২০১৮ সালে বিশ্বের সর্বোচ্চ আয় করা শীর্ষ ১০ অভিনেত্রী

  শামীম ফরহাদ

২৯ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সম্প্রতি প্রতিবছরের মতো যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রকাশিত বিজনেস ম্যাগাজিন ‘ফোর্বস’ উপার্জনের ভিত্তিতে বিশ্বের শীর্ষ অভিনেত্রীদের তালিকা প্রকাশ করেছে। ১৯৯৯ সাল থেকে বিশ্বে সবচেয়ে বেশি আয় করা তারকাদের তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস। গতবারের তুলনায় তালিকায় এবার বেশ কিছু পরিবর্তন দেখা গেছে। ফোর্বসের তালিকার ভিত্তিতে ২০১৮ সালে বিশ্বের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া শীর্ষ ১০ অভিনেত্রীর কথা জানাচ্ছেন শামীম ফরহাদ

স্কারলেট জোহানসন

৪০ দশমিক ৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করে ২০১৮ সালে বিশ্বের সর্বোচ্চ আয় করা শীর্ষ ১০ অভিনেত্রীর তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন স্কারলেট জোহানসন। ‘মার্ভেল’ সিনেমাটিক ইউনিভার্সে নাতাশা রোমানফ বা ব্ল্যাক উইডো চরিত্রের অভিনয় করছে এ বছর বাজিমাত করেছেন স্কারলেট জোহানসন। ২০১৭ সালের তুলনায় তার আয় বেড়েছে চার গুণ। ভক্তদের জন্য সুখবর হলো ২০১৯ অ্যাভেঞ্জারসের চতুর্থ কিস্তিতে আবারও অনস্ক্রিন দেখা যাবে তাকে। এখন পর্যন্ত অর্ধশত চলচ্চিত্রে অভিনয় করলেও তার মতে তার শ্রেষ্ঠ অর্জন, ‘দ্য হর্স হুইস্পারার’ (১৯৯৮)। মডেলিং ও অভিনেত্রী পরিচয়ের পাশাপাশি গায়িকা হিসেবেও খ্যাতি অর্জন করেছেন স্কারলেট। ‘বিফোর মাই টাইম’ গানটির জন্য তিনি ২০১৩ সালে অস্কারে মনোনীত হন। এক কন্যাসন্তানের জননী স্কারলেট জোহানসনের নিট সম্পত্তির পরিমাণ ১৪০ মিলিয়ন ডলার। এ ছাড়া ২০০৭ সালে প্লেবয় ম্যাগাজিন জরিপে শ্রেষ্ঠ অবেদনময়ী অভিনেত্রীর খেতাব পান।

অ্যাঞ্জেলিনা জোলি

অ্যাঞ্জেলিনা জোলি এখন অভিনয়ের চেয়ে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার শুভেচ্ছাদূত হিসেবে মানবিক কাজে বেশি সময় দিচ্ছেন। তার পরও আয়ের দিক থেকে তিনি রয়েছেন শীর্ষদের তালিকায় দ্বিতীয়তে। সিনেমায় মেজর রোলে অভিনয়ের জন্য তার ডিমান্ড ডবল-ডিজিট মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০১৮ সালে তার আয় ছিল ২৮ মিলিয়ন ডলার। এ আয়ের বড় অংশটি এসেছে ডার্ক-ফ্যান্টাসি ঘরানার ‘ম্যালেফিসেন্ট টু’র পারিশ্রমিক থেকে। অ্যাঞ্জেলিনা জোলি তিনবার গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার, দুবার স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার এবং একবার একাডেমি পুরস্কার পান। একাধিকবার তিনি ‘বিশ্বের সেরা সুন্দরী’ নির্বাচিত হয়েছেন। ৫ ফুট ৮ ইঞ্চি উচ্চতার এ অভিনেত্রী ধূসর চোখ। ১৯৮২ সালে ‘লুকিন টু গেট আউট’ চলচ্চিত্রে শিশু চরিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তার চলচ্চিত্র জগতে আবির্ভাব হয়। পেশাদার চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে ‘সাইবর্গ ২’ (১৯৯৩)-এ। জোলির সন্তানসন্ততির সংখ্যা ৬; সম্পদের পরিমাণ ১৬০ মিলিয়ন ডলার।

জেনিফার অ্যানিস্টন

সাবেক ‘ফ্রেন্ডস’ স্টার জেনিফার অ্যানিস্টনের ২০১৮ সালের আয়ের অনেকটা এসেছে এমিরেটস এয়ারলাইনস, স্মার্টওয়াটার ও এভিনোর প্রচার থেকে। ১৯ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলার আয় করে তিনি রয়েছেন সর্বোচ্চ আয় করা শীর্ষ ১০ অভিনেত্রীর মধ্যে তৃতীয়তে। তবে আগামী বছর তার আয় বাড়বে আরও বেশি। রিজ উইদারস্পুনের সঙ্গে আসন্ন ‘অ্যাপল’ সিরিজের প্রতি পর্বের জন্য তিনি নিচ্ছেন প্রায় ১ দশমিক ২৫ মিলিয়ন ডলার। বর্তমানে তার নিট সম্পদের পরিমাণ ১৫০ মিলিয়ন ডলার। বিখ্যাত মার্কিন টিভি ধারাবাহিকে ফ্রেন্ডসের জনপ্রিয় ‘র্যাচেল গ্রিন’ চরিত্রে অভিনয় করে বিশ্বব্যাপী পরিচিতি পান। এ চরিত্রের জন্য তিনি একবার করে অ্যামি, গোল্ডেন গ্লোব ও স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার পান। টেলিভিশন সিরিজের পাশাপাশি সিনেমারও দারুণ জনপ্রিয় জেনিফার অ্যানিস্টন। তিনি হলিউডের বিভিন্ন চলচ্চিত্রে গুরুত্বপূর্ণ অভিনয় করেছেন। তার অভিনীত বেশিরভাগ চলচ্চিত্রই কমেডি চলচ্চিত্র।

জেনিফার লরেন্স

অস্কারজয়ী ‘দ্য হাঙ্গার গেমস’ অভিনেত্রীর সাম্প্রতিক মুভি ‘মাদার!’ ও ‘রেড স্প্যারো’ বক্স অফিসে প্রত্যাশিত ব্যবসা না করতে পারলেও আসন্ন ‘এক্স-মেন’ সিরিজের মুভি এবং ইউরোপিয়ান ফ্যাশন ব্র্যান্ড ‘ক্রিশ্চিয়ান ডিওর’ (সারাবিশ্বে ‘ডিওর’ নামেই পরিচিত) তার সঙ্গে চুক্তি তাকে নিয়ে এসেছে সর্বোচ্চ আয় করা শীর্ষ ১০ অভিনেত্রীর মধ্যে চতুর্থতে। ২০১৮ সালে তার আয় ছিল ১৮ মিলিয়ন ডলার। বর্তমানে তার নিট সম্পদের পরিমাণ ১৩০ মিলিয়ন ডলার। ২০১৫ সালে জেনিফার লরেন্স সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত অভিনেত্রী ছিলেন। তার প্রথম উল্লেখযোগ্য অভিনয় ছিল ‘দ্য বিং ইংভাল শো’ নামের একটি সিটকমে। অভিনয়ের জন্য তিনি দর্শকজনপ্রিয়তার সঙ্গে সঙ্গে কয়েকটি অস্কার পুরস্কার লাভ করেন। অস্কারে দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ সেরা অভিনেত্রীর খেতাব লাভ করেন তিনি। তার উচ্চতা ৫ ফুট ৯ ইঞ্চি।

রিজ উইদারস্পুন

সাম্প্রতিক মুক্তি পাওয়া ‘অ্যা রিংকেল ইন টাইম’ বক্স অফিসে হতাশাজনক ব্যবসা করলেও রিজ উইদারস্পুনের আয় পুষিয়ে গেছে ‘বিগ লিটল লাই সিজন দুই’-এর পর্বপ্রতি ১ মিলিয়ন ডলার বেতন থেকে। ২০১৮ সালে তার আয় ১৬ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলার। শিশুশিল্পী হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করে এখন ফোর্বসের সর্বোচ্চ আয় করা শীর্ষ ১০ অভিনেত্রীর মধ্যে রয়েছেন পঞ্চমে। তিন সন্তানের জননী রিজ উইদারস্পুনের সম্পদের নিট পরিমাণ ১৫০ মিলিয়ন ডলার। ৫ ফুট ১ ইঞ্চি উচ্চতার এ অভিনেত্রী ১৯৯৮ সালে তিনি তিনটি খ্যাতনামা চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছিলেন। সেগুলো হচ্ছেÑ ওভারনাইট ডেলিভারি, প্লিজেন্টভিল ও টোয়াইলাইট। পরবর্তী বছরে সমালোচকভূষিত চলচ্চিত্র ‘ইলেকশন’-এ তাকে দেখা যায়। ২০০২ সালে তার অভিনীত ‘সুইট হোম আলাবামা’ এখন পর্যন্ত ক্যারিয়ারে সবচেয়ে ব্যবসাসফল ছবি।

মিলা কুনিস

২০১৭ সালে মিলা কুনিস অভিনীত ‘ব্যাড মম্স’ ফিল্মের সিক্যুয়েল ‘আ ব্যাড মম্স ক্রিসমাস’ দুর্দান্ত ব্যবসা করেছে। ২৮ মিলিয়ন ডলারের বাজেটের চলচ্চিত্র বিশ্বজুড়ে আয় করে ১৩০ মিলিয়ন ডলার! ২০১৮তে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘দ্য স্পাই হু ডাম্পড মি’ তেমন ব্যবসাসফল হতে পারেনি। তাও ফোর্বসের সর্বোচ্চ আয়ের শীর্ষ তালিকায় তাকে আসতে বেগ পেতে হয়নি। ২০১৮ সালে তার আয় ১৬ মিলিয়ন ডলার। সম্পদের নিট পরিমাণ ৬৫ মিলিয়ন ডলার। ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি উচ্চতার এ অভিনেত্রী সাত বছর বয়সে তিনি সাবেক সোভিয়েত শাসিত ইউক্রেন থেকে সপরিবার দেশান্তরিত হয়ে লস অ্যাঞ্জেলেসে চলে আসেন। অ্যানিমেটেড সিরিজ ‘ফ্যামিলি গাই’-এ মেগ গ্রিফিন চরিত্রের জন্য ভয়েস দিয়ে তিনি আলোচনায় আসেন। মিলা কুনিসের উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে ‘ফরগেটিং সারাহ মার্শাল’ (২০০৮), ‘ম্যাক্স পেইন’ (২০০৮), ‘দ্য বুক অব অ্যালি’ (২০১০), ‘ব্ল্যাক সোয়ান’ (২০১০), ‘ফ্রেন্ডস উইথ বেনেফিটস’ (২০১১), ‘টেড’ (২০১২) ও ‘অজ দ্য গ্র্যাট অ্যান্ড পাওয়ারফুল’ (২০১৩)।

গাল গাদোত

২০১৭ সালের ব্লকবাস্টার সিনেমা ওয়ান্ডার ওম্যানের সিক্যুয়েল ‘ওয়ান্ডার ওম্যান ১৯৮৪’ আসছে ২০১৯ সালে। এর সঙ্গে আছে রেভলনের প্রচার থেকে আয় এবং গত ব্লকবাস্টার থেকে পাওয়া বেতন এ ইসরায়েলি অভিনেত্রী ও মডেলকে প্রথমবারের মতো নিয়ে এসেছে ফোর্বসের তালিকায়। ২০১৮ সালে বিশ্বের সর্বোচ্চ আয় করা শীর্ষ ১০ অভিনেত্রীর তালিকায় গাল গাদোত রয়েছে দশম স্থানে। ২০১৮ সালে তার আয় ১০ মিলিয়ন ডলার। তার বিখ্যাত চলচ্চিত্রের মধ্যে ‘ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস’ এবং ওয়ান্ডার ওম্যান ভূমিকায় ব্যাটম্যান ভার্সেস সুপারম্যান : ডন অব জাস্টিস (২০১৬), ওয়ান্ডার ওম্যান (২০১৭) ও জাস্টিস লিগ (২০১৭)। ২০১৩তে তিনি ইসরায়েলি অভিনেত্রীদের মধ্যে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত অভিনেত্রী হিসেবে দ্বিতীয় হন। তিনি গুচি ব্যাম্বু পারফিউমের মডেল। ৫ ফুট ১০ ইঞ্চি উচ্চতার গাঢ় বাদামি চুলের এ অভিনেত্রী সম্পদের নিট পরিমাণ ৮ মিলিয়ন ডলার।

মেলিসা ম্যাকার্থি

‘লাইফ অব টি পার্টি’ ব্যর্থ হওয়ার পর অনেক সমালোচক বলেছিলেন মেলিসা ম্যাকার্থির হাইপ শেষ। তাই বলে কিন্তু তার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে চেক জমা বন্ধ হয়নি। আসন্ন সিনেমা যেমনÑ ‘দ্য হ্যাপিটাইম মার্ডারস’ এবং অপ্রত্যাশিত নাটক ‘ক্যান ইউ এভার ফরগিভ মি’র জন্য বেশ মোটা অঙ্কের পারিশ্রমিক নিয়েছেন তিনি।

প্লাস সাইজেও বছরে রোজগার নিয়ে সর্বোচ্চ আয় করা শীর্ষ ১০ অভিনেত্রীর তালিকায় রয়েছেন নবম স্থানে। ২০১৮ সালে তার আয় ১২ মিলিয়ন ডলার। ২০১৫ সালে ফোর্বসের তালিকায় ছিলেন তৃতীয় স্থানে এবং ২০১৬ সালে ছিলেন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত অভিনেত্রী। ৫ ফুট ২ ইঞ্চি উচ্চতার বাদামি চুলের এ অভিনেত্রী অভিনয়ের পাশাপাশি লেখালেখি, ফ্যাশন ডিজাইনিং এবং ছবি প্রযোজনাও করেন মেলিসা ম্যাকার্থি। সে কারণে আয়টাও অনেক বেশি। মেলিসা ম্যাকার্থির সম্পদের নিট পরিমাণ ৬০ মিলিয়ন ডলার। অভিনয়ের জন্য পেয়েছেন একাধিক সম্মাননা ও পুরস্কার।

কেট ব্লানচেট

পরিবার বিনোদনধর্মী চলচ্চিত্র লাইন ধরে দাঁড়িয়ে আছে প্রশংসিত এই অস্ট্রেলিয়ান অভিনেত্রী ও নাট্য নির্দেশকের জন্য। এ বছরের উল্লেখ্যযোগ্য আয় ছিল আসন্ন চলচ্চিত্র ‘দ্য হাউস উইথ এ ক্লক ইন ইটস ওয়াল’ ও ২০১৮ সালের ‘থর : রাগনারক’ থেকে। কেট ব্লানচেট ২০১৮ সালে আয় করেছেন ১২ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলার। তার সম্পদের নিট পরিমাণ ৮৫ মিলিয়ন ডলার। ৫ ফুট ৯ ইঞ্চি উচ্চতার স্বর্ণকেশী এ অভিনেত্রী ১৯৯৮ সালের মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র ‘এলিজাবেথ’-এ ইংল্যান্ডের রানি প্রথম এলিজাবেথের চরিত্রে অভিনয় করে আলোচনায় আসেন। তার উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রÑ দ্য লর্ড অব দ্য রিংস, ইন্ডিয়ানা জোন্স অ্যান্ড দ্য কিংডম অব ক্রিস্টাল স্কাল ও দি অ্যাভিয়েটর। তিনি অভিনয়প্রতিভার জন্য দুবার করে স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড, গোল্ডেন গ্লোব, বাফটা পুরস্কার এবং একাডেমি পুরস্কার পেয়েছেন। বর্তমানে তিনি ও তার স্বামী অ্যান্ড্রু আপটন সিডনি থিয়েটার কোম্পানিতে শৈল্পিক পরিচালক হিসেবে কর্মরত।

জুলিয়া রবার্টস

২০১৭ সালে জুলিয়া রবার্টসের মুক্তি পাওয়া চলচ্চিত্র ‘ওয়ান্ডার’ ব্লকবাস্টার ব্যবসা করে। মাত্র ২০ মিলিয়ন ডলার বাজেটের চলচ্চিত্র বিশ্বজুড়ে আয় করে ৩১০ মিলিয়ন ডলার! এর সঙ্গে সঙ্গে অন্যান্য আয়ের উৎস ছিল পুরনো চলচ্চিত্র এবং ল্যানকনের প্রচার। ২০১৮ সালে তার আয় ১৩ মিলিয়ন ডলার। ১৯৯০ সালে রোমান্টিক কমেডি চলচ্চিত্র ‘প্রেটি ওম্যান’-এ অভিনয়ের মাধ্যমে সারাবিশ্বের নজর কাড়েন জুলিয়া ফ্লোনা রবার্টস। এ চলচ্চিত্রটি বিশ্বব্যাপী প্রায় ৪৬৪ মিলিয়ন ডলার আয় করে। একাডেমি অ্যাওয়ার্ডজয়ী এ অভিনেত্রীর চলচ্চিত্রগুলো বিশ্বব্যাপী ২ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে। এ জন্য তিনি হলিউডের অন্যতম বাণিজ্যিকভাবে সফল অভিনয়শিল্পী। ৫ ফুট ৯ ইঞ্চি উচ্চতার স্বর্ণকেশী এই অভিনেত্রী প্রথম অভিনেত্রী হিসেবে ‘ভোগ’ ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে স্থান পান। ‘পিপল’ ম্যাগাজিন জুলিয়া রবার্টসকে ১১ বার বিশ্বের সেরা ৫০ সুন্দরীর অন্যতম বলে অভিহিত করেছে। তিন সন্তানের জননী জুলিয়া রবার্টসের নিট সম্পদের পরিমাণ ১৪০ মিলিয়ন ডলার।

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে