দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ

এত সম্পদ কোথায় পেলেন হুইপ আতিক

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৮ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৮ এপ্রিল ২০১৮, ০৯:১৪ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিলাসবহুল বাড়ি, দৃষ্টিনন্দন বাগানবাড়ি, নামে-বেনামে শতকোটি টাকার সম্পদ জাতীয় সংসদের হুইপ ও শেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য আতিউর রহমান আতিকের। আর সে কারণেই তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গতকাল সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত সেগুনবাগিচার প্রধান কার্যালয়ে আতিককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তবে সম্পদের কথা স্বীকার করলেও হুইপ বলছেন, সেগুলো তিনি বৈধ পথেই গড়েছেন।

দুদক সূত্র জানায়, হুইপ আতিকের বিরুদ্ধে শেরপুরের তিনআনি বাজারে বিলাসবহুল বাড়ি কেনা, গ্রামে ৩০ একর জমিতে দৃষ্টিনন্দন বাগানবাড়ি তৈরি, রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক ও বনশ্রীতে দুটি প্লট, ধানম-ি ও গুলশানে দুটি ফ্ল্যাটসহ নামে-বেনামে শতকোটি টাকার সম্পদ রয়েছে। এলাকায় স্কুলের পিয়ন থেকে শুরু করে নানা ধরনের নিয়োগ বাণিজ্য, স্কুল-কলেজের এমপিওভুক্তিকরণের নামে শিক্ষক-কর্মচারীদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা আদায়, টিআর-কাবিখার টাকা হরিলুটসহ নানারকম দুর্নীতির অভিযোগ তার বিরুদ্ধে। নির্বাচনী হলফনামায় আতিক যে পরিমাণ সম্পত্তি দেখিয়েছেন তা অতিক্রম করেছে। দেশের বাইরেও তার বিরুদ্ধে সম্পত্তির খোঁজ নিচ্ছে দুদক।

জিজ্ঞাসাবাদ শেষে দুদক সচিব ড. শামসুল আরেফিন সাংবাদিকদের বলেন, ‘তার (আতিউর রহমান আতিক) বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ তিন বছর আগে আনা হয়েছিল। হাইকোর্টে রিটের কারণে স্থগিত ছিল তদন্ত। রিট আবেদনটি খারিজ হওয়ার পর আবার তদন্ত শুরু হয়েছে। আসলে ব্যক্তি নয়, দুর্নীতির গুরুত্ব বিবেচনা করে দুদক তদন্ত করে থাকে। কাউকে হয়রানি করার জন্য তদন্ত নয়।

তবে দুর্নীতির অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে বাড়ি-গাড়ি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন হুইপ আতিউর রহমান আতিক। মঙ্গলবার দুদক কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বাইরে অপেক্ষারত সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘ব্যাংক থেকে লোনের মাধ্যমে টাকা নিয়ে আমি বাড়ি-গাড়ি করেছি। আমি স্বচ্ছ, সততা ও ন্যায়নিষ্ঠভাবে রাজনীতি করে এসেছি, এটা প্রমাণিত। ভবিষ্যতেও সেটার ধারাবাহিকতা থাকবে।’

আতিক আরও বলেন, ‘আমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। আমি সেগুলোর যথাযথ জবাব দিয়েছি। এসব অভিযোগের সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক বা সম্পৃক্ততা নেই। কে কী বলেছে সেটা দেখার বিষয় নয়। আমি গ্রাম থেকে উঠে এসেছি, রাজনৈতিকভাবে আমাকে হেয় করার জন্য এসব অভিযোগ করা হচ্ছে। এসব অভিযোগ মিথ্যা, বানোয়াট এবং উদ্দেশ্যমূলক। যারা অভিযোগ করেছে তাদের এগুলো প্রমাণ করতে হবে।’

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে