সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের ৭ পরিচালকের পদত্যাগ

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৫ নভেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ১৫ নভেম্বর ২০১৭, ০০:০৭ | প্রিন্ট সংস্করণ

অনিয়মের অভিযোগ ওঠায় চেয়ারম্যান, পরিচালক ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকের (এমডি) পদত্যাগের পর সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকে (এসআইবিএল) ফের বড় পরিবর্তন ঘটেছে। এবার ৭ জন পরিচালক পদত্যাগ করেছেন। পরে নতুন করে ৯ জন পরিচালক নিয়োগও দেওয়া হয়েছে। এর আগে ৩০ অক্টোবর চেয়ারম্যান ও এমডিসহ ৩ পরিচালক পদত্যাগ করেন।

সূত্র জানায়, গতকাল অনুষ্ঠিত বোর্ডসভায় পরিচালকরা পদত্যাগ করেন। বর্তমান বোর্ডে থাকা ৪ স্বতন্ত্র পরিচালকই পদত্যাগ করেছেন। এ ছাড়া পদত্যাগ করেন শেয়ারধারী ৩ পরিচালক। পদত্যাগকারী ৪ স্বতন্ত্র পরিচালক হলেন মো. আবদুর রহমান, আবদুল মহিত, এএফএম আসাদুজ্জামান ও মইনুল হাসান। শেয়ারধারী ৩ পদত্যাগী পরিচালক হলেন ড. হাকিম মো. ইউসুফ হারুন ভূঁইয়া, লিলি আমিন ও আফিয়া বেগম। হামদর্দ ল্যাবরেটরিজ (ওয়াক্ফ) বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান মোতাওয়াল্লী ইউসুফ হারুন; ডা. লিলি আমিন হচ্ছেন আগের চেয়ারম্যান মেজর রেজাউল হকের স্ত্রী এবং এসআইবিএল ফাউন্ডেশন হসপিটাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

ওই সভায় নতুন করে নয়জন পরিচালক নিয়োগ দেওয়া হয়। এরই মধ্যে ৭ জন স্বতন্ত্র ও ২ জন শেয়ারধারী পরিচালক। নতুন পরিচালকদের নাম জানা যায়নি।

ব্যাংকটির চেয়ারম্যান আনোয়ারুল আজিম আরিফ বলেন, ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে তারা পদত্যাগ করেন। নতুন ৯ পরিচালক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

একটি সূত্র জানায়, ব্যাংকের কর্মকা-ে অস্বচ্ছতা, চেয়ারম্যান ও কয়েকজন পরিচালকের স্বেচ্ছাচারিতা, আর্থিক অনিয়ম এবং সম্ভাব্য নাশকতামূলক কর্মকা-ে অর্থায়নে এসআইবিএলের সম্পৃক্ততা তদন্তে পাওয়া গেছে। ব্যাংকের টাকা রাজনৈতিক কাজে ব্যবহার, জঙ্গি ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন, ঋণ বিতরণের অনিয়ম করে ব্যাংকের টাকা তছরুপের অভিযোগ ওঠে ব্যাংকের বিদায়ী চেয়ারম্যান মেজর (অব.) ডা. রেজাউল হকের বিরুদ্ধে। এ অভিযোগের মধ্যে ৩০ অক্টোবর রাজধানীর একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত বোর্ড মিটিংয়ে পদত্যাগপত্র পাঠান চেয়ারম্যান ডা. রেজাউল হক, নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান আনিসুল হক ও এমডি শহীদ হোসেন। ওই সভায়ই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক আনোয়ারুল আজিম আরিফকে চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করা হয়। সভায় পরিচালক মনোনীত হওয়া বেলাল আহমেদ ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এ ছাড়া ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ওসমান আলী এমডি হিসেবে নিয়োগ পান। ওই দিন রাতেই বাংলাদেশ ব্যাংক পুরো প্রক্রিয়ার অনুমোদন দিলেই পরদিন কাজে যোগদান করেন নতুন নির্বাচিতরা। পরে কোম্পানি সচিব হুমায়ন আহমদকে সরিয়ে সেখানে আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের কোম্পানি সচিব আব্দুল হান্নান খানকে নিয়োগ দেওয়া হয়।

যারা পদত্যাগ করেছেন, তারা সবাই আগের চেয়ারম্যানের অনৈতিক কর্মকা-ের সহায়তাকারী। এ ছাড়া নিজের পক্ষের শক্তিশালী গ্রুপ তৈরি করার জন্য নিজের পছন্দের ৪ জনকে স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগ দেন মেজর রেজাউল হক। আগের চেয়ারম্যানের অবস্থার কারণে ওই ৭ পরিচালক পদত্যাগ করেছেন বলে জানা গেছে।

পরিচালকদের পদত্যাগ ও নতুন নিয়োগের বিষয়ে জানতে কোম্পানি সচিব আবদুল হান্নান খানকে ফোন দিলে অন্যপ্রান্ত থেকে প্রতিবেদকের পরিচয় জানার পর জানান, এটি আবদুল হান্নান খানের মোবাইল নম্বর; কিন্তু তিনি কারো সঙ্গে কথা বলবেন না।

চলতি বছর শুরুর দিকে ইউনাইটেড গ্রুপ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নামে ব্যাংকটির প্রায় ৩১ শতাংশ শেয়ার কিনে নেয়। ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের একাধিক পরিচালক হওয়ার জন্য গ্রুপটি শেয়ার কেনে। কিন্তু নানা কারণে সেটি সম্ভব না হওয়ায় তারা পর্যায়ক্রমে কেনা শেয়ার ছেড়ে দেয়। তখন ব্লক মার্কেট থেকে ওই শেয়ার কিনে নেয় এস আলম গ্রুপের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ২০ প্রতিষ্ঠান। এ ছাড়া বাইরে থেকেও তারা শেয়ার কেনে। নতুন নিয়োগ পাওয়া চেয়ারম্যান ও পরিচালক এস আলম সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে মনোনীত। এ ছাড়া এমডি ও কোম্পানি সচিব গ্রুপটির মালিকানাধীন অন্য ব্যাংক থেকে এসেছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে