ব্যায়ামের উপকারিতা

  ডা. আলমগীর মতি

১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ব্যায়াম করার সময় মাংসপেশি রক্তবাহী ধমনি ও শরীর মালিশ করায় রক্ত সঞ্চালন ক্রিয়ার উন্নতি হয়। ব্যায়ামের মাধ্যমে দীর্ঘ শ্বাস-প্রশ্বাস ক্রিয়া আন্দোলিত হয়। ফলে লোহিত কণিকা বেশি অক্সিজেন গ্যাস দেহের কোষে কোষে রক্ত সরবরাহ করে। রক্ত সঞ্চালনতন্ত্রের একটি নিয়ম হচ্ছে, রক্ত দেহের সেখানেই বেশি জমা হয়, যেখানে বেশি কাজ বা ক্রিয়া সাধিত হয়। বহুক্ষণ ধরে বিভিন্ন ধরনের চর্চায় মাথাব্যথা হতে পারে। কারণ সেখানে বেশি রক্তের উপস্থিতি রয়েছে। রক্ত সঞ্চালনে ভারসাম্যতা রক্ষার সর্বোত্তম পন্থা হচ্ছে শরীরচর্চা বা ব্যায়াম করা। বিশ্বস্ততাসহ ব্যায়াম করলে তা থেকে হৃদস্পন্দন হ্রাস পায়। অল্পদিনের মধ্যেই হৃদস্পন্দন মিনিটে ৫ স্পন্দনে নামিয়ে আনা সম্ভব। এর ফলে ঘণ্টায় ৩০০ এবং দিনে ৭ হাজারের বেশি হৃদস্পন্দন আপনি সংরক্ষণ করতে সক্ষম হবেন। এভাবে অংক কষে দেখুন এক বছরে আপনার হৃদযন্ত্র কী পরিমাণ কাজ থেকে মুক্তি পেতে পারে। ব্যায়ামের ফলে আপনার হৃদযন্ত্রের আয়ু বৃদ্ধি পেতে বাধ্য। একই সঙ্গে ব্যায়াম করার ফলে আপনার হৃদপেশিতে রক্ত সরবরাহকারী কৈশিক নালির সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে। আপনার হৃদযন্ত্রের জন্য সংরক্ষিত ধমনির সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমে যাবে। করোনারি ধমনির (হৃৎপি-ে রক্ত বহনকারী) আকার ও ধারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। এতসব উপকারের কথা জানার পর নিশ্চয় ব্যায়াম করার কথা আর ভুলবেন না।

লেখক : বিশিষ্ট হারবাল গবেষক ও চিকিৎসক ০১৯১১৩৮৬৬১৭, ০১৬৭০৬৬৬৫৯৫

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে