বিশ্বের কয়েকটি শীতলতম অঞ্চল

  অনলাইন ডেস্ক

০৯ জানুয়ারি ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ০৯ জানুয়ারি ২০১৭, ০০:৫০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন প্রকৃতিপ্রেমী, যারা ঘুরে বেড়ান দেশ-বিদেশে। এই শীতকালে ঘোরার জন্য সব জায়গায় যাওয়া গেলেও যাওয়া যাবে না এমন কিছু অঞ্চলে, যা পৃথিবীর সবচেয়ে শীতলতম অঞ্চল হিসেবে পরিচিত- এমনটাই জানিয়েছে ওয়ার্ল্ড টপ মোস্ট নামে এক নিউজ পোর্টাল। বিস্তারিত জানাচ্ছেন- আজহারুল ইসলাম অভি

ভস্টক, এন্টার্কটিকা
ভস্টক অত্যন্ত শীতলতম স্থান হিসেবে সবার কাছে পরিচিত। ১৯৮৩ সালে ২১ জুলাই তাপমাত্রা ১২৮ ডিগ্রির নিচে ছিল। আবার জানুয়ারিতে উষ্ণতার কারণে মাইনাস ৫০ ডিগ্রি হয়েছিল। এটা ৩ হাজার ৪৮৮ মিটারজুড়ে সমুদ্রতলের ওপর। অক্সিজেনের অভাব ছিল খুবই বেশি। বিপজ্জনক অঞ্চল হিসেবে বিশ্বে স্থান করে নিয়েছে এটি।

উত্তর আইস, গ্রিনল্যান্ড
অতিঠাণ্ডার কারণে অল্পস্বল্প লোক এ স্থানটিতে বাস করে। সর্বশেষ রেকর্ড অনুযায়ী মাইনাস (-৮৭) এবং জানুয়ারিতে ১৯ দশমিক ৫৪ নবাংশের ওপর ছিল এর তাপমাত্রা। এটাকে পর্যটন সাইট হিসেবে বলা হয়ে থাকে। এখানে যে কেউ ছুটির দিনে আসতে পারে। তবে এমতাবস্থায় তাপমাত্রা দেখে আসা উচিত। মজার কথা হচ্ছে, এখানে ভ্রমণের জন্য এলেও কেউ বসবাসের জন্য এখানটায় আসে না। এটা বসবাসের জন্য উপযোগী জায়গা নয়।

এইসমিত্তি, গ্রিনল্যান্ড
এখানকার তাপমাত্রা শীতকালে মাইনাস ৮৫ থেকে ২৭ ডিগ্রির ভেতর থাকে। জুলাই মাসকে আনুমানিকভাবে উষ্ণতম সময় ধরা হয়। কিন্তু তখনো এর তাপমাত্রা থাকে ১০ ডিগ্রি, যা আসলে উষ্ণতম নয় । ফেব্রুয়ারির শীতল সময়ের তাপমাত্রা মাইনাস ৫৩ হয় । আপনি যদি এখানে ভ্রমণের পরিকল্পনা করেন, তা হলে ঠা-ায় হাত-পা অথবা হাত-পায়ের আঙুল হারাবেন। কারণ এটা বসবাসের স্থান হতে পারে না, অনেকেই সেখানে গিয়ে তুষারপাতে জীবন হারিয়েছেন।

উলানবাটর, মঙ্গোলিয়া
সবচেয়ে জনবহুল একটি স্থান, এখানে বসবাসের জন্য আপনাকে অনেক ওপরে থাকতে হবে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে। কেননা এটা প্রায় সমুদ্রপৃষ্ঠের ৩০০ মিটার ওপর। আর এত ওপরে হওয়ার কারণেই এখানে তাপমাত্রা তুলনামূলকভাবে অনেক কম। এখানে প্রায় ১০ লাখ ২৭৮ জন লোকের বসবাস। জানাবাজার মিউজিয়াম অব ফাইন আর্টের মতো বিখ্যাত জাদুঘর এখানে রয়েছে। এখানকার গড় তাপমাত্রা মাইনাস ১৬ ডিগ্রি। এই সময় মানুষ বাইরে থাকতে চায় না।

ওয়াইময়াকন, রাশিয়া
১৯৩৩ সাল থেকে এখানের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা মাইনাস ৯০ ডিগ্রি। ডিসেম্বর, জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসে তাপমাত্রা মাইনাস ৫০ ডিগ্রির রেকর্ড আছে। গ্রীষ্ম মৌসুমে সেই আবহাওয়া ৫০ ডিগ্রির ওপরও হতে পারে। ৪৭২ জন মানুষের শহর এটি, যা এ তালিকার অন্যান্য স্থানের তুলনায় কিছুটা বড়।

ইউরেকা, কানাডা
এটা এমন এক জায়গা, যেখানে ফেব্রুয়ারি-অক্টোবর পর্যন্ত সূর্য এবং অক্টোবর-মে মাস পর্যন্ত বৃষ্টির কোনো দেখা পাওয়া যায় না বললেই চলে। বার্ষিক তাপমাত্রা মাইনাস ১ দশমিক ৮ ডিগ্রি। প্রাকৃতিক পরিবেশের জন্য এ স্থানকে পোলারের মরুভূমি বলা হয়ে থাকে। এখানে অল্প আর্দ্রতার কারণে অনেক গাছপালা দেখা যায়, যা আর্কটিক বাগানের স্পট হিসেবে পরিচিত। ষাঁড় ও শিয়ালের জন্য চমৎকার জায়গা।

স্ন্যাগ, যুকন, কানাডা
এখানে এখন আর কোনো মানুষ বসবাস করে না। এক সময় অনেক মানুষের বসবাসস্থল ছিল এটি। এর তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল মাইনাস ৬৩ ডিগ্রি পর্যন্ত।

ক্রিক, আলাস্কা, ইউএসও
জনসংখ্যা একেবারেই শূন্য। এখানের আবহাওয়া খুবই ঠাণ্ডা এবং গ্রীষ্মকালেও ঠাণ্ডা অনুভূত হয়। ১৯৭১ সালে রজার্স পাস বিটের কারণে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা মাইনাস ৪০ ডিগ্রি হয়। সত্তরের দশকে সেখানে কয়েক হাজার জনসংখ্যা ছিল। এ এলাকায় পাইপলাইন নির্মাণেরর জন্য যারা বসবাস করেছিল, তারা কাজ শেষ হয়ে যাওয়ায় চলে যায়। ফলে তখন থেকেই এলাকাটি পরিত্যক্ত।

স্ট্যানলি, আইডাহো, ইউএসএ
এখানকার তাপমাত্রা ডিসেম্বরে মাইনাস ৫৪ এবং প্রত্যেক জানুয়ারিতে মাইনাস ১ ডিগ্রি অনুভূত হয়। মজার ব্যাপার হচ্ছে, জনসংখ্যা ৬৩ জন হলেও এখানে আছেন একজন মেয়র এবং একটি জাদুঘরও আছে ।

রজার্স পাস, মন্টনা, ইউএসএ
সাধারণত এই অঞ্চলের তাপমাত্রা ১৪-৩৩ ডিগ্রির মধ্যে থাকে। কিন্তু অক্টোবর-এপ্রিল পর্যন্ত এর তাপমাত্রা নিম্ন থাকে। তবে ১৯৫৪ সালে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল মাইনাস ৭০ ডিগ্রি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে