সংবাদ সম্মেলনে হাসান সরকার

আবহাওয়া সুবিধার মনে হচ্ছে না

  গাজীপুর প্রতিনিধি

২৫ জুন ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২৫ জুন ২০১৮, ০৯:১০ | প্রিন্ট সংস্করণ

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী হাসানউদ্দিন সরকার বলেছেন, শেষ মুহূর্তের আবহাওয়া সুবিধার মনে হচ্ছে না। বিশ্বস্ত বিশেষ মাধ্যমে আমি অবহিত হয়েছি, খুলনা রেঞ্জের পুলিশদের এই গাজীপুর সিটি নির্বাচনের জন্য আনা হয়েছে। খুলনায় যে কায়দায়, যে কৌশলে নির্বাচন করা হয়েছে, সেভাবে এখানেও নির্বাচন সম্পন্ন করার চেষ্টা চলছে। কিন্তু শত বাধা সত্ত্বেও আমরা নির্বাচনে আছি এবং শেষ পর্যন্ত থাকব। সরকার ও নির্বাচন কমিশনের নোংরা চরিত্র জাতির সামনে তুলে ধরব। গতকাল রবিবার বেলা ১১টায় টঙ্গী উপজেলা বিএনপির কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

হাসানউদ্দিন সরকার অভিযোগ করেন, তার নেতাকর্মী ও নির্বাচনী এজেন্টদের বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি ও হুমকিধমকি দেওয়া হচ্ছে। অনেকে প্রাণের ভয়ে নির্বাচনী প্রচারে নামতে পারছেন না। তিনি বলেন, গত ২০ জুন নির্বাচন কমিশন ও তাদের নিয়ন্ত্রিত প্রশাসন প্রার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময়সভায় যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, নির্বাচনী মাঠে তার বাস্তবায়ন হচ্ছে না। বরং খুলনা স্টাইলে নির্বাচন করার প্রস্তুতি চলছে। পুলিশ ২০-দলীয় জোট নেতাকর্মীদের গণগ্রেপ্তার ও হুমকিধমকি দিয়ে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বানচাল করে দিচ্ছে। ইতোমধ্যে ২০-দলীয় জোটের ৭৫ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থীকেও পুলিশের গাড়িতে দেখা যাচ্ছে। খুলনার কারচুপির অভিজ্ঞতাসম্পন্ন পুলিশ সদস্যদের ইতোমধ্যে গাজীপুরের নির্বাচনী দায়িত্ব পালনের জন্য আনা হয়েছে। কিন্তু শত বাধা সত্ত্বেও আমরা নির্বাচনে আছি এবং শেষ পর্যন্ত থাকব।

হাসান সরকার বলেন, আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলে। কিন্তু বাস্তবে তারা মুক্তিযোদ্ধাদের কতটুকু সম্মান করে। এই নির্বাচনে আমি হয়তো শেষ মুক্তিযোদ্ধা হব। আগামীতে হয়তো আর কোনো মুক্তিযোদ্ধাকে আপনারা নির্বাচনে পাবেন না। তাই সব মুক্তিযোদ্ধাকে আমার পক্ষে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানাই।

তিনি বলেন, সুনামের সঙ্গে বেঁচে থাকতে চাই। মানুষের ঘৃণা নিয়ে বেঁচে থাকতে চাই না। জীবনের এই শেষ নির্বাচনে জীবন দিয়ে হলেও গাজীপুরবাসীর ইজ্জত রক্ষা করব। তিনি সাংবাদিকদের নির্বাচনী সঠিক চিত্র তুলে ধরার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, মহান আল্লাহর পরে আপনারা আমাদের ভরসা। আপনারা সঠিক চিত্র তুলে ধরতে পারলে এবং ন্যূনতম সুষ্ঠু ভোট হলে সম্মানজনক ভোটে বিজয়ী হব।

তিনি ভোটারদের প্রতি আস্থা রেখে বলেন, শত উস্কানি ও উৎপীড়নের মধ্যেও ভোটাররা স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোটকেন্দ্রে আসবে বলে আমি বিশ^াস করি।

হাসান সরকার অভিযোগ করেন, পুলিশ আমাদের নেতাকর্মীদের বাসাবাড়িতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের অকথ্য ভাষায় গালাগাল করছে। নির্বাচন পর্যন্ত এলাকায় না থাকতে হুমকি দিচ্ছে। এমনকি একজন নেতার মেডিক্যালপড়–য়া মেয়েকেও বাড়িতে গিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করেছে। এতে সে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। তিনি বলেন, দেশে ন্যক্কারজনক রাজনীতি চলছে। আমাদের একজন প্যারালাইজড নেতাকেও তুলে নেওয়া হয়েছে। ওমর ফারুক নামের ওই নেতাকে এখন কোথায় রাখা হয়েছে তা জানানো হচ্ছে না। আটক করেই ভিন্ন জেলায় পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে ঢাকা, টাঙ্গাইল ও নারায়ণগঞ্জের জেলখানায় কয়েকজনের সন্ধ্যান পাওয়া গেছে। অনেকের এখনো হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। শনিবার রাতে বাসনের স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন চৌধুরীর বাড়ির গেট ভেঙে পুলিশ ভেতরে প্রবেশ করে।

বিএনপির মেয়রপ্রার্থীর অভিযোগ, আওয়ামী লীগ আচরণবিধির কোনো তোয়াক্কা করছে না। তাদের মন্ত্রী-এমপিরাও আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচার চালাচ্ছেন। ইতোমধ্যে নির্বাচন কমিশন বহিরাগতদের নির্বাচনী এলাকায় অনুপ্রবেশ নিষিদ্ধ করেছেন। কিন্তু আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে খুলনার বিতর্কিত ভোটের মেয়রসহ কেন্দ্রীয় নেতাদেরও প্রচার চালাতে দেখা গেছে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে