• অারও

বাণিজ্যমেলায় প্রকৃতির ছোঁয়া

  গোলাম রাব্বানী

১৪ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সরকারের সবুজ অর্থনীতির সবুজ বাংলাদেশ গড়ার উদ্যোগের ছোঁয়া লেগেছে এবারের ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলায়। মেলা প্রাঙ্গণের আগের গাছগুলোকে অক্ষত রেখে মেলার আয়োজন করা হয়েছে। এ ছাড়া মেলার এক পাশে একটি বিস্তৃত কৃত্রিম সুন্দরবন তৈরি করা হয়েছে। এর ভেতরে রয়েছে ছোট কৃত্রিম লেক। লেকের পাড়ে রয়েছে বিভিন্ন গাছগাছালি। গাছের ফাঁকে রাখা হয়েছে মাটির তৈরি হরিণ-বাঘ। দেখে মনে হবে এক টুকরো সুন্দরবন। কিছু জীবন্ত হাঁস ও মুরগিও ছেড়ে দেওয়া হয়েছে এর ভেতরে।

এবার বড় বড় প্যাভিলিয়ন ও মিনি প্যাভিলিয়নের সামনে রয়েছে ফুলের বাগান। মেলা কর্তৃপক্ষের নির্দেশে তারা এসব ব্যবস্থা করেছে। এর মধ্যে প্রাণ, আরএফএল, ইটালিয়ানা, টিইএল, বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল করপোরেশন, কাজী ফার্মস, পারটেক্স, হাতিলের সামনে সুন্দর বাগান তৈরি করা হয়েছে আকর্ষণীয়ভাবে। বাগানে নানা ধরনের ফুলও ফুটে উঠেছে। এগুলো তারা আগে থেকেই অর্ডার দিয়ে সংগ্রহ করেছে।

কয়েকটি প্যাভিলিয়ন রয়েছে তিন থেকে চার তলাবিশিষ্ট। এগুলো এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে, যাতে ভেতরে সূর্যের আলো প্রবেশ করে। এর মধ্যে রয়েছেÑ পারটেক্স, কিয়াম, ওয়ালটন, র‌্যাগস, ইপিএল। মেলার পরিবেশ খোলামেলা রাখতে অনেক জায়গা ছাড় দেওয়া হয়েছে। মেলায় প্রবেশের প্রধান ফটকের সামনে থেকে বড় একটি অংশ খালি রাখা হয়েছে। এখানে আছে ফোরায়া ও টাওয়ার।

পরিবেশবান্ধব পণ্য উৎপাদন করে এমন সব কোম্পানিগুলোকেও মেলায় অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের একটি প্যাভিলিয়ন রয়েছে। এখানে পাটজাত পণ্য উৎপাদনকারীরা তাদের পণ্য বিক্রি করছেন। জয়িতা প্যাভিলিয়নেও নারী উদ্যোক্তাদের অংশ নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। বিদেশি পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তিও অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর মহাপরিচালক অভিজিৎ চৌধুরী বলেন, সরকারের কর্মকা-ে গ্রিন ফ্যাক্টর গুরুত্বপূর্ণ। আমরা মেলায়ও এটিকে গুরুত্ব দিয়েছি। অনেকেই আমাদের আহ্বানে সাড়া দিয়েছে। আগামীতে আরও হবে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে