কোথায় গেল এত কয়লা

উত্তরাঞ্চলে ভয়াবহ বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের শঙ্কা

  লুৎফর রহমান কাকন

২০ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২০ জুলাই ২০১৮, ১৩:৩০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির সরবরাহকৃত কয়লায় চলে বড়পুকুরিয়া বিদ্যুৎকেন্দ্রটি। কয়লার অভাবে দেশের একমাত্র এই কয়লাবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি দু-এক দিনের মধ্যে বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে অন্যান্য অঞ্চল থেকে দিনাজপুর-রংপুরসহ ওই অঞ্চলের জেলাগুলোয় বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে হবে। তা না হলে উত্তরাঞ্চলের অধিকাংশ জেলা ভয়াবহ বিদ্যুৎ সংকটে পড়বে।

বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) সূত্রে জানা যায়, বড়পকুরিয়ার বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে ২৩০ মেগাওয়াট ক্ষমতার একটি ইউনিট ছাড়াও ১২৫ মেগাওয়াট করে বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম আরও দুটি ইউনিট রয়েছে। প্রয়োজনীয় কয়লার অভাবে ১২৫ মেগাওয়াটের ইউনিট দুটো আগে থেকেই বন্ধ; চলছিল শুধু ২৩০ মেগাওয়াটের ইউনিটটি।

বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে, চলমান কেন্দ্রটি পুরোপুরি উৎপাদনে রাখতে প্রতিদিন ৪ হাজার থেকে সাড়ে ৪ হাজার মেট্রিক টন কয়লা দরকার। সেই হিসাবে এক মাসের জন্য দেড় থেকে দুই লাখ মেট্রিক টন কয়লা রিজার্ভ রাখার নিয়ম। বাংলাদেশ তেল, গ্যাস ও খনিজসম্পদ করপোরেশনের (পেট্রোবাংলা) সঙ্গে বৈঠক করে কয়লার রিজার্ভ সর্ম্পকে নিশ্চিত থাকে পিডিবি। পেট্রোবাংলার আওতাধীন বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি এ কয়লা সরবরাহ করে থাকে।

পিডিবি বলছে, সম্প্রতি অনুষ্ঠিত সর্বশেষ বৈঠকেও পেট্রোবাংলা নিশ্চিত করেছে, কয়লার মজুদ আছে। কিন্তু সম্প্রতি পিডিবির বোর্ড সদস্য (উৎপাদন) আবু সাঈদ বড়পুকুরিয়া বিদ্যুৎকেন্দ্রে সরেজমিন গিয়ে দেখেন, সেখানে ছয় থেকে সাড়ে ছয় হাজার মেট্রিক টন কয়লা মজুদ আছে, যা দিয়ে দুদিনও বিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব নয়। সেই হিসাবে ইতোমধ্যেই বিদ্যুৎকেন্দ্রটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ২৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম ইউনিটটিতে বর্তমানে অনেক কম পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদন করে এটি এখনো সচল রাখা হয়েছে।

প্রশ্ন উঠেছে পেট্রোবাংলা থেকে পিডিবিকে নিশ্চিত করা হয়েছিল যে, প্রায় দুই লাখ টন কয়লা মজুদ আছে। মজুদ এ কয়লা কোথায়; এ কয়লা কি আদৌ মজুদ করা হয়েছিল, নাকি কালোবাজারে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে, এমন সব প্রশ্নও উঠে আসছে। এ বিষয়ে কথা বলার জন্য আমাদের সময়ের পক্ষ থেকে কয়লা খনিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. হাবিব উদ্দিন আহমেদকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

বিদ্যুৎকেন্দ্রটি সরেজমিন পরিদর্শনকারী পিডিবির কর্মকর্তা আবু সাঈদ আমাদের সময়কে বলেন, পেট্রোবাংলা থেকে আমাদের কয়লা সরবরাহের নিশ্চয়তা দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, আমি নিজেই দেখেছি বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে কয়লার পর্যাপ্ত মজুদ নেই। কয়লা সংকটে বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ থাকাটা মোটেও উচিত নয়। এই কেন্দ্রটি বন্ধ হয়ে যাওয়া মানে দিনাজপুর, রংপুর, লালমনিরহাটসহ উত্তরের বিশাল অঞ্চলে ভয়াবহ বিদ্যুৎ সংকট তৈরি হওয়া।

বিদ্যুৎ সচিব দেশের বাইরে আছেন। তিনি ফিরে এলে বৈঠক করে এ বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানান আবু সাঈদ।

পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান আবুল মনসুর মো. ফয়েজউল্লাহ আমাদের সময়কে বলেন, হঠাৎ করে কয়লা কেন নেই এ বিষয়ে তদন্তের জন্য কমিটি করা হয়েছে। আমরা বৈঠক করছি। চেষ্টা করছি পিডিবিকে গ্যাস সরবরাহ বাড়িয়ে দিতে যেন বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধি করে আসন্ন সংকটের সমাধান করা যায়। কয়লা মজুদ নেই কেন, সে সম্পর্কে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পেলে বলা যাবে।

পিডিবির চেয়ারম্যান প্রকৌশলী খালেদ মাহমুদ আমাদের সময়কে বলেন, সব বৈঠকে কয়লা মজুদ থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করার পর এখন হঠাৎ দেখা যাচ্ছে কয়লা নেই। এটি দুঃখজনক।

সূত্রমতে, বড়পুকুরিয়ার খনি থেকে কয়লা ক্রয়ে হাজারো শিল্প-কারখানা আগ্রহী। সরকারের প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সুপারিশে ক্ষেত্রবিশেষে কয়লা বিক্রি হয় অবৈধ কমিশন গ্রহণের মাধ্যমে। অভিযোগ রয়েছে, কয়লার ক্রম-ঊর্ধ্বগামী চাহিদাকে কেন্দ্র করে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। এতে যোগসাজশ রয়েছে বড়পুকুরিয়া কোল কোম্পানির কিছু কর্মকর্তারও। এ সিন্ডিকেট অতি উচ্চমূল্যে কালোবাজারে নিয়মিত কয়লা বিক্রি করে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা বলেন, হয়তো বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য সংরক্ষিত কয়লাও কালোবাজারে চলে গেছে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে