x

সদ্যপ্রাপ্ত

  •  বিকালের মধ্যেই বিদ্যুৎ বৃদ্ধির ঘোষণা আসছে: বিইআরসি

আয়কর মেলার ইতিবৃত্ত

  আবু আলী

১২ নভেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

‘বারো মাসে তেরো পার্বণ’- এমন উৎসবের দেশ বাংলাদেশ। বাংলাদেশে হাজারেরও বেশি প্রাচীন মেলা রয়েছে। বছরের শুরুর বৈশাখ মাসে দেশজুড়ে চলে বৈশাখী মেলা। কৃষিশিল্প মেলার প্রচলন হয় প্রায় দেড়শ বছর আগে। এ ছাড়া আমাদের বৈশাখী মেলা, ঈদ মেলা, ওরস মেলা ইত্যাদি উৎসবের বয়সও অনেক দিনের। পাশাপাশি ভাষার মাস ফেব্রুয়ারি মাসজুড়ে চলে বইমেলা। ইংরেজি বছরের শুরু জানুয়ারি মাসজুড়ে চলে বাণিজ্য মেলা। এসব মেলার পাশাপাশি রয়েছে ফার্নিচার মেলা, শিক্ষা মেলা, কম্পিউটার মেলা, চাকরি মেলা ইত্যাদি।

আয়কর অধ্যাদেশ ১৯৮২-এর ওপর ভিত্তি করেই জাতীয় রাজস্ব বোর্ড আয়কর আদায় করে থাকে। কিন্তু দেশের মানুষের মধ্যে এনবিআরকে নিয়ে এক ধরনের ভীতি কাজ করে। ভীতির সঙ্গে অজ্ঞতাও রয়েছে। ফলে রাজস্ব খাতে আমূল পরিবর্তন আনতেই জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ২০১০ সাল থেকে দেশে আয়কর মেলার আয়োজন করে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড সেই কার্যক্রম প্রতিবছরই বাড়াচ্ছেন; যার ইতিবাচক সাড়াও মিলছে। প্রতিবছরই আয়কর সেবা, আয়কর আদায়, সেবাগ্রহণকারীর সংখ্যা বাড়ছে একদিকে অন্যদিকে রাজধানী থেকে উপজেলা পর্যায়ে এ সেবা পৌঁছে গেছে। এবার সারা দেশের বিভাগীয় শহর, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে আয়কর মেলা ১ নভেম্বর শুরু হয়ে চলে ৭ নভেম্বর পর্যন্ত।

এনবিআর সূত্র জানিয়েছে, ২০১০ সালে আয়কর মেলায় ৬০ হাজার ৫১২ জন সেবা গ্রহণ করেন। আয়কর আদায় হয় ১১৩ কোটি টাকা আর কর বিবরণী জমা হয়েছিল ৫২ হাজার ৫৪৪টি। পরের বছর সেবগ্রহণকারীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ১২০ জন। আয়কর আদায় হয়েছিল ৪১৪ কোটি টাকা আর কর বিবরণী জমা হয়েছিল ৬২ হাজার ২৭২টি। ২০১২ সালে সেবা নেন ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৮৬৭ জন। আয়কর আদায় হয়েছিল ৮৩১ কোটি টাকা আর কর বিবরণী জমা হয়েছিল ৯৭ হাজার ৮৬৭টি। ২০১৩ সালে ৫ লাখ ১০ হাজার ১৪৫ জন সেবা নেন। আয়কর আদায় হয়েছিল ১ হাজার ১১৭ কোটি টাকা আর আয়কর বিবরণী জমা হয়েছিল ১ লাখ ৩২ হাজার ১৭টি। ২০১৪ সালে করসেবা নেন ৬ লাখ ৪৯ হাজার ১৮৫ জন। আয়কর আদায় হয়েছিল ১ হাজার ৬৭৫ কোটি টাকা আর কর বিবরণী জমা হয়েছিল ১ লাখ ৪৯ হাজার ৩০৯টি। ২০১৫ সালে করসেবা নিয়েছেন ৭ লাখ ৫৭ হাজার ৭৫৪ জন। আয়কর আদায় হয়েছিল ২ হাজার ৩৫ কোটি টাকা। আর কর বিবরণী জমা হয়েছিল ১ লাখ ৬১ হাজার ১৬০টি। গত বছর ২০১৬ সালে আয়কর মেলা ৯ লাখ ২৮ হাজার ৯৭৩ জন করসেবা নেন। আয়কর আদায় হয়েছিল ২ হাজার ১২৯ কোটি টাকা আর কর বিবরণী জমা হয়েছিল ১ লাখ ৯৪ হাজার ৫৯৮টি। আর এ বছর মেলা থেকে ২ হাজার ২১৭ কোটি ৩৩ লাখ টাকার আয়কর আদায় হয়েছে।

বেড়েছে মেলার ব্যাপ্তি : এবার রাজধানীসহ আট বিভাগীয় শহরে সাত দিন মেলা হয়েছে। প্রতিটি জেলায় মেলা হয়েছে চার দিন; ১ থেকে ৭ নভেম্বরের মধ্যে। এ ছাড়া ৩২টি উপজেলায় মেলা হয়েছে দুই দিন। ৭১ উপজেলায় একদিন ভ্রাম্যমাণ মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বরাবরের মতো এবারও মেলায় করদাতাদের সব ধরনের তথ্য সেবা দেওয়া হচ্ছে। দেশে বর্তমানে কর শনাক্তকরণ নম্বরধারী (টিআইএন) নাগরিকের সংখ্যা ৩১ লাখ ছাড়িয়েছে। গত অর্থবছরে ১২ লাখের কিছু বেশি করদাতা রিটার্ন দাখিল করেছিলেন। এবারের মেলায় ১৬ লাখ করদাতাকে সেবা দেওয়া হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে