টিপস

অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন কেনার আগে যেসব বিষয় জেনে রাখা উচিত

  অনলাইন ডেস্ক

০৩ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ০৩ জুলাই ২০১৮, ০০:২৪ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রসেসর (চৎড়পবংংড়ৎ) : যেসব কাজ প্রসেসর করতে পারে, তাকে বলা হয় ইনস্ট্রাকশন সেট। একটি অ্যান্ড্রয়েড ফোন কেনার আগে প্রথমেই দেখতে হবে ইনস্ট্রাকশন সেট কোনটি। যদি প্রসেসর অজগা৭ বা এর পরের হয়, তা হলে প্রসেসরটি উন্নত মানের। এরপর হচ্ছে প্রসেসরের গঠন বা আর্কিটেকচার।

প্রসেসরের আর্কিটেকচার : অজগা৭-এর মধ্যে আর্কিটেকচার) মূলত পাঁচ ধরনের। এগুলো হচ্ছেÑ ঈড়ৎঃবী অ৫, অ৭, অ৮, অ৯ ও অ১৫. প্রত্যেকটি কোম্পানিই এই পাঁচ ধরনের অৎপযরঃবপঃঁৎব (আর্কিটেকচার) মেনেই চৎড়পবংংড়ৎ তৈরি করা হয়ে থাকে। ঈড়ৎঃবী অ১৫ সবচেয়ে শক্তিশালী। সাম্প্রতিক সময়ে বাজারে আসা অহফৎড়রফ ঝসধৎঃচযড়হব কেনার সময় সম্ভব হলে ঈড়ৎঃবী অ৯ দেখে নেওয়া উচিত। আর তা না হলে ঈড়ৎঃবী অ৭.

প্রসেসরের কাজের গতি : ঈষড়পশ ঝঢ়ববফ যত বেশি হবে, তত ভালো। প্রসেসরের আরেকটি বিষয়, চৎড়পবংংড়ৎ মাল্টিকোর (গঁষঃরঈড়ৎব) কিনা? উঁধষ ঈড়ৎব মানে দুটি প্রসেসর, ছঁধফ ঈড়ৎব মানে চারটি প্রসেসর। ঠিক এমনিভাবে ঐবীধ ঈড়ৎব মানে ছয়টি প্রসেসর এবং ঙপঃধ ঈড়ৎব মানে আটটি প্রসেসর। প্রসেসরের ঈড়ৎবই সবকিছু নয়। প্রসেসর কোন অৎপযরঃবপঃঁৎব-এর, সেটা বড় ব্যাপার।

র্যাম : আমাদের ফোন মেমোরি প্রসেসর যে হারে কাজ করে, সেই হারে ডাটা প্রক্রিয়া করতে পারে না। তাই ডাটা আগে র্যামে নেওয়া হয়, যা অনেক দ্রুত কাজ করে। জধস যত বেশি, তত বেশি ডাটা দ্রুত প্রসেসরে যেতে পারে। ফলে ফোন অনেক দ্রুত কাজ করে ফেলতে পারে।

জিপিইউ : স্মার্টফোনে জিপিইউ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। নিচে বিভিন্ন শ্রেণির জিপিউইর তালিকা দেওয়া হলো। প্রথম শ্রেণির কিছু জিপিইউ অফৎবহড় ৪২০, চড়বিৎঠজ এ৬৪৩০, অজগ গধষর-ঞ৬২৮, চড়বিৎঠজ এঝঢ ৫৪৪ গচ৪, অজগ গধষর-ঞ৬০৪, ঘঠওউওঅ এবঋড়ৎপব ঞবমৎধ ৪, চড়বিৎঠজ ঝএঢ৫৪৩ গচ৪, অফৎবহড় ৩২০, চড়বিৎঠজ ঝএঢ৫৪৩ গচ২, চড়বিৎঠজ ঝএঢ৫৪৫. এখানে শ্রেণি মানেই সবকিছু নয়। তবে যত ভালো এচট হবে, তত ভালো পারফরম্যান্স পাওয়া যাবে।

পিপিআই : পিপিআই যদি কম হয়, সে ফোনে ভালো মানের গ্রাফিক্স পাওয়ার আশা করা যায় না। তবে পিপিআই যত বেশি, ফোনের দামও তত বেশি! চচও-২৫০ নিচে না কেনাই ভালো।

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে