তারার স্টাইল

‘বাঙালি কনেকে লাল বেনারসিতেই সবচেয়ে সুন্দর লাগে’

  লিপি খন্দকার ফ্যাশন ডিজাইনার

০২ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এখনকার বিয়ের সাজে কনেরা একেবারেই যে দেশি পোশাক পরেন না তা কিন্তু নয়, অনেকেই বিয়েতে ঐতিহ্যবাহী শাড়ি বিশেষ করে কাতান, বেনারসি, জামদানি পরছেন। অনেকের আবার বিদেশি শাড়ি, লেহেঙ্গার প্রতি ঝোঁক বেশি দেখা যায়। আমার কাছে মনে হয়, বিয়েতে বর-কনের একশ জনের মধ্যে পঞ্চাশ জন ভারতীয় জমকালো শাড়ি পরলেও বাকি পঞ্চাশ জন ঠিকই দেশি শাড়ি পরছেন। তবে আজ থেকে আট-দশ বছর আগে কিন্তু বিয়েতে ভারতীয় শাড়ির প্রতি ঝোঁক আরও বেশি ছিল। এখন তাতে অনেকটাই পরিবর্তন হয়েছে। আরও পরিবর্তন হওয়া প্রয়োজন। একবার ভেবে দেখুন তো একজন বাঙালি কনেকে লাল বেনারসির চেয়ে সুন্দর আর কোনো পোশাকে লাগতে পারে? মা-খালার ঐতিহ্য ধরে রেখে কনেকে দেশি শাড়ি পরলে যতটা সুন্দর লাগবে তা অন্য কোনো শাড়ি বা লেহেঙ্গায় কখনই লাগবে না। মাঝে বিয়ে-বৌভাতে লাল রঙের প্রতি আগ্রহ কমে গোলাপি, সবুজ, মেজেন্টা এমনকি কালো রঙও পরতে দেখা গেছে। তিন-চার বছর ধরে আবার লাল এবং লাল ঘেঁষা রঙগুলো ফিরে এসেছে। গত কয়েক বছর কনেদের লেহেঙ্গা পরার প্রতি আগ্রহ বেশ লক্ষ করা গেছে। বিশেষ করে বৌভাতে লেহেঙ্গা পরার চল বেশি ছিল। যেহেতু কয়েক বছর এটা খুব লক্ষ করা গেছে তাই আমার কাছে মনে হয় এ বছর বিয়েতে লেহেঙ্গা পরার চল কিছুটা কমে ট্রেডিশনাল শাড়ির প্রতি আগ্রহ বাড়বে। লাল, মেরুনের পাশাপাশি এবার মেজেন্টা, কমলা রঙও দেখা যাবে। একইভাবে বৌভাতেও অফহোয়াইটের চেয়ে এবার লালের প্রতি আগ্রহটা বাড়বে। যেহেতু বিয়ের দিন খুব বড়সড় দোপাট্টা দিয়ে মাথা ঢাকা থাকে তাই কনের ব্লাউজের গলায় খুব বৈচিত্র্য দেখা যায় না। হাতায় কিছুটা পরিবর্তন এসেছে। মেগি হাতা, ১০-১২ ইঞ্চি লম্বা হাতা দেখা যাবে। অনেকেই এখন বিয়েতে হিজাব পরেন সে ক্ষেত্রে ফুলহাতা, থ্রি কোয়ার্টার হাতা লক্ষ করা যায়। তবে হলুদের শাড়ির সঙ্গে ব্লাউজ এখন অনেক বেশি বৈচিত্র্যময়। হলুদে জামদানি, সিল্ক তাঁত, টাঙ্গাইল কাতান শাড়ির সঙ্গে কুঁচি হাতা, রুমাল ছাট, অনেক ফ্রিলের ব্যবহার লক্ষ করা যাবে। হলুদে হলুদ, সবুজ, কমলা রঙের কম্বিনেশন এ বছর বেশি দেখা যাবে। আর আমার ব্যক্তিগত পছন্দ যদি বলি তবে বিয়ের দাওয়াতে আমি সব সময়ই দেশি শাড়ি পরতে পছন্দ করি। কারণ বিয়ের অনুষ্ঠানে দেশি শাড়িই সবচেয়ে বেশি মানায়। এ ধরনের অনুষ্ঠানে আমি জামদানি, টাঙ্গাইল কাতান, সিল্ক শাড়ি বেশি পরি। শাড়ির সঙ্গে মিলিয়ে ভারী গহনা পরা হয়। সোনা নয়, একটু ভিন্নধর্মী জমকালো গহনা আমার পছন্দ। আর বিয়ের দাওয়াতে সোনার গহনাই পরতে হবে এমন কোনো কথা নেই। মেটাল, সিলভারের পাশাপাশি এখন তো অনেকে মাটির জমকালো গহনাও পরছেন। মানিয়েও যাচ্ছে বেশ। গ্রন্থনা : কেয়া আমান

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে