কম্পিউটার ও স্মার্টফোন

হার্ডওয়্যার রপ্তানিকারক হবে বাংলাদেশ

  মোস্তাফা তাহান

২২ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২২ এপ্রিল ২০১৮, ০১:৩০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশ এখন কম্পিউটারের হার্ডওয়্যার তৈরি করছে। অচিরেই স্মার্ট মোবাইল ফোনের হার্ডওয়্যার তৈরি করবে। কম্পিউটার ও মোবাইল ফোনের অন্যান্য যন্ত্রাংশও তৈরি করতে শুরু করেছে। এই প্রক্রিয়ায় ধীরে ধীরে দেশেই তৈরি হবে পূর্ণাঙ্গ কম্পিউটার ও স্মার্টফোন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অগ্রগতি হয়েছে কম্পিউটার ও মোবাইল ফোনের হার্ডওয়্যার তৈরিতে। উদ্যোক্তারা আশা করছেন, আগামী ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হার্ডওয়্যার রপ্তানিকারক দেশে পরিণত হবে।

বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির সূত্র জানায়, বর্তমানে বছরে দেশে ৫ লাখ কম্পিউটার আমদানি করা হয়। এর সঙ্গে খুচরা যন্ত্রাংশসহ আরও তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক পণ্য আমদানি হয়। এ খাতে বছরে খরচ হয় প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকার সমপরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা। কম্পিউটার ও মোবাইল ফোনের হার্ডওয়্যার তৈরি করে কমপক্ষে ৫০০ কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় করা সম্ভব।

বড় বড় কম্পিউটার উৎপাদনকারী দেশগুলো এখন আর হার্ডওয়্যার তৈরি করছে না। তারা এগুলো অন্য দেশ থেকে আমদানি করছে। ফলে যেসব দেশ এ খাতে দক্ষতা অর্জন করেছে ওই সব দেশে অর্ডার দিচ্ছে। বাংলাদেশও এখন এসব অর্ডার পেতে শুরু করেছে। এসব কারণে বাংলাদেশে কম্পিউটার ও মোবাইল সেট তৈরির কারখানা চালু করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ওয়ালটন, স্যামসাং, সিঙ্গার, এলজি, মিনিস্টার গ্রুপ বাংলাদেশে কম্পিউটার ও মোবাইল ফোন সেটের হার্ডওয়্যার তৈরি করা শুরু করেছে। তাদের কারখানাগুলোতে হার্ডওয়্যার ছাড়াও দুই স্তরবিশিষ্ট মাদারবোর্ড, ডিসপ্লে কেসিং, র‌্যাম, এএসডি ডিভাইস, পেন ড্রাইভ, কিবোর্ড, মাউস, ট্যাব এগুলো তৈরি করার প্রক্রিয়া চলছে। এর মধ্যে ওয়ালটন ও স্যামসাং কারখানায় যন্ত্রাংশ সংযোজন করে কম্পিউটার, ল্যাপটপ ও স্মার্টফোন তৈরি করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির মতে, বছরে দেশে যেসব হার্ডওয়্যার তৈরি হবে সেগুলো দিয়ে আপাতত দেশের চাহিদা মেটানো হবে। বর্তমানে দেশে ৫ লাখ হার্ডওয়্যারের চাহিদা আছে। তবে এর মধ্যে কিছু আমদানি হবে পূর্ণাঙ্গ কম্পিউটার হিসেবে বিদেশ থেকে। আর কিছু দেশীয় হার্ডওয়্যার ব্যবহৃত হবে। ২০২১ সালের মধ্যে দেশে প্রায় ৪ থেকে ৫ লাখ পিস হার্ডওয়্যার তৈরি করা সম্ভব হবে। এর মধ্যে ১ থেকে ২ লাখ পিস বিদেশে রপ্তানি করা যাবে। বাকিগুলো দেশে কাজে লাগানো হবে।

বাংলাদেশ থেকে কম্পিউটার ও স্মার্টফোনের হার্ডওয়্যার আমদানি করতে ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি ও চীন আগ্রহ প্রকাশ করেছে। চীনের কয়েকটি কোম্পানি দেশে কম্পিউটার ও মোবাইল ফোনের হার্ডওয়্যার কারখানা স্থাপনে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। এ বিষয়ে তারা সরকারের সঙ্গে আলোচনা করছে।

দেশীয় কোম্পানি ওয়ালটন ইতোমধ্যে এ খাতে প্রায় ১ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগের পরিকল্পনা করেছে। স্যামসাং প্রায় ৫০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করার লক্ষ্য নিয়ে এগোচ্ছে। অন্য কোম্পানিগুলোও ৩০০ থেকে ৫০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করে দেশে আধুনিক কারখানা স্থাপন করতে চায়।

এর আগে সরকারি উদ্যোগে বাংলাদেশ টেলিফোন শিল্প সংস্থায় দোয়েল ব্র্যান্ডের ল্যাপটপ উৎপাদন শুরু হয়েছিল। সেটি বেশি দূর এগোতে পারেনি। বন্ধ হয়ে গেছে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে