কানাডার আমন্ত্রণে না

প্রকাশ | ১০ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট: ১০ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:১১

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীর সঙ্গে দেখা করেছেন কানাডিয়ান দুই সহকারী হাইকমিশনার। তাদের নাম ব্যারি ব্রিস্টম্যান (কাউন্সেলর রাজনৈতিক) ও জেমস স্টোন (প্রধান সচিব, রাজনৈতিক সম্পর্ক)। গত সোমবার সন্ধ্যায় ওই দুই সহকারী হাইকমিশনার হেফাজতে ইসলামের আমির ও কয়েক নেতার সঙ্গে হেফাজতে ইসলামের কার্যালয়ে বৈঠক করেন। তারা হেফাজতে ইসলামের আমিরকে কানাডা সফরের আমন্ত্রণ জানান। হাটহাজারী দারুল উলুম মুঈনুল ইসলামের (হাটহাজারী মাদ্রাসা) অভ্যন্তরে হেফাজতের কার্যালয় অবস্থিত।

বৈঠক সূত্র জানায়, কানাডার দুই সহকারী হাইকমিশনার প্রায় দেড় ঘণ্টা সেখানে অবস্থান করেন। এ সময় বিভিন্ন ইস্যুতে একান্ত আলাপ করেন তারা। বিকাল ৫টার দিকে হাটহাজারী মাদ্রসায় কানাডীয় দুই সহকারী হাইকমিশনারকে অভ্যর্থনা জানান হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মঈনুদ্দীন রুহি। এ দুই সহকারী হাইকমিশনারের একজন ভারতে ও অন্য জন বাংলাদেশে কর্মরত।

বৈঠকে কোন কোন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছেÑ জানতে চাইলে হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মঈনুদ্দীন রুহি আমাদের সময়কে বলেন, প্রায় ৯০ শতাংশ মুসলমানের এ দেশে ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের জীবনযাত্রার মান এবং তাদের নিয়ে হেফাজতের চিন্তাভাবনা, সাম্প্রতিক সময়ের জঙ্গিবাদ ও রোহিঙ্গা ইস্যু আলোচনায় প্রাধান্য পেয়েছে। তারা রোহিঙ্গাদের শিক্ষার নানা দিক নিয়েও কথা বলেন।

এ ছাড়া বৈঠকে তারা কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে হেফাজতের সম্পর্ক আছে কিনা জানতে চান। এ সময় হেফাজতের আমির তাদের নিশ্চিত করেন হেফাজতে ইসলাম কোনো রাজনৈতিক দল নয় এবং কোনো দলকেও সমর্থন করে না। তবে ইসলামি দলকে পছন্দ করেন এবং ধর্মীয় ইস্যুতে তাদের সমর্থনও দিয়ে থাকেন বলে হেফাজতের আমির তাদের জানান।

কানাডা সফরে অপারগতা জানিয়ে হেফাজতের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী বলেন, ইতিপূর্বে যুক্তরাষ্ট্র এবং অস্ট্রেলিয়াও তাকে সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছিল; কিন্তু শারীরিক অক্ষমতায় তার বিদেশ সফর সম্ভব নয়। তবে কানাডা সফরের আমন্ত্রণ জানানোয় তিনি উপস্থিত দুই কুটনীতিককে ধন্যবাদ জানান।

বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন হেফাজতে ইসলামের অর্থ সম্পাদক মোজাম্মেল হক, হেফাজতের নেতা মাওলানা সাদেক উল্যাহ, মাওলানা মোহাম্মদ আলমগীর, মাওলানা ওলি উল্যাহ, মাওলানা মোহাম্মদ হারুণ ও মাওলানা দেলোয়ার হোসেন।