ভূমিহীনদের চাল নিয়েও চালবাজি

  মো. মাহফুজুর রহমান

২০ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২০ আগস্ট ২০১৮, ০৯:০৫ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রতীকী ছবি
দুস্থ মানুষের জন্য বরাদ্দ করা চাল নিয়ে সীমাহীন নৈরাজ্য চলছে বলে মাঠপর্যায় থেকে অভিযোগ এসেছে। বলা হচ্ছে এ চালের একটা অংশ খোলাবাজারে বিক্রি করে দেওয়া হয়। ওজনে কম দেওয়া, নিয়ম ভেঙে বেশি পরিমাণে সরবরাহসহ চাল বিতরণে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

ভারনারেবল গ্রুপ ফিডিং বা ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় বিনামূল্যে এই চাল দেওয়া হয়। তালিকাভুক্ত দুস্থরা ২০ কেজি করে চাল পান। সরকার ইতোমধ্যে এ খাতের বিপরীতে ২ লাখ ৩ হাজার টন চাল বরাদ্দ করেছে। নির্বাচনী বছরে এ চাল বিতরণে অধিক স্বচ্ছতা নিশ্চিতের জন্য কঠোর নির্দেশও রয়েছে।

অভিযোগ রয়েছে আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে দুস্থদের জন্য বরাদ্দ এই ভিজিএফের চালের একটা অংশ কালোবাজারে চলে যাচ্ছে। আটক হচ্ছেন জনপ্রতিনিধিরা। কোথাও কোথাও চালসহ ট্রাকও লোপাট হচ্ছে। এ ছাড়া ওজনে কম দেওয়া, মানহীন চাল নিয়ে অভিযোগ কম নয়। তবে চাল নিয়ে নয়ছয়ের অভিযোগ অস্বীকার করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব (ত্রাণ) মো. শাহজাহান আমাদের সময়কে বলেন, কোনো অভিযোগ প্রমাণ হলে শাস্তি অনিবার্য।

গত ১৭ আগস্ট নীলফামারীর ডোমারে ভিজিএফের চাল কালোবাজারে বিক্রির অভিযোগে ৯১ বস্তা চাল জব্দ করা হয়েছে। এ সময় ৬টি গুদাম সিলগালা করা হয়। ডোমার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ফাতিমার নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে এসব চাল জব্দ করা হয়।

জানা গেছে, জোড়াবাড়ী ইউনিয়নে কোনো নিয়ম না মেনে ভিজিএফ চাল বিতরণ করা হয়। এক ব্যক্তি একটি কার্ডের বিপরীতে বরাদ্দ চাল দেওয়ার নিয়ম থাকলেও পাঁচটি কার্ডের সমপরিমাণ চাল একজনকে দেওয়া হয়েছে। চাল উত্তোলনকারীদের কাছ থেকে কোনো সই নেওয়া হচ্ছে না। আর এ সুযোগে বিভিন্ন জায়গায় চাল মজুদ করে তা কালোবাজারে বিক্রি করা হচ্ছে। পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডে গ্রাম পুলিশ আফজাল হোসেনের বাড়ি থেকেই ৫০ কেজি ওজনের ৪৬ ও ৩০ কেজি ওজনের ১৯ বস্তা চাল জব্দ করে। এ ছাড়া ইউনিয়ন পরিষদসংলগ্ন তরিকুল ইসলাম বাবলুর হেফাজতে থাকা ৫০ কেজি ওজনের ৮টি, ৩০ কেজি ওজনের ৪টিসহ মোট ১২ বস্তা চাল জব্দ হয়।

এ ব্যাপারে জোড়াবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসান জানান, চাল বিতরণ এখনো বাকি রয়েছে। ঠিক কত বস্তা চাল আছে, তা বলা সম্ভব নয়। ইউনিয়নের তিনটি গোডাউনেই ইউএনও সিলগালা করেছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চাল আটক ও গোডাউন সিলগালা করার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, ভিজিএফ কমিটি ও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জামালপুরের মেলান্দহে ভিজিএফের চাল ওজনে কম দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে স্থানীয় সাংসদ এবং পাট ও বস্ত্র প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম ক্ষোভ প্রকাশ করে সুষ্ঠুভাবে বিতরণের জন্য ইউএনওকে নির্দেশ দেন। এরপরও চাল বিতরণে অনিয়ম পরিলক্ষিত হচ্ছে। ১৬ আগস্ট ঘোষেরপাড়া ইউনিয়নে ২০ কেজির স্থলে ১৫/১৬ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এদিকে খুলনার সেনহাটিতে চাল কম পেয়ে দুস্থরা ১৮ আগস্ট দুপুরে ইউপি কার্যালয়ে হামলা চালায়। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে গিয়েও পরিস্থিতি শান্ত করতে ব্যর্থ হন। পরে জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে পুনরায় চাল বিতরণ শুরু হয়।

কুড়িগ্রাম জেলার নাগেশ্বরী উপজেলার কালীগঞ্জ ইউনিয়নের কালীগঞ্জ বাজারে সাড়ে ৩শ বস্তা ভিজিএফের চালসহ ৬টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সিলগালা করেছেন নাগেশ্বরী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শঙ্কর কুমার বিশ্বাস। বৃহস্পতিবার বিকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নাগেশ্বরী ইউএনও সরেজমিন কালীগঞ্জ বাজারে চাল ব্যবসায়ীদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভিজিএফের চালের বস্তা পেয়ে ওইসব প্রতিষ্ঠান সিলগালা করেন।

ভিজিএফের চাল কালোবাজারে বিক্রির অভিযোগের তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার পুঁটিমারী ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান ৬ স্থানীয় সাংবাদিককে লাঞ্ছিত করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাদের ইউনিয়ন পরিষদের একটি কক্ষে আটকে রাখা হয়। পরে পুলিশ গিয়ে সাংবাদিকদের উদ্ধার করে। কালোবাজারে ভিজিএফের চাল পাচার হয়েছেÑ এমন তথ্য পেয়ে সত্যতা যাচাইয়ে অকুস্থলে গিয়েছিলেন সংবাদিকরা।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে