• অারও

সোনারগাঁয়ের টাঁকশাল

  গবেষক হাজি মোহাম্মদ মহসীন

২৯ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এখানে প্রথম এ অঞ্চলের মুদ্রা তৈরি শুরু হয়। সোনারগাঁ মানেই রাজরাজাদের কীর্তিসমৃদ্ধ এক প্রাচীন জনপদ। ১৩৩৮ সালে ফখরুদ্দিন মোবারক শাহ নিজের নামে মুদ্রা প্রবর্তন করেন। এখানে এসব মুদ্রা ছাপানো হতো এবং ভল্টে সংরক্ষণ করে রাখা হতো। এসব কাহিনি তুল ধরেছেন গবেষক হাজি মোহাম্মদ মহসীন

রাজধানী ঢাকা শহর থেকে মাত্র ২৭ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিলেই আসা যাবে সোনারগাঁ পৌরসভার পানাম নগরীতে। এ নগরীতে ক্রোড়িবাড়ি টাঁকশাল কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। এখানে প্রথম এ অঞ্চলের মুদ্রা তৈরি শুরু হয়। সোনারগাঁ মানেই রাজরাজাদের কীর্তিসমৃদ্ধ এক প্রাচীন জনপদ। পানাম নগরীর আশপাশে যে আরও অনেক অতীতের স্মৃতিচিহ্ন ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে তা অনেকেরই অজানা, যা খুঁজে বের করা কষ্টকরও। সোনারগাঁয় বেড়াতে আসা পর্যটকদের জন্য কর্তৃপক্ষ এখনো পর্যন্ত দিকনির্দেশনামূলক কোনো গাইডবই অথবা নামফলক তৈরি করতে পারেনি। তাই তো ক্রোড়িবাড়ি টাঁকশালের মতো একটি দুর্লভ স্থাপনা ভ্রমণপিপাসু পর্যটকদের দৃষ্টির বাইরেই থেকে যাচ্ছে। ক্রোড়িবাড়িটি সরকারি কোষাগার হিসেবে সবার কাছে বেশ পরিচিত ছিল। দ্বিতল ভবনটিতে দোচালা স্থাপত্যশৈলী ব্যবহৃত হয়েছে। সরু জাফরি ইটের সুচিত্রিত ভবনের চারদিকে রয়েছে নিরাপত্তাপ্রাচীর। ক্রোড়িবাড়িটি মুসলিম ও সনাতন স্থাপত্যের সংমিশ্রণে নির্মিত। বাড়ির দেয়ালে লতাপাতার ঢেউ খেলানো ফুলগাছ অলঙ্করণশৈলী পরিলক্ষিত। ইমারতের ভেতরে অনেক কুঠরি দেখে অনুমান করা যায় এটি ট্রেজারার হাউস। ক্রোড়িবাড়ির উত্তর পাশে রয়েছে দুই একর জমির ওপর বিশাল দীঘি। এতে শান বাঁধানো ঘাট রয়েছে। কথিত আছে, সরকারি কোষাগারে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা দীঘিটি ব্যবহার করতেন। তখন ওই বাড়িতে মাটির নিচের কুঠুরিতে সোনার মোহর ও সরকারি মুদ্রা সংরক্ষণ করা হতো। বাড়িটি দেখলে শানশওকতের কথা মনে করিয়ে দেবে।

ঐতিহাসিকদের মতে, সুলতান ফকরুদ্দিন মোবারক শাহ ১৩৩৮ খ্রিস্টাব্দে নিজেকে পূর্ব বাংলার স্বাধীন রাজা ঘোষণা করে সুলতান সিকান্দার শাহ উপাধি ধারণ করে শাসনকার্য পরিচালনা শুরু করেন। দিল্লির সম্রাটের আনুগত্য অস্বীকার করে নিজেকে স্বাধীন বলে ঘোষণা করায় সম্রাট গৌড়ের সুবদার কদর খানকে তার বিরুদ্ধে পাঠান। কদর খানকে কৌশলে হত্যা করে ফখরুদ্দিন মোবারক শাহ নিজের নামে মুদ্রা প্রবর্তন করেছেন। তিনি জীবদ্দশায় দীর্ঘ ১৪ বছর রাজত্ব কায়েম করেছেন। তখন থেকেই তিনি বর্তমান সোনারগাঁ পৌরসভার পানাম নগরীর সন্নিকটে ট্রেজার হাউস (ক্রোড়িবাড়ি টাঁকশাল) থেকে নিজের নামে তিনটি মুদ্রার প্রচলন চালু করেন। বিখ্যাত ব্রাডলিবার্ট রোমান্স অব ক্রান্ড ইস্টার্ন ক্যাপিটাল গ্রন্থে ক্রোড়িবাড়ি সম্পর্কে উল্লেখ করেছেন। আরও উল্লেখ আছে, জগদ্বিখ্যাত পরিব্রাজক ইবনে বতুতা ১৩৪৫ খ্রিস্টাব্দে ক্রোড়িবাড়ি টাঁকশালের বেশ বর্ণনা ও তার ভ্রমণবৃত্তান্তে উল্লেখ করেছেনÑ সে সময় এক টাকায় ১৫ মণ চাল, এক টাকায় আটটি মুরগি, চার আনায় ১২ সের তেল কেনা যেত।

সোনারগাঁ জিআর ইনস্টিটিউশনের শিক্ষক বাবু অসীম কুমার দাস গুপ্ত পৈতৃক সূত্রে ওই ক্রোড়িবাড়িটির মালিকানা দাবি করায় এটি সংরক্ষণের ব্যাঘাত ঘটছে বলে অনেকেই দাবি করছেন। প্রতœতত্ত্ব অধিদপ্তরের আওতায় পানাম নগরীর দায়িত্বে থাকা প্রকৌশলী মো. জাহাঙ্গীর আলম ভূঁইয়া জানান, ক্রোড়িবাড়িটি প্রতœতত্ত্ব সম্পদের তালিকাভুক্ত, তবে একজন মালিকানা দাবি করায় এটি সংরক্ষণে সমস্যা হচ্ছে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে