শিলাজুতের উপকারিতা

  অধ্যক্ষ ডা. এম রফিকুল ইসলাম

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শিলাজুত পাহাড় থেকে নির্গত এক ধরনের গাম। সংস্কৃতে এটির নাম ঝরষধলরঃ, ঝরষধৎধং; হিন্দিতে এঁল; বাংলায় ঝরষধলধঃঁ এবং আরবিতে ঐধলধৎ-ঁষ-গঁংধ. ভারতের হায়দরাবাদ এবং নেপালের পাহাড়ে এটি পাওয়া যায়। প্রাচীনকাল থেকেই শিলাজুত ঔষধি হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। সাধারণ দুর্বলতা, স্নায়বিক দুর্বলতা, ডায়াবেটিস, কুষ্ঠরোগ, নারীদের শ্বেতপ্রদর, জরায়ুর দুর্বলতা, শুক্রমেহ, মূত্রাধিক্য রোগে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। প্রাচীনকাল থেকে ঔষধি হিসেবে ব্যবহৃত হলেও এটির কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। শিলাজুত ডায়াবেটিস ও যৌনরোগে বেশি ফলপ্রসূ। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে শিলাজুত ও গুরমারবটি একত্রে ব্যবহারের ফলে একদিকে যেমন ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ হয়, অন্যদিকে ডায়াবেটিসের কারণে শারীরিক ও যৌন দুর্বলতার ক্ষেত্রে বেশি ভালো ফল পাওয়া যায়। শ্বেতপ্রদরের ফলে নারীদের শরীর দিন দিন পাতলা হয়ে যেতে থাকে। মেজাজ খিটখিটে হবে এবং জরায়ুর দুর্বলতা বেড়ে যাবে। এ ক্ষেত্রে শিলাজুতের মাধ্যমে তৈরি ওষুধ ব্যবহারে উল্লিখিত সমস্যার সমাধান হবে।

ওষুধ তৈরির নিয়ম : শোধিত শিলাজুত, কুশতায় বয়জা, কুশতায় কালাই, লালবামন একত্রে মিহি চূর্ণ করে ট্যাবলেট তৈরি করে নিতে হবে। এটি সাধারণত শক্তিবর্ধক, স্নায়বিক উত্তেজক, শুক্রমেহ ও মূত্রাধিক্যে উপকারী।

লেখক : চিকিৎসক ও গবেষক। চেম্বার : শান্ত ইউনানি ফার্মাসি

১০৪ গ্রিন রোড, ক্যাপিটাল মার্কেট, ফার্মগেট, ঢাকা। ০১৬২১৩৭৩৩৯৯

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে