ব্যবসায়িক স্বার্থে অহেতুক সিজার

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৩ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দেশের বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে নবজাতক প্রসবের ক্ষেত্রে সিজার বা সি-সেকশন (সিজারিয়ান সেকশন) পদ্ধতির প্রবণতা ভয়ানক হারে বেড়েছে জানিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

তিনি বলেন, প্রয়োজন নেই, অথচ ব্যবসা করার জন্য সিজার করা মানবাধিকার লঙ্ঘনের শামিল। বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস উপলক্ষে গতকাল রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রতিবছর দেশে প্রায় ৩০ লাখ সন্তান প্রসব হয়। এর মধ্যে মাত্র ১১ লাখ হয় সরকারি হাসপাতালে। বাকিগুলোয় হয় বেসরকারি হাসপাতালে। বেসরকারি হাসপাতালে হওয়া প্রসবের বেশিরভাগই সিজার ও সি-সেকশন পদ্ধতিতে করা হয়। সব মিলিয়ে বেসরকারি হাসপাতালগুলোয় প্রায় ৭৫ শতাংশ প্রসবই সি-সেকশন পদ্ধতিতে করা হয়। অথচ ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের (ডব্লিউএইচও) মতে ১০ থেকে ১৫ শতাংশের বেশি সি-সেকশন হওয়া ঠিক নয়।

ব্যবসায়িক স্বার্থ চরিতার্থ করতেই বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরা মূলত সি-সেকশনের প্রতি আগহী হচ্ছেন বলে জানান প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, স্বার্থের লোভে বেসরকারি হাসপাতালের যেসব চিকিৎসক এগুলো করেন, তারা মানবতাবিরোধী কাজ করছেন।

শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব জিএম সালেহউদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কাজী মোস্তফা সারোয়ার, জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) প্রতিনিধি ড. আসা টোরকেলসন, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব সিরাজুল হক খান ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদসহ পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে