আগ্রহ বাড়ছে করদাতাদের

  নাজমুল হুসাইন

১৮ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আয়কর মেলার প্রতি করদাতাদের আগ্রহ বাড়ছে। মেলা থেকে করদাতারা সেবা পাওয়ায় প্রতিবছরই তারা বেশি করে মেলায় যাচ্ছেন। আয়করও আদায় হচ্ছে বেশি। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডও রাজস্ব আয় বাড়ানোর কৌশল হিসেবে মেলাকে বেছে নিয়েছে। করদাতারা মেলা থেকে সহজে ও হয়রানিমুক্ত সেবা পাচ্ছেন। যে কারণে মেলার প্রতি তাদের আগ্রহ বেড়েই চলেছে।

দেশের ৭৭টি স্থানে আয়কর মেলা হচ্ছে। ওই চার দিনে সারাদেশে মেলা থেকে আয়করসংক্রান্ত সেবা নিয়েছেন নয় লাখ মানুষ। এর মধ্যে আয়কর রিটার্ন জমা দিয়েছেন ৬ লাখ ৬১ হাজার জন। তাদের কাছ থেকে কর আদায় হয়েছে ১ হাজার ২৬৭ কোটি টাকা, যা গত বছরের চেয়ে প্রায় ১৭ শতাংশ বেশি।

মেলায় করদাতাদের জন্য নতুন ই-টিআইএন, বৃহৎকর দাতা ইউনিট, কেন্দ্রীয় জরিপ অঞ্চল, সিনিয়র সিটিজেন করদাতা, প্রতিবন্ধী করদাতা ও মুক্তিযোদ্ধা করদাতা এবং ১৫টি কর অঞ্চলসহ কর রিটার্ন দাখিলের জন্য মোট বুথ রয়েছে ৪৭টি। সোনালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, ই-পেমেন্ট ও বেসিক ব্যাংকের মোট ২৬টি বুথে সেবা দেওয়া হচ্ছে।

মেলা শুরুর পর থেকে পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে। প্রতিবছরই মেলার স্পটের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। একই সঙ্গে বেড়েছে সেবাগ্রহীতা, রিটার্ন দাখিল ও নতুন টিআইএনধারীর সংখ্যা। সর্বশেষ গতবার ১৬৭টি স্পটে আয়কর মেলার আয়োজন করা হয়। মেলায় সেবা নেন ৯ লাখ ২৮ হাজার ৯৭৩ জন। আয়কর রিটার্ন জমা নেন ৩ লাখ ৩৫ হাজার ৪৮৭ জন। আয়কর আদায় হয় ২ হাজার ২১৭ কোটি টাকা।

এবারও বাড়ানো হয়েছে মেলার পরিধি। সেই সঙ্গে ক্রমবর্ধমান হারে বাড়ছে করদাতাদের রিটার্ন জমা। মেলার কর অঞ্চল-৩-এর ১২(ক) নম্বর বুথের কর্মকর্তা মো. রমজান আলী আমাদের সময়কে বলেন, এ বছর মেলার আয়তন ও সেবার পরিমাণ বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে করদাতাদের রিটার্ন দাখিলের পরিমাণও বেশি। এখানে প্রতিটি বুথে প্রতিদিন গড়ে ১ হাজার থেকে ১ হাজার ২০০ রিটার্ন জমা পড়ছে।

মেলায় কথা হয় শুভ্র দাস শিমুল নামে একজন করদাতার সঙ্গে; পেশায় তিনি ব্যবসায়ী। তিনি মেলায় এসে কেন কর দিচ্ছেন সে বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, ঝামেলা এড়াতে মেলায় রিটার্ন দাখিল করেন। সময় অনেক কম লাগে। হয়রানি নেই। অনেক সহজে করা যায়। মেলায় যেসব সেবা পাওয়া যাচ্ছে, অন্য সময় সেসব সেবা পাওয়া যায় না। তাই আমি মেলায় এসে কর দিয়েছি। প্রতিবছরই মেলায় এসে কর রিটার্ন দাখিল করি। মেলায় তাদের সেবার মান ভালো।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে