বাতব্যথা নিরাময়ে ফিজিওথেরাপি

  ডা. এম ইয়াছিন আলী

১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:২৮ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাতজনিত ব্যথার মধ্যে বেশি দেখা যায় রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস, অস্টিওআর্থ্রাইটিস, গাউট বা গেঁটেবাত। এসবে যে ধরনের ব্যথা হয়, তা সাধারণত রোগীকে সারা জীবন বহন করতে হয়। নিয়মিত ওষুধ সেবন করতে হয়। ব্যথা নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশাপাশি ফিজিওথেরাপি ও ব্যায়াম ভালো ভূমিকা রাখতে পারে।

রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস : এতে আক্রান্ত ব্যক্তির হাত ও পায়ের ছোট ছোট জয়েন্টগুলোয় ব্যথা হয়, জয়েন্ট ফুলে যায়, সকালে ঘুম থেকে ওঠার সময় খুব বেশি ব্যথা করে। তার পর হাঁটাচলা ও কাজ করলে ব্যথা কমে আসে।

অস্টিওআর্থ্রাইটিস : এতে রোগীর হাত-পা ও মেরুদ-ের বড় বড় জয়েন্টে ব্যথা হয়। যেমনÑ হাঁটু, ঘাড়, কোমর, হিপ ও কাঁধের জয়েন্ট ইত্যাদি। রোগী বিশ্রামে থাকলে ব্যথা কম থাকে কিন্তু কাজ বা হাঁটাচলা করলে ব্যথা বাড়ে। এ ছাড়া জয়েন্টের অভ্যন্তরে কার্টিলেজ বা তরূণাস্থি ক্ষয় হতে থাকে ও জয়েন্টের ভেতরে যে সাইনোভিয়াল ফ্লুইড (এক ধরনের তরল) থাকে, তা কমে যায়। ফলে রোগীর নড়াচড়া করতে কষ্ট হয়।

গাউট বা গেঁটেবাত : সাধারণত প্রথম হয় পায়ের বুড়ো আঙুলে। এ রোগে প্রচ- ব্যথা হয় ও ফুলে যায়। পা ফেলতে কষ্ট হয় এবং পরবর্তীকালে অন্যান্য জয়েন্টে তা ছড়িয়ে পড়ে। এ ক্ষেত্রে রোগীর শরীরে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা বেড়ে যায়।

চিকিৎসা : চিকিৎসা নির্ভর করে রোগের ইতিহাস, লক্ষণ ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার ওপর। তাই চিকিৎসক ও ফিজিওথেরাপিস্টের পরামর্শ নিন।

লেখক : চেয়ারম্যান ও চিফ কনসালট্যান্ট, ঢাকা সিটি ফিজিওথেরাপি হাসপাতাল

ধানম-ি, ঢাকা। ০১৭৮৭১০৬৭০২

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে