চাই সর্বোচ্চ শাস্তি

  এমি জান্নাত

১২ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | আপডেট : ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:৪৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানীর ডেমরায় গত সোমবার দুই শিশু ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। শিশু দুজন ফারিয়া আক্তার দোলা (৫) ও নুসরাত জাহান (৪) ওইদিন দুপুর থেকে নিখোঁজ ছিল। রাত ৯টার দিকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। ডেমরা থানায় এদের বিরুদ্ধে গুম ও হত্যা মামলা দায়ের করা হয় এবং এই অপরাধে মোস্তফা ও আজিজুল নামে অভিযুক্ত দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। জানা যায়, মোস্তফা ও আজিজুল দুজন সম্পর্কে আত্মীয়। মোস্তফার কথা অনুযায়ী তারা দুজন ইয়াবা সেবন করে শিশু দুটিকে ধর্ষণের পরিকল্পনা করে। পরে শিশুরা চিৎকার করলে সাউন্ড প্লেয়ারে উচ্চশব্দে গান বাজিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

একের পর এক নারীর প্রতি সহিংসতার দৃষ্টান্ত হয়ে দাঁড়াচ্ছে আমাদের চারপাশে ঘটে যাওয়া এসব ঘৃণ্য অপরাধ। যথাযথ শাস্তির প্রয়োগ না হলে পুরুষের এমন জঘন্য অপরাধের প্রবণতা বেড়ে যাবে শতগুণ। বুক ফুলিয়ে তারা হেঁটে বেড়াবে আর দশটা সাধারণ মানুষের মতো। কিন্তু শিশু ধর্ষণ ও হত্যার মতো অপরাধ যারা করে তারা পশুর চেয়েও হীন। ধর্ষণ, হত্যা এসব অপরাধ সর্বোচ্চ অপরাধ এবং আইনে এর শাস্তির বিধানও সর্বোচ্চ।

এ বিষয়ে বিশিষ্ট আইনজীবী ও মানবাধিকারকর্মী দিলরুবা শরমিন মতামত দিয়ে বলেন, ‘গত সোমবারের ধর্ষণ এবং হত্যার এ ঘটনার প্রতিবাদে কোনো নারী কল্যাণ সংস্থা বা মানবাধিকার সংস্থার প্রতিবাদসভা, মানববন্ধন, স্মারকলিপি তৈরির মতো কোনো পদক্ষেপ এখনও পর্যন্ত লক্ষ করা যাচ্ছে না। তিনি আরও বলেন, শুধু সাংবাদিকরা বিষয়টিকে খুব তৎপরভাবে দেখছেন। বাকি প্রতিবাদগুলোর বেশিরভাগ ফেসবুক ও সামাজিক গণমাধ্যমে হচ্ছে। শুধু একজন বা একটি-দুটি উদ্যোক্তা সংস্থা নয়, সবাইকে কাজ করতে হবে একযোগে। এই অপরাধ এতটাই দুর্ধর্ষ যে মৃত্যুদ-ই এর শাস্তি হওয়া উচিত, যেখানে আর কোনো বিকল্প থাকা উচিত না। একটি-দুটি প্ল্যাটফর্ম না, অসংখ্য প্ল্যাটফরম তৈরি করতে হবে প্রতিবাদের উৎস হিসেবে। তিনি বলেন, তাই শুধু ধর্ষণ না, সব অপরাধের কঠোর শাস্তির জন্য বর্তমান সরকার এবং রাজনৈতিক ব্যক্তিদের জোরালো হস্তক্ষেপ ও দৃষ্টিভঙ্গি প্রত্যাশা করেন, যেন মূল থেকে এসব অপরাধ দমন করা যায়।

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে