ফুলকপির পুষ্টিগুণ

  ডা. আলমগীর মতি

০৬ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ০৬ নভেম্বর ২০১৮, ০১:৩২ | প্রিন্ট সংস্করণ

ফুলকপিতে আছে ভিটামিন ‘বি’, ‘সি’ এবং ‘কে’, যা ঠা-াজনিত সর্দি, হাঁচি, কাশি, জ্বর জ্বর ভাব, শরীর ব্যথা, নাক দিয়ে পানি পড়া, নাক বন্ধ হয়ে যাওয়া ও ঠা-ায় কান বন্ধ হয়ে যাওয়া সমস্যা দূর করে। অকালে দাঁত লালচে হয়ে যাওয়া ও দাঁতের মাড়ি দুর্বল হওয়া সমস্যা দূর করে ক্যালসিয়াম ও ফোরাইড; যেগুলোর বসতি ফুলকপিতে। দাঁতের ঔজ্জ্বল্য বাড়ায় ও বাড়ন্ত শিশুর দাঁতের পূর্ণ বিকাশের জন্য ক্যালসিয়াম যথেষ্ট উপকারী। এই সবজিতে আয়রন আছে উচ্চমাত্রায়। রক্ত তৈরিতে আয়রন রাখে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। গর্ভবতী মা, বাড়ন্ত শিশু ও অতিরিক্ত শারীরিক পরিশ্রম করা মানুষের জন্য ফুলকপি আশীর্বাদস্বরূপ। এতে চর্বির বদলে আছে পর্যাপ্ত আমিষ, দেহ গঠনের জন্য যা খুবই প্রয়োজন। কোলেস্টেরলমুক্ত ফুলকপি তাই বৃদ্ধি ও বর্ধনের জন্য খাওয়া প্রয়োজন। প্রচুর পরিমাণে আমিষ বা প্রোটিন থাকায় কিডনির জটিলতায় ভোগা ব্যক্তিরা চিকিৎসকের পরামর্শমতো খেতে পারেন। কারণ আমিষ ও পটাশিয়াম কিডনির জন্য উপযোগী নয়। জিহ্বায় ঘা হয় ভিটামিন ‘বি’ ও ‘সি’র অভাবে। তালুর (ওপর ও নিচের অংশের) চামড়া উঠে যাওয়া বা ছিঁড়ে যাওয়ার জন্যও এ দুটি ভিটামিনের ঘাটতি দায়ী। এ ঘাটতিগুলো পূরণ করবে ফুলকপি। ক্যানসারের জীবাণুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে ফুলকপি। স্তন ক্যানসার, কোলন ও মূত্রথলির ক্যানসারের জীবাণুকে ধ্বংস করে এ সবজি। ক্যানসারের জীবাণু দেহ থেকে বাইরে বের করে দেওয়ার জন্য ফুলকপি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

লেখক : বিশিষ্ট হারবাল

গবেষক ও চিকিৎসক। ০১৯১১৩৮৬৬১৭, ০১৬৭০৬৬৬৫৯৫

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে