ডায়াবেটিস ভবিষ্যতের প্রতিরোধ

  অধ্যাপক ডা. গোবিন্দ চন্দ্র দাস

১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিশ্বে ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৪০ কোটি ছাড়িয়ে গেছে। বাংলাদেশে রয়েছে প্রায় ৯০ লাখ, বছরে বাড়ছে আরও এক লাখ রোগী। ডায়াবেটিস প্রতিরোধে এখনই কার্যকর উদ্যোগ না নিলে বিশ্বে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে ৫৫ কোটি ছাড়িয়ে যাবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, সুশৃঙ্খল জীবনযাপন করলে রোগী নিজেই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। এ রোগের চিকিৎসায় শর্করা নিয়ন্ত্রণ করাই যথেষ্ট নয়, শর্করা মাত্রা বৃদ্ধিজনিত সমস্যাগুলো নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করলে তবেই ভবিষ্যতের জটিলতা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তন, নিয়মিত কায়িক পরিশ্রম এবং প্রয়োজনে ওষুধের ব্যবহার। একটা কথা ভুললে চলবে না যে, শুধু ওষুধের সাহায্যে কখনই এ অসুখ সারানো সম্ভব নয়। অন্য দুটি নিয়ম পালন করা আরও অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

ফিজিক্যাল এক্সারসাইজের ব্যাপারটা বিশেষ করে মাথায় রাখা অত্যন্ত প্রয়োজন। স্ট্রেস ফ্রি থাকতে হবে, সুরের মায়াজালে বন্দি করা যায় স্ট্রেস ও ডায়াবেটিসকে, যত পারুন হাঁটুন, যেসব খাবার কাঁচা খাওয়া যায় ও আঁশযুক্ত খাবার খান, শিথিল হোন প্রতিদিন, রাতে যেন হয় সুনিদ্রা এবং সঙ্গীর সঙ্গে থাকুন, থাকুন বন্ধুবান্ধবসহ। বিশ্বব্যাপী ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সুস্থ জীবনযাপনের ওপর গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

এ চিকিৎসার মূল চাবিকাঠি : লাইফ স্টাইলে পরিবর্তন, স্বাস্থ্যসম্মত খাদ্যাভ্যাস গ্রহণ, যোগব্যায়াম, প্রাণায়াম, মেডিটেশন, নিউরোবিক জিম ও আকুপ্রেসার। রোগীর বয়স এবং রোগের ধরন এবং তার বর্তমান অবস্থার ওপরই নির্ভর করে তার প্রতিদিনের খাদ্য গ্রহণ। পুষ্টিকর ও পরিমিত আহার তাকে ফিট রাখে। আর ব্যায়ামের ব্যাপারটি বিবিধ। তার আগে মন নিয়ন্ত্রণের জন্য চাই সঠিক উপায়ে মেডিটেশন। মানসিক চাপ কমানোর বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ।

লেখক : অ্যালার্জি ও

অ্যাজমা রোগ বিশেষজ্ঞ

চেম্বার : হলিস্টিক হেলথ কেয়ার সেন্টার, ৪৩আর/৫সি পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা

০১৭২১৮৬৮৬০৬, ০১৯২১৮৪৯৬৯৯

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
close