চাঁদ ও সূর্যের গল্প

  ফাইযা ফাতিমা মনজুর

১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলা মিস ক্লাসে বললেন, পরবর্তী ক্লাসে ‘একটি পূর্ণিমার রাত’ নিয়ে রচনা লিখতে। বাড়ি ফিরে বিষয়টি মাকে বললাম। মা বললেন, বই খুলে মুখস্থ করো। আমি জিদ ধরলাম ছাদে নিয়ে যাওয়ার জন্য। কেন, সে কথা এখন নয়! রাতে মাকে বললাম, ছাদে যাব। দৌড়ে ছাদের মাঝখানে এসে একটি অপূর্ব দৃশ্য দেখে অবাক হয়ে গেলাম। ওপরের দিকে তাকিয়ে দেখলাম, আস্ত একটা চাঁদ পুরো আকাশ আলোকিত করে রেখেছে। শিউলিগাছের ফুলগুলো চাঁদের আলোয় মুক্তার দানার মতো মনে হচ্ছিল। একটু আগে হয়ে যাওয়া বৃষ্টিতে ভিজে আমগাছের পাতাগুলো মৃদু হাওয়ায় নাচছিল। দূরের মাঠ থেকে বিজয়ের গান ভেসে আসছিল। সারা পৃথিবী এত সুন্দর লাগছিল যে, সারারাত ছাদেই কাটাতে ইচ্ছে করছিল। হঠাৎ খুব গল্প শুনতে ইচ্ছে করল। মাকে বললামÑ ‘মা, একটা গল্প শোনাও!’

মা বললেন, এখন নয়। আমি বললামÑ প্লিজ, মা!

সেদিনের চাঁদ-সূর্যের গল্পটা নাহয় শোনাই। চাঁদ ও সূর্য দুইভাই। তাদের মধ্যে খুব মিল। মাকে ছাড়া তারা কিছুই বোঝে না। একদিন সে দেশের রাজা ভোজনের আয়োজন করল। চাঁদ-সূর্যও নিমন্ত্রণে যাবে। মাকে ছেড়ে যেতে তাদের খুব কষ্ট হচ্ছিল। রাজার নিমন্ত্রণে সবাই এলো। ভোজনসভা শেষে চাঁদ ও সূর্য মায়ের কাছে ফিরে এলো। মা জিজ্ঞেস করলেনÑ কি রে সোনাজাদুরা, কী কী খেলি?

সূর্য বুক ফুলিয়ে বলল, এত্ত এত্ত খাবার! কোনটা রেখে কোনটার কথা বলি! এদিকে চাঁদ কিছু না বলে নানা ধরনের খাবার মাকে দিয়ে বলল, আমরা মজার মজার খাবার খাব আর তুমি না খেয়ে থাকবে? সবার চোখ আড়াল করে কিছু না পেয়ে নখে করে খাবার এনেছি।’

মায়ের দুচোখ পানিতে ভরে গেল। আবেগে আপ্লুত হয়ে চাঁদকে বুকে জড়িয়ে ধরল। সবকিছু দেখে সূর্য রেগে চাঁদের সবটুকু আলো কেড়ে নিয়ে দূরে চলে গেল। চাঁদ রয়ে গেল মায়ের কোলে।

মায়ের কোলে মাথা রেখে গল্পটা শুনে আমি চাঁদের দিকে আরও মুগ্ধ দৃষ্টিতে তাকিয়ে মৃদু হাসলাম। ভাবলাম, ভাগ্যিস চাঁদের আলো সূর্য নিয়ে গিয়েছিল!

ষ সপ্তম শ্রেণি, ইন্টারন্যাশনাল টার্কিশ হোপ স্কুল, ঢাকা

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
close