কবিতা

  অনলাইন ডেস্ক

১১ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মাকিদ হায়দার

হয় না পূরণ

একটা শালিক, বেজোড় শালিক

কেঁদে বেড়ায় নীল সড়কে, তাহার ব্যথায়

সেদিন আমার

দিনটা গেল অশোক বনে।

ভেবেছিলাম সাতসকালে

সাঁতরে যাবো নদীর ওপার, ওপারে যার

বসত বাড়ি

তাহার খোঁজে।

ফিরে এলাম দুপুর রোদে

ঠিক তখনি হঠাৎ দেখি

একটি শালিক বেজোড় শালিক

হাসতে গিয়ে

বলল কেঁদে

জীবন যখন একা একা, কী হবে আর সেসব ভেবে

সব চাওয়া তো হয় না পূরণ

এক জীবনে। তবু আমার

ইচ্ছে করে থাকব আমি কবির গৃহে

শালিক এবং আমার কথার মধ্যিখানে

ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি এলো শেষ শ্রাবণে।

হঠাৎ শুনি, একটি বায়স ডাকছে তাকে

আয় ফিরে আয়

আমার কাছে। ঘর বেঁধেছি

রাধা কৃষ্ণের বৃন্দাবনে।

ভেবেছিলাম সাঁতরে যাবো নদীর ওপার

যিনি আমায় বলেছিলেন

এলে পরে দেখা হবে।

কথার ছলে বলেছিলেন,

সকল চাওয়া হয় না পূরণ

এক জীবনে।

নাসির আহমেদ

দীক্ষা

কখন যে ঝলমলে রোদ উঠেছিল

কখন করেছে ঘনমেঘ

কিছুই বুঝিনি আমি;

স্বপ্নমুগ্ধ দুরন্ত আবেগ

সম্মোহিত রেখেছিল তবে কি আমাকে কিছুক্ষণ?

স্বপ্নশেষে দেখি রৌদ্র কোথাও তো নেই!

গভীর রাত্তিরে ঝরছে অথৈ শ্রাবণ

ঋতু ভেদাভেদ আর হৃদয় বিষয়ে অশিক্ষিত

দুঃখের কাছেই শেষে হলাম দীক্ষিত।

সমরেশ দেবনাথ

শল্যবিদের উক্তি

একের পর এক মানবদেহ করে যাচ্ছি সেলাই।

তফাত কোথায়? একজন দর্জির হাতে সুতাÑ

সেও তো মেশিনকে বাধ্য করেছে নিজের দিকেÑ

টুটাফাটার ওপর নিপুণ মেশিন ঘুরিয়েÑ

সুচ পুরে দিচ্ছে আত্মার গভীরেÑ

আমরা দেহ মেরামত করতে গিয়ে

আত্মার ভেতর হঠাৎ কাঁচি দিয়ে খোঁচা মেরে ফেলিÑ

তাতে রোগী কাতরায়, অ্যানেসথেসিয়ার ঘ্রাণ,

তাকে স্বস্তি দেয় না, বলে, ডাক্তার কখন মুক্তি পাব?

আমাকে কেন জিজ্ঞেস করছেন?

যে আপনার দেহ বানিয়েছে তার কাছে জানতে চান!

আমাদের কাজ শুধু মেরামত করা।

স.ম. শামসুল আলম

কী কথা বলেছ তুমি

কী কথা বলেছ তুমি কী কথা

আকাশের মুখ বিষণœ মলিন ম্লান হাসি চঞ্চলতা

ডুবে গেল সূর্যটাও বড় অসময়ে

দুরন্ত সাগর মেলে মহাশূন্যতায় ক্ষয়ে ক্ষয়ে

পাহাড়ের কোলে অকস্মাৎ থামে চলন্ত ঝরনা, নীরবতা

কী কথা বলেছ তুমি কোন কথা

রাহুগ্রস্ত রাতগুলো আঁধারের বাহু ধরে কাঁদে

নতুন জোনাকি এসে ধরা পড়ে মরীচিকা বাতাসের ফাঁদে

নিজেকে আড়াল করে চাঁদ, নিমগ্নতা

কী কথা বলেছ তুমি কার কথা

আমার পৃথিবী দগ্ধ; ফাটে প্রিয় মাটি

উজানে দাঁড়াতে ভয় খুঁজে ফিরি সারা জল কতদূর ভাটি

চোখের দর্পণে লেখা স্মৃতি পাঠ বাড়ে ¯œায়ুচাপ

কী কথা বলেছ তুমি মন ছোঁয়া পাপ!

রাহমান ওয়াহিদ

বোঝাপড়া

আসছে আষাঢ়ে কিংবা আশ্বিনে

কিছু ভুল-ভ্রান্তির অনুষঙ্গ নিয়ে

শেষ বোঝাপড়াটা হয়ে যাক।

পাঁজরের বুক পকেটে

কিছু খোঁজাখুঁজির বিষয়াদি আছে।

বিশ্বাসী হাড়ের মজ্জায় কিছু

খোঁড়াখুঁড়ির কাজও রয়ে গ্যাছে বাকি।

এসব ঝুট্ ঝন্ঝাট মিটেমুটে যাক।

তারপর কোন এক বোবারাতে

করোটি খুলে না হয় দেখে নেব

আসলে আমরা অরণ্যে লুকোতে গিয়ে

কোন্ মায়ামৃগকে অনর্থক পুষেছিলাম।

পুলক হাসান

যান্ত্রিক

বিনা সাধনায় পেয়েছি তারে হাতের মুঠোয়

যান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় যে হৃদয় খুঁজে পাওয়া যায়

জানা ছিল না

রাতভর তাই কথা ফুরায় না।

এমনই তার ডিজিটাল ভেলকি

এতটুকু চারা দ্রুত হয়ে যায় গাছ

যে গাছে শুধু পাখির ডাকাডাকি

হরেকরকম ইশারা

কখনো কখনো বাছবিচার ছাড়া

এত সহজে খুলে যায় তার দরজা!

মজাই মজা

কখনো অসহ্য সে আলোর আঁচ।

তবু ভাবি প্রযুক্তির ছোঁয়ায়

অধরাকে যে পেয়েছি হাতের মুঠোয়

তাই বা কম কি

বুকের ভেতর ডেকে ওঠে যান্ত্রিক

এক পাখি...

ইফতেখার হালিম

ভালোবাসা

ভালোবাসা হলো পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ অস্ত্র

তাই ভালোবাসা চাই।

স্বাধীনতা হলো নীল আকাশের ঘুড়ি

তাই স্বাধীনতা চাই।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে