পুরুষের অক্ষমতায় সচেতনতা জরুরি

  ডা. একেএম মাহমুদুল হক খায়ের, চর্ম, যৌন ও অ্যালার্জি রোগ বিশেষজ্ঞ

১৩ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৩ অক্টোবর ২০১৮, ১০:৩৮ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিভিন্ন কারণে পুরুষের মধ্যে দেখা দিতে পারে শারীরিক অক্ষমতা। অক্ষমতা বলতে পুরুষের পুরুষত্বহীনতাই বোঝায়। এটি একটি অস্বস্তিকর ব্যাধি। ইদানীং এ রোগের প্রকোপ বেড়েই চলেছে। আর এটি এমন এক রোগ, যা কাউকে বলাও যায় না, আবার সয়ে থাকাও যায় না। ফলে আক্রান্ত ব্যক্তি হয়ে পড়েন দিশেহারা।

চেপে রাখার কারণে এক সময় রোগটি ব্যাপক বিস্তার লাভ করে, যার পরিণতি হয় অত্যন্ত ভয়াবহ। রোগ জটিলতায় আজীবন মানসিক অশান্তিতে কাটাতে হয়। তাই রোগের শুরুতেই উচিত, চিকিৎসকের পরামর্শে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে সুস্থ থাকা। রোগটি দেখা দিয়ে থাকে তিনভাবে। প্রথমটি হলো ইরেকশন ফেইলিউর।

দ্বিতীয়টির নাম পেনিট্রেশন ফেইলিউর এবং তৃতীয়টির নাম প্রি-ম্যাচুর ইজাকুলেশন। রোগের কারণগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো বয়সের পার্থক্য; সঙ্গীকে অপছন্দ (যেমন দেহ সৌষ্ঠব, মুখশ্রী ও ত্বক); দুশ্চিন্তা, টেনশন ও অবসাদ; অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস; যৌনবাহিত রোগ (যেমন সিফিলিস ও গনোরিয়া); রক্তে যৌন হরমোনের ভারসাম্যহীনতা, যৌনরোগ বা এইডসভীতি, নারীর ক্রটিপূর্ণ যৌনাসন, উপযুক্ত যৌনশিক্ষার অভাব ইত্যাদি। এ রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব।

কিন্তু দেখা যায়, উঠতি বয়সী যুবকরা চিকিৎসকের খপ্পরে পড়ে কিংবা স্বেচ্ছায় বিভিন্ন ধরনের হরমোনজনিত ইনজেকশন নিয়ে থাকে অথবা ভুয়া ওষুধ সেবন করে থাকে। এটি মোটেও উচিত নয়। কারণ এসব ওষুধের রয়েছে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া, যার পরিণতি শেষ পর্যন্ত পুরুষত্বহীনতা। তাই যে কোন বয়সী পুরুষের এ ধরনের সমস্যা দেখা দিলে অভিজ্ঞ যৌনরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। চিকিৎসাবিজ্ঞানের যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে। আবিষ্কৃত হয়েছে বিভিন্ন জটিল রোগের চিকিৎসা পদ্ধতিও। কাজেই এ ধরনের যৌনবাহিত রোগ থেকে রক্ষা পেতে পাশর্^প্রতিক্রিয়াহীন চিকিৎসা পদ্ধতি গ্রহণের মাধ্যমে রোগ সমূলে নির্মূল করা সম্ভব।

লেখক : সাবেক সিনিয়র কনসালট্যান্ট

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ^বিদ্যালয়

চেম্বার : ল্যাবএইড লিমিটেড, বাড়ি-৬৬, কলাবাগান, ধানমন্ডি, ঢাকা। ০১৭৬৬৬৬১৩৩১

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে