তুলসীর রয়েছে ভেষজগুণ

  ডা. আলমগীর মতি

০৫ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ০৫ নভেম্বর ২০১৮, ০৯:১৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

তুলসী উচ্চ রক্তচাপ ও কোলেস্টেরল কমিয়ে হৃৎপিণ্ডের রক্ত সরবরাহের মাত্রা ঠিক রাখতে সাহায্য করে। লিভারের কার্যক্ষমতা বাড়ায়। হাড়ের গাঁথুনির ব্যথা দূর করে এবং শরীরের কাটাছেঁড়া দ্রুত শুকিয়ে তোলে। কাশি হলে তুলসী পাতা এবং আদা একসঙ্গে পিষে মধুর সঙ্গে মিশিয়ে খান।

ডায়রিয়া হলে ১০ থেকে ১২টি পাতা পিষে রস খেয়ে নিন। মুখের দুর্গন্ধ দূর করতে দিনে ৪-৫ বার তুলসী পাতা চিবাতে পারেন । শরীরের কোথাও ঘা থাকলে তুলসী পাতা এবং ফিটকিরি একসঙ্গে পিষে ঘায়ের ওপর লাগান। শরীরের কোনো অংশ পুড়ে গেলে তুলসীর রস এবং নারকেলের তেল ফেটিয়ে লাগান। জ্বালাপোড়া কমে যাবে। পোড়া জায়গা তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যাবে এবং পোড়া দাগ ওঠে যাবে। তুলসী গাছের বীজও উপকারী। বীজ শুকিয়ে মিহি করে খেলে প্রস্রাবের ইনফেকশনজনিত সমস্যা ভালো হয়। পুরুষত্বহীনতা দূর করতে এ পাতার অবদান অপরিহার্য।

যদি কখনো বমি কিংবা মাথা ঘোরা শুরু হয়, তাহলে তুলসী রসের মধ্যে গোলমরিচ মিশিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যায়। সকালে খালি পেটে তুলসী পাতা চিবিয়ে রস পান করলে খাবার রুচি বাড়ে। নিয়মিত তুলসীর রস পানে হৃদরোগেও উপকার পাওয়া যায়। চোখের সমস্যা দূর করতে রাতে কয়েকটি তুলসী পাতা পানিতে ভিজিয়ে রেখে ওই পানি দিয়ে সকালে চোখ ধুয়ে ফেলুন। তুলসী স্নায়ু টনিক ও স্মৃতিবর্ধক। শ্বসনতন্ত্রের বিভিন্ন রোগ, যেমন-ব্রঙ্কাইটিস, ইনফ্লুয়েঞ্জা, হাঁপানি রোগের নিরাময়ক। দাঁতের রোগে উপশমকারী বলে টুথপেস্ট তৈরিতে ব্যবহৃত হয় তুলসী পাতা।

লেখক : বিশিষ্ট হারবাল গবেষক

ও চিকিৎসক। ০১৯১১৩৮৬৬১৭, ০১৬৭০৬৬৬৫৯৫

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে