sara

চোখে ক্ষত প্রতিরোধে আপনার করণীয়

  প্রফেসর ডা. সৈয়দ একে আজাদ

১৬ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ০৯:২৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

আমাদের চোখের সামনের অংশে গোলাকার কালো অংশ দেখা যায়। এটির নাম হলো কর্নিয়া। কোনো কারণে কর্নিয়ার প্রদাহ ও পরে ঘা হওয়াকে বলে কর্নিয়াল আলসার বা ঘা।

যে কারণে হয় : চোখের আঘাতজনিত কারণে এ রোগ বেশি হয়। অপুষ্টিজনিত, বিশেষ করে ভিটামিন-এ’র অভাবে শিশুদের এ রোগ দেখা যায় । চোখের পাপড়ি গোড়া অপরিষ্কার রাখার জন্য প্রদাহ হতে পারে। নেত্রনালি বন্ধজনিত চোখের পানি পড়া রোগের কারণেও প্রদাহ হতে পারে।

রোগের লক্ষণ : আলোয় চোখ খুলতে না পারা, চোখে প্রচণ্ড ব্যথা, চোখ লাল হয়ে যাওয়া, পানি পড়া, চোখের কালো মণিতে সাদা দাগ বা ঘা দেখা দেওয়া ইত্যাদি।

প্রতিরোধে করণীয় : চোখে কিছু পড়তে পারে বা আঘাত লাগতে পারে এমন পেশাজীবীরা কাজের সময় গগলস বা চশমা ব্যবহার করতে পারেন। চোখে কিছু পড়লে পরিষ্কার পানি দিয়ে চোখ ধুয়ে ফেলতে হবে। নেত্রনালির সমস্যার কারণে পানি পড়া রোগের চিকিৎসা করিয়ে নিতে হবে। কোনো ধরনের রাসায়নিক পদার্থ, যেমন-শামুকের পানি, চুনের পানি ইত্যাদি ব্যবহার করা যাবে না। এটি এক ধরনের কুসংস্কার। সমস্যা হলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।

চিকিৎসা : উপরোল্লিখিত উপসর্গ দেখা দিলে নিকটবর্তী চক্ষুচিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া একান্ত প্রয়োজন। তিনিই রোগ নির্ণয় করে কার্যকর চিকিৎসা দেবেন। মনে রাখতে হবে, স্টেরয়েড জাতীয় চোখের ড্রপ ব্যবহারে কর্নিয়ার ঘা জটিল রূপ নিতে পারে। তাই ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া এ জাতীয় ওষুধ ব্যবহার করা মোটেও উচিত হবে না। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী সময়মতো ওষুধ ব্যবহারে এ রোগ সম্পূর্ণ নির্মূল হয়। তবে শুরুতেই চিকিৎসা শুরু না করলে ঘায়ের গভীরতা বেড়ে যেতে পারে। দেখা দিতে পারে স্থায়ী দৃষ্টিস্বল্পতা। তাই দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া ভালো।

লেখক : সাবেক বিভাগীয় প্রধান, চক্ষুরোগ বিভাগ, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল

চেম্বার : আল-রাজী হাসপাতাল, ফার্মগেট, ঢাকা। ০১৫৫২৪০৯০২৬, ০১৭১০৭৩৬০০৮

প্রফেসর ডা. সৈয়দ একে আজাদ

চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞ ও ফ্যাকো সার্জন

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে