কোরাম ছাড়াই চলল সংসদ অধিবেশন

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১২ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১২ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:১৮ | প্রিন্ট সংস্করণ

সংসদে গতকাল বৃহস্পতিবারের অধিবেশনে এক পর্যায়ে কোরাম সংকট সৃষ্টি হলেও সেটি কারও নজরে আসেনি; কোরাম ছাড়াই অধিবেশন চলেছে বিরতিহীন। বিএনপিবিহীন দশম সংসদের ঊনবিংশতম অধিবেশনের চতুর্থ কার্যদিবসে ঘটে এ ঘটনা। বেসরকারি সদস্য দিবসে গতকাল বিকাল সাড়ে ৪টায় স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশন শুরু হয়। বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম।

মাগরিবের নামাজের বিরতির পর অধিবেশন শুরু হলে প্রথমে প্রশ্নোত্তর পর্ব শেষ হয়। সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও তখন অধিবেশন কক্ষে ছিলেন। প্রশ্নোত্তর পর্ব শেষে ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া ৭১ বিধিতে জরুরি জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে মনোযোগ আকর্ষণ বিধির নোটিসগুলো নিষ্পত্তি করেন।

নোটিস দেওয়া অধিকাংশ সদস্যই ছিলেন অনুপস্থিত। এ ছাড়া এদিন বিরোধী দলের হুইপ নুরুল ইসলাম ওমরের একটি নোটিসের জন্য ডেপুটি স্পিকার তার দৃষ্টি আকর্ষণ করলেও তিনি তা শুনতে পাননি। তিনি তখন সহকর্মীদের সঙ্গে কথা বলছিলেন। এক সময় ফজলে রাব্বী মিয়া সংসদে মনোযোগী হওয়ার জন্য অনুরোধ জানান নুরুল ইসলাম ওমরকে।

বেসরকারি সদস্যদের সিদ্ধান্ত প্রস্তাব চলাকালে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে অধিবেশন কক্ষে উপস্থিত সদস্যসংখ্যা ডেপুটি স্পিকারসহ ৫৮ তে নেমে আসে। সংবিধান অনুযায়ী, কোরাম পূর্ণ করতে অন্তত ৬০ সদস্যের উপস্থিতি প্রয়োজন ছিল।

মন্ত্রীদের মধ্যে এ সময় উপস্থিত ছিলেন মতিয়া চৌধুরী, নুরুল ইসলাম নাহিদ, আসাদুজ্জামান খান কামাল এবং টেকনোক্রেটমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি।

কোরাম সংকট হলে অধিবেশনে সভাপতিত্বকারীর দৃষ্টি আকর্ষণ করতে হয়। যদি কোনো সদস্য দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তবে স্পিকার কোরাম হওয়ার জন্য ৫ মিনিট ধরে ঘণ্টা বাজানোর নির্দেশ দেবেন। এর মধ্যে কোরাম না হলে স্পিকার অধিবেশন মুলতবি রাখবেন।

গতকাল বেসরকারি সদস্যদের সিদ্ধান্ত প্রস্তাব জমা দেন পাবনার সংসদ সদস্য শামসুল হক টুকু, চট্টগ্রামের মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী ও দিদারুল আলম, ঢাকার এমএ মালেক এবং ফেনীর রহিম উল্লাহ। এর মধ্যে প্রথম তিনজনই অধিবেশন কক্ষে অনুপস্থিত ছিলেন।

প্রশ্নোত্তর পর্বেও প্রশ্নকারী একাধিক সদস্য অনুপস্থিত ছিলেন। এর মধ্যে শুরুর প্রশ্নকারী মৌলভীবাজারের আবদুল মতিন অনুপস্থিত ছিলেন। তিন নম্বর প্রশ্নকারী আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইনও ছিলেন না।

কোরাম সংকটে অধিবেশন চালিয়ে গেলেও নির্ধারিত সময়ের আগেই রাত ৮টা ২০ মিনিটে অধিবেশন রবিবার পর্যন্ত মুলতবি করেন ডেপুটি স্পিকার।

তখন রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনা ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনা চলছিল। একাধিক সদস্যের বক্তব্য দেওয়ার কথা থাকলেও একজনকে সুযোগ দিয়ে অধিবেশন মুলতবি করেন ফজলে রাব্বী মিয়া।

সংসদ সচিবালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, সংসদ সদস্যদের উপস্থিতি কম ছিল বলে একটু আগে অধিবেশন মুলতবি হয়েছে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে