ঐক্যের চেষ্টায় আ.লীগ স্বস্তি আসেনি জাপায়

কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় বিএনপি

  নজরুল মৃধা, রংপুর

১৯ নভেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ১৯ নভেম্বর ২০১৭, ১৩:৩৫ | প্রিন্ট সংস্করণ

সিটি করপোরেশন নির্বাচন উপলক্ষে রংপুরের সরকারি দপ্তরের প্রধানরা এখন ঢাকায় অবস্থান করছেন। আজ রবিবার সকালে এসব কর্মকর্তার সঙ্গে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বৈঠক করবেন। বৈঠকে নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণসহ সার্বিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হবে বলে জানিয়েছে রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন অফিস। এদিকে গতকাল শনিবার সকালে দলীয় কার্যালয়ে সভা করে নির্বাচনী ঐক্য গড়ে তোলার চেষ্টা করছে জেলা আওয়ামী লীগ। সেখানে মেয়র প্রার্থী সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু উপস্থিত ছিলেন। আর চারদিন আগে রংপুর বিএনপি থেকে মেয়র পদে সম্ভাব্য ৫ প্রার্থীর নামের তালিকা পাঠালেও কেন্দ্র থেকে এখন পর্যন্ত কোনো চূড়ান্ত ঘোষণা আসেনি। এতে হতাশায় রয়েছেন দলটির নেতাকর্মীরা। তারা কেন্দ্রের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় রয়েছেন। এ ছাড়া সাবেক হয়ে যাওয়া জাতীয় পার্টির দুই নেতা মূল দলের অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য করতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার আজ ঢাকায় বৈঠক ডেকেছেন। বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন রংপুরের বিভাগীয় কমিশনার কাজী হাসান আহমেদ, ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক, জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা সুভাষ রায়, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জিএম সাহতাব উদ্দিন। এ ছাড়াও রংপুর র‌্যাব, আনসার ভিডিপি প্রধান, বিজিবি কমান্ডার, এনএসআই এবং ডিজিএফআই প্রধানগণ উপস্থিত থাকবেন। এসব কর্মকর্তা গতকালই ঢাকার উদ্দেশে রংপুর ছেড়েছেন।

আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা সুভাষ রায় জানান, প্রধান নির্বাচন কমিশনার সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের লক্ষ্যে এ সভা ডেকেছেন। সভায় সিটি করপোরেশনের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিসহ সার্বিক বিষয়ে আলোচনা হবে। তিনি আরও জানান, আগামী ২২ নভেম্বর একজন নির্বাচন কমিশনার রংপুরে আসবেন। এ ছাড়া নির্বাচনের আগে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের রংপুর সফরের সম্ভাবনা রয়েছে।

এদিকে গতকাল শনিবার পর্যন্ত মেয়র পদে ১২ জন, কাউন্সিলর পদে ১৮০ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ৫৭ জন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। তাদের মধ্যে বেশ কজন মনোনয়ন ফরম জমাও দিয়েছেন।

শনিবার সকালে জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে নির্বাচনী ঐক্য গড়ার লক্ষ্যে সভা হয়েছে। সেই সভায় দলীয় মেয়র প্রার্থী সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু উপস্থিত ছিলেন। তিনি সব নেতাকর্মীর প্রতি অতীতের ভুলত্রুটি ও ভেদাভেদ ভুলে নৌকা মার্কার পক্ষে কাজ করার আহ্বান জানান। নেতাকর্মীরাও তাকে আশ্বস্ত করেন। বেশ কজন নেতাকর্মী জানান, দীর্ঘদিন থেকে মেয়র প্রার্থী ঝন্টুর সঙ্গে দলের নেতাকর্মীদের দূরত্ব ছিল। নির্বাচনী সভায় এ দূরত্ব অনেকটা কমেছে। শুক্রবার মহানগর আওয়ামী লীগ একই ধরনের সভা করে। সভায় ঝন্টুকে ডাকা হয়নি। তবে সন্ধ্যার দিকে তিনি ওই সভায় যোগ দেন।

গত মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) মেয়র পদে বিএনপির সম্ভাব্য পাঁচ প্রার্থীর নাম কেন্দ্রে পাঠানো হলেও এখনো কাউকে মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। ফলে দলের নেতাকর্মীদের মাঝে এক ধরনের হতাশা লক্ষ করা গেছে। তারা এখনো নিশ্চিত হতে পারছেন না, বিএনপি এ নির্বাচনে অংশ নেবে কিনা।

রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে জাতীয় পার্টিতে অস্বস্তি কাটছে না। পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ছাড়াও পার্টির সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক পৌর মেয়র আবদুর রউফ মানিক এবং সাবেক এমপি এরশাদের ভাতিজা আসিফ শাহরিয়ার নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন। জাতীয় পার্টির প্রার্থী হচ্ছেন মহানগর নেতা মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে