর ছাড়া আর কোথাও নাকি এখন আর দেখা মেলে না বোষ্টমী কচ্ছপের। ত্রিপুরেশ্বরী মন্দিরের এই পুকুরেই কেবল টিকে আছে বোষ্টমী কচ্ছপের গুটিকয় প্রতিনিধি।

কীভাবে যাবেন : উদয়পুর ও ত্রিপুরা সুন্দরী মন্দির ভারতের ন্যাশনাল হাইওয়ে-৪৪-এ সংযুক্ত। রাজধানী আগরতলা থেকে সরাসরি বাসে উদয়পুর যাওয়া যায় কিংবা গাড়ি ভাড়া করে যাওয়া যায়।

ছোট সীমান্তরাজ্য ত্রিপুরা। ত্রিপুরা রাজ্যের ৬০ শতাংশ এলাকাজুড়ে রয়েছে সবুজ অরণ্য পাহাড়। বাকি অংশ পাহাড়ি সমতল। আগরতলা এক আপাদমস্তক বাঙালি শহর। এখানে আছে কুঞ্জবন প্রাসাদ, মহারাজা বীরবিক্রম কলেজ, স্টেক মিউজিয়াম, গেদু মিয়ার মসজিদ, জগন্নাথ মন্দির, আনন্দময়ী মায়ের আশ্রম আর বেনুবন বৌদ্ধবিহারে। দর্শনীয় এসব এলাকা ঘুরতে ঘুরতেই শেষ হয়ে যাবে কয়েকটি দিন।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে