• অারও

ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান এইউর

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৪ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৪ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:১৪ | প্রিন্ট সংস্করণ

আফ্রিকার অভিবাসীদের নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্য করায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে আফ্রিকান ইউনিয়নের (এইউ) দেশগুলো। ট্রাম্প আফ্রিকার দেশগুলোকে ‘অত্যন্ত নোংরা ও বসবাসের অযোগ্য’ বলে মন্তব্য করার পর তার প্রতি এ আহ্বান জানানো হলো। এর আগে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগ তুলেছেন জাতিসংঘ মানবাধিকার দপ্তরের মুখপাত্র রুপার্ট কলভিল।

বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউসের ওভাল অফিসে অভিবাসন নিয়ে একটি চুক্তির বিষয়ে আইনপ্রণেতাদের সঙ্গে আলাপকালে আফ্রিকার কয়েকটি দেশের অভিবাসীদের নিয়ে ওই মন্তব্য করেন ট্রাম্প।

আফ্রিকান ইউনিয়নের দপ্তর ট্রাম্পের বক্তব্যে ‘হতাশা ও ক্ষোভ’ প্রকাশ করে বলেছে, ট্রাম্প প্রশাসন আফ্রিকার জনগণকে বুঝতে ভুল করেছে। ট্রাম্প বলেছিলেনÑ ‘কেন আমরা নোংরা দেশগুলো থেকে এসব লোককে এখানে (যুক্তরাষ্ট্রে) নিয়ে আসছি?’ শুক্রবার এ বক্তব্য গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর নিজেকে বাঁচাতে ট্রাম্প দাবি করেছেনÑ তিনি ওই পরিভাষা ব্যবহার করেননি।

হোয়াইট হাউসে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে উপস্থিত দুই রিপাবলিকান সিনেটর ট্রাম্পের আত্মপক্ষ সমর্থন করে দেওয়া বক্তব্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। ডেমোক্র্যাট সিনেটর ডিক ডারবিন বলেছেন, ট্রাম্প আফ্রিকার দেশগুলোকে বেশ কয়েকবার ‘অত্যন্ত নোংরা’ বলে অভিহিত করেছেন এবং বহুবার ‘বর্ণবাদী’ পরিভাষা ব্যবহার করেছেন।

এর বিপরীতে আফ্রিকার দেশগুলোর পক্ষ থেকে এক যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, জাতিসংঘে আফ্রিকান দেশগুলোর রাষ্ট্রদূতরা ট্রাম্পের এই বিবৃতিতে চরম ক্ষুব্ধ এবং বর্ণবাদী ও অযৌক্তিক এ মন্তব্যের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে।

ট্রাম্পের মন্তব্যের ইস্যুতে একটি জরুরি অধিবেশনের পর আফ্রিকান দেশগুলোর জোট জানায়, আফ্রিকান দেশ ও এখানকার মানুষের প্রতি মার্কিন প্রশাসনের অব্যাহত ও ক্রমবর্ধমান বিরূপ আচরণে তারা উদ্বিগ্ন। ট্রাম্পকে তার মন্তব্য প্রত্যাহার ও ক্ষমা প্রার্থনার দাবি জানিয়ে ৫৪ দেশ যৌথভাবে যুক্তরাষ্ট্রের সর্বস্তরের যেসব মানুষ ট্রাম্পের মন্তব্যের নিন্দা জানিয়েছে তাদের ধন্যবাদ দিয়েছে।

অন্যদিকে এক বিবৃতিতে ট্রাম্পের ওই মন্তব্যকে ‘বেদনাদায়ক, লজ্জাজনক ও বর্ণবাদী’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে জেনেভার জাতিসংঘ মানবাধিকার দপ্তর। দপ্তরটির মুখপাত্র রুপার্ট কলভিল বলেন, আপনি পুরো দেশ বা মহাদেশের সব মানুষকে নোংরা বলতে পারেন না। ট্রাম্পের ওই মন্তব্যকে বর্ণবাদী ছাড়া অন্য কিছু হিসেবে বর্ণনা করা অসম্ভব। শ্বেতাঙ্গ নয়, এমন জনগোষ্ঠীকে যুক্তরাষ্ট্রে স্বাগত না জানানোর ট্রাম্পের মানসিকতার সমালোচনা করেন জাতিসংঘের এ মানবাধিকারকর্মী।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে